মাছের উৎপাদন বাড়িতেছে

0
213

নিরাপদ প্রজননের জন্য গত অক্টোবর মাসের ২২ দিন ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ ছিল। এই সময়ে নদীতে ৪৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ মা ইলিশ ডিম ছাড়িয়াছে, যাহা গত বত্সরের তুলনায় ২ দশমিক ৪৭ শতাংশ বেশি। পোনা ছাড়িবার সংখ্যা প্রায় ৪২ হাজার কোটি। বাংলাদেশ মত্স্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণায় এই সকল তথ্য উঠিয়া আসিয়াছে। আশ্বিন মাসের পূর্ণিমা ও অমাবস্যার সময় ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম। এইবার বৃষ্টিপাত, ঝড়ো হাওয়া ও নদীতে পানিপ্রবাহ ছিল বেশি। অনুকূল পরিবেশে বেশি পরিমাণে মা-ইলিশ সমুদ্রের লোনাপানি হইতে নদীর মিঠাপানিতে আসিয়াছে ডিম ছাড়িতে। ২০১৬ হইতে বড় পূর্ণিমার ৪ দিন আগে ও পূর্ণিমার দিন, পরের ১৭ দিনসহ ২২ দিন ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ করা হইতেছে। পূর্ণিমার সঙ্গে পরবর্তী অমাবস্যাকেও যুক্ত করা হইয়াছে। ফলে, গত দুই বত্সরে সুফলও পাওয়া গিয়াছে। তবে গবেষণায় দেখা গিয়াছে, এই বত্সর ৪৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ মা-ইলিশ প্রজননে সক্ষম হইয়াছে। আরো কয়েকদিন ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ থাকিলে হয়ত পোনা ছাড়িবার পরিমাণ আরো বাড়িত।

তবে উল্লেখযোগ্য বিষয় হইল, দেশে মাছের উত্পাদন বাড়িতেছে। নিরাপদ প্রজননে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ায় ২০১৫-১৬ অর্থবত্সরে ইলিশ উত্পাদিত হইয়াছে ৩ লক্ষ ৯৮ হাজার টন, গত অর্থবত্সরে (২০১৬-১৭) ইহার পরিমাণ ছিল প্রায় ৫ লক্ষ টন। আশা করা যাইতেছে, চলতি অর্থবত্সর ইলিশের উত্পাদন হইবে ৬ লক্ষ টনের বেশি, যাহা এ যাবত্কালের সর্বোচ্চ। ইহার বাজারমূল্য ২৪ হাজার কোটি টাকা। অন্যদিকে, মিঠা পানির মাছ উত্পাদনে এক যুগ ধরিয়াই বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ; সমুদ্রে মাছ আহরণের দিক হইতে অবস্থান ২৫তম। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি বিষয়ক সংস্থা (এফএও) এর ‘দ্য স্টেট অব ওয়ার্ল্ড ফিশারিজ অ্যান্ড অ্যাক্যুয়াকালচার’ শীর্ষক প্রতিবেদন হইতে এই তথ্য জানা গিয়াছে। ইহাতে বলা হইয়াছে, গত এক দশকে দেশে মাছের উত্পাদন বাড়িয়াছে ৫৩ শতাংশ। আর রফতানির পরিমাণ বাড়িয়াছে ১৩৫ গুণ। দেশে মাথাপিছু মাছ খাইবার পরিমাণও বাড়িয়া শতভাগে দাঁড়াইয়াছে। আগামী ২০২২ সাল নাগাদ বিশ্বের চারটি দেশ মাছ চাষে বিপুল সাফল্য অর্জন করিবে। এগুলির মধ্যে প্রথম দেশটি হইবে বাংলাদেশ। সরকারের কঠোর নীতিমালার কারণে ইলিশের উত্পাদন যেমন বাড়িতেছে, মত্স্য অধিদপ্তর ও বিজ্ঞানীদের নিরলস পরিশ্রমে মিষ্টিপানির মাছের উত্পাদনও বাড়িতেছে, জনসচেতনতাও বাড়িয়াছে। মত্স্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা এই পর্যন্ত ১৪টি মাছের নূতন জাত উদ্ভাবন করিয়াছেন। চাষিদের হাতে তুলিয়া দিয়াছেন ৫০টি উন্নত প্রযুক্তি। মূলত নূতন এই জাত ও চাষ পদ্ধতির কারণেই দেশে মাছের উত্পাদন বাড়িতেছে।

মাছে-ভাতে বাঙালি ধারণাটি প্রাচীনকালের প্রবাদে পরিণত হইতে যাইতেছিল। কিন্তু গত দেড় যুগ ধরিয়া নিরলস পরিশ্রমে আমাদের বিজ্ঞানীরা ও নীতিপ্রণেতারা তাহা আবারও বাস্তব করিয়া তুলিয়াছেন। তাহাদের সাধুবাদ জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here