মাগুরার শ্রীপুরে জাং ছাং ইন্ডাষ্ট্রিজ এন্ড ট্রেড লিমিটেডে ভূয়া ছাড়পত্র, আইনগত ব্যবস্থা

0
193

যশোর পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর ও পদবি জালিয়াতি ঘটনা

এম আর রকি : যশোর পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক শেখ মোঃ নাজমুল হুদা ও সিনিয়র কেমিস্ট মিজানুর রহমানের স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে সম্পূর্ণ ভূয়া পরিবেশগত ছাড়পত্র সৃষ্টি করার অভিযোগে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দিকে এগুচ্ছে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা। ইতিমধ্যে তারা উক্ত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পরিচালক পরিবেশ অধিদপ্তর খুলনা বিভাগীয় ও সহকারী পরিচালক মহা পরিচালকের শাখা পরিবেশ অধিদদপ্তর সদর দপ্তর ঢাকায় প্রতিবেদন প্রেরণ করেছে। ঘটনাটি যশোর পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয়ের অধীনে মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার নাকোল উত্তর গোবিন্দপুর গ্রামে। প্রতিষ্ঠানের নাম জাং ছাং ইন্ডাস্ট্রিজ এন্ড ট্রেড লিমিটেড। উক্ত প্রতিষ্ঠানে পাটকাঠি থেকে কার্বন পাউডার তৈরী করা হয়। প্রতিষ্ঠানের মালিক চাইনিজ নাগরিক জাং হুই ছাং। উক্ত প্রতিষ্ঠানের ভূয়া পরিবেশগত ছাড়পত্র দুই পাতার ফটোকপি গত ২ জানুয়ারী জব্দ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবে প্রতিষ্ঠান দেখাশুনা করেন ঢাকা ধামরাই কান্টাহাটি টুকের বাড়ি বদরুল আলমের ছেলে আলমগীর হোসেন ।
যশোর পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক শেখ মোঃ নাজমুল হুদা জানিয়েছেন,পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয় যশোরের অধীনে মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার নাকোল উত্তর গোবিন্দপুর গ্রামে চাইনিজ নাগিরকের পরিচালনায় উক্ত প্রতিষ্ঠানে পাটকাঠি থেকে কার্বন পাউডার প্রস্তুতের জন্য ছাড়পত্র গ্রহন করা হয়। উক্ত প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র ভূয়া ও জালজালিয়াতি জেনেও উক্ত প্রতিষ্ঠানে হাজির হয়ে তারা পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয়ের ছাড়পত্র দেখতে চান। উক্ত প্রতিষ্ঠান বর্তমানে দেখাশুনা ও পরিচালনাকারী আলমগীর হোসেন পরিবেশ অধিদপ্তর ঢাকা বন মন্ত্রনালয় স্মারক নং ২২.০২.৪০৪১.০১৬.৭২.০০২.১৮.৭০২ তারিখ ১২/০৩/১৮ পরিবেশগত ছাড়পত্রের ফটোকপি দেখান। উক্ত স্মারকের ছাড়পত্র দু’টি দেখে উপ-পরিচালক শেখ মোঃ নাজমুল হুদা, কেমিষ্ট নিখিল চন্দ্র ঢালীসহ সহকর্মীরা হতবাক হয়ে পড়েন। তারা উক্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ওই দিন দুপুর ১২ টা ৪০ মিনিটে ছাড়পত্রের ফটোকপি দুইটি জব্দ করেন। উক্ত জব্দ তালিকায় প্রতিষ্ঠান দেখাশুনা ও পরিচালনাকারী আলমগীর হোসেন ছাড়াও স্থানীয় শ্রীপুর উপজেলার নাকোল গ্রামের শাহিদুল শেখের ছেলে রাশেদুল শেখ ও প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট ঢাকা ধামড়াই কান্টাহাটি টুকের বাড়ী এলাকার শুকুর আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের স্বাক্ষর গ্রহন করেন। জব্দকৃত দুইটি ফটোকপি পরিবেশগত ছাড়পত্র দেখে জানাগেছে,ছাড়পত্র দু’টিতে মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার নাকোল উত্তর গোবিন্দপুর লেখা রয়েছে। তাছাড়া,ছাড়পত্রের প্রথমটিতে সিনিয়র কেমিস্ট হিসেবে মোঃ নাজমুল হুদার লেখার নামের উপরে ১৪/০৩/১৮ ইং তারিখে স্বাক্ষর রয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তর যশোর কার্যালয়ে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, অত্র দপ্তরের উপ-পরিচালক শেখ মোঃ নাজমুল হুদা ২৭/০৫/১৮ ইং তারিখে যোগদান করেন। এর আগে তিনি চট্টগ্রাম জেলায় কর্মরত ছিলেন। তাছাড়া তিনি সিনিয়র পদ মর্যাদার কেমিষ্ট নন। এমনকি যে স্বাক্ষর রয়েছে সে স্বাক্ষর তার নয় বলে তিনি দাবি করেন। অপর ছাড়পত্রে একই স্মারকে একই তারিখ উল্লেখসহ সিনিয়র কেমিস্ট মজিবুর রহমান রহমান লেখা রয়েছে। অথচ উক্ত কার্যালয়ে বিগত ১০ সাল থেকে মজিবুর রহমান নামে কোন কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করেননি বলে দপ্তর সূত্রে খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে। সিনিয়র কেমিস্ট হিসেবে মিজানুর রহমান দায়িত্ব পালন করছেন ২৭/০৮/১৭ ইং থেকে। পরিবেশ অধিদপ্তর যশোর কার্যালয়ে পরিবেশগত যে ছাড়পত্র প্রদান করা হয় তা অবস্থানগত ছাড়পত্র। উক্ত প্রতিষ্ঠানে দু’টি ছাড়পত্র সম্পূর্ন ভূয়া ও জালজালিয়াতি বলে কর্মকর্তাদ্বয় নিশ্চিত হয়ে সম্প্রতি পরিবেশ অধিদপ্তর পরিচালক খুলনার কর্মকর্তাসহ অনুলিপি ঢাকার মহা পরিচালকের অধীনের সহকারী পরিচালকের দপ্তরে প্রেরণ করেছেন। যে কোন মূর্হুতে উক্ত প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here