মাটি ও মানুষের প্রতি ভালোবাসার দলিল

0
260

ড. আতিউর রহমান : বঙ্গবন্ধুর লেখা ‘কারাগারের রোজনামচা’ একনাগাড়েই পড়ে ফেলার মতো একটি বই। তাঁর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ও একই ধাঁচের আরেকটি বই। অতি সহজে মনের কথা বলবার এবং লিখবার এক অভাবনীয় ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন তিনি। এ বই দুটো পড়েই আমার মনে হয়েছে রাজনৈতিক সাহিত্যিক হিসেবে বিশ্বজুড়ে তাঁর সুনাম চিরদিনই বহাল থাকবে। এই দুটো বইয়ের সম্পাদক তাঁরই সুকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন যে, তাঁর আরো কয়েকটি বই অচিরেই বের হবে। আরো সন্তুষ্টির কথা যে বইগুলোর ইংরেজি অনুবাদও বের হবে। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র ইংরেজি অনুবাদ এরই মধ্যে বের হয়েছে। সবগুলো বই যখন বের হবে তখন বিশ্বমানের এক সাহিত্যিক হিসেবেও আমরা আমাদের জাতিসত্তার জনকের পরিচয় সর্বত্র গর্বের সঙ্গে তুলে ধরতে সক্ষম হবো। তাঁর লেখায় মানুষের প্রতি ভালোবাসা এবং স্বদেশ প্রেম যেভাবে এসেছে তা তাঁর মাটি-ঘেঁষা রাজনীতিরই স্পষ্ট প্রতিফলন। আর সে কারণেই তিনি হতে পেরেছিলেন বাংলার বন্ধু—বঙ্গবন্ধু। জীবনের প্রধান অংশই তিনি যাপন করেছেন জেলে। প্রথম জেলে গিয়েছিলেন ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ। রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাইবার অপরাধে। এরপর থেকে নিত্য তাঁর যাওয়া-আসা। জেলের বাসিন্দাদের কাছে তিনি এক প্রিয় মুখ। কয়েদি পাহারাদার, বন্দী পাগল, গাছ, পাখি, বিড়াল সকলেই তাঁর পরিচিত ও প্রিয়ভাজন। আলোচ্য বইটির ২৭ থেকে ৫৪ পাতা ‘জেলের ভিতর অনেক ছোট ছোট জেল আছে’ শিরোনামে লেখা। ‘জেলে যারা যায় নাই, জেল যারা খাটে নাই — তারা জানে না জেল কি জিনিস’। এই শব্দগুচ্ছ দিয়ে শুরু করা জেলের ভেতরের ২৭ পৃষ্ঠার এই বিবরণই প্রমাণ করে তিনি কতোটা মানবিক ছিলেন। জেলের ভেতরে যে একসঙ্গে থাকা যায় না, এর ভেতরে যে আরো ছোট ছোট জেল আছে, জেল যে ‘আলাদা এক দুনিয়া’ তা এই বই না পড়লে আমার মতো অনেকের কাছে তা অজানাই থেকে যেতো। এই ‘রোজনামচা’ পড়েই জানতে পারি যে ১৯৬৬ সাল নাগাদ তিনি পাঁচবার জেলে গেছেন। এমন কি হাজতি হিসেবেও তাঁকে জেল খাটতে হয়েছে। কত রকম জেল, কত রকম বন্দী মানুষ, কি তাদের কষ্ট তা এই বই পড়লে জানা যায়। হাজতির, রাজবন্দীরা কিভাবে আলাদা আলাদাভাবে থাকেন, সেল এরিয়া কাকে বলে এসব কথা। বারে বারে কয়েদির গুণতি দিতে হয়, লাইন বেঁধে বসিয়ে তাদের গণনা করা হয়। এক সেলে একজন, তিনজন, চার, পাঁচ বা তারও বেশি জনকে বন্ধ করে রাখা হয়। কিন্তু দু’জনকে এক সেলে রাখা হয় না। জেলের ভেতরে হাসপাতাল, ডাক্তার সবই আছে। জেলে কাজ করতে হয়। যারা লেখাপড়া জানে তাদের রাইটারের কাজ দেয়া হয়। সন্ধ্যার পর কেউ বাইরে থাকতে পারে না। সাজার সময় ভেদে কয়েদিদের প্রমোশনও দেয়া হয়। পাহারাদার, মেট হিসেবে তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। নাইট গার্ডদেরও রকমফের আছে। তাদের ক্ষমতারও হেরফের আছে। কয়েদিদের একজন আরেকজনকে কাজ বুঝিয়ে দিতে হয়, কাজ বুঝে নিতে হয়। কয়েদির চিঠি জেলের কর্মকর্তারা পড়ে তবেই পাঠানো হয়। রাজনৈতিক বন্দীদের চিঠি কাটাকুটি করা হয়। কালি ঢেলে অস্পষ্ট করা হয়। তাছাড়া জেলের ভেতরে রয়েছে নানা শব্দভাণ্ডার যা শুধু সেখানেই প্রচলিত। অনেকদিন জেলে থাকলেই কেবল এসব শব্দের মর্মার্থ বোঝা সম্ভব। কয়েদিরা তাদের মতো করে ইংরেজি শব্দের ভাণ্ডার গড়ে তুলেছে। ‘থালা বাটি কম্বল জেলখানার সম্বল’ শিরোনামে এই লেখাটিতে অদ্ভুত সব শব্দভাণ্ডারের পরিচয় পাই। কেস ফাইল বা কেস টেবিল হয়ে যায় ‘কেসটাকোল;, ‘রাইটার দফা’। ‘চৌকি দফা’, ‘জলভরি দফা’, ‘ঝাড়ু দফা’, ‘বন্দুক দফা’, ‘পাগল দফা’, ‘শয়তানের কল’, ‘দরজি খাতা’, ‘মুচি খাতা’— এমন সব শব্দকোষ ব্যাখ্যাসহ তিনি এই বইতে অত্যন্ত যত্নসহকারে লিখেছেন। জেলের ভেতরের এই অজানা কথাগুলো আমরা কোনোদিনই জানতে পারতাম না এই বইটি না বের হলে। শুধু কি শব্দকোষ? এই শব্দকোষ তৈরি করেছে সে সব জেলের অধিবাসী তাদের কথাও রয়েছে বইটিতে । তিনি তাদের কথা লিখেছেন দরদ দিয়ে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা তিনি তাঁর সঙ্গে যুক্ত থাকা বা আশপাশের কয়েদিদের দুঃখ-ভরা জীবনের কাহিনী শুনতেন। তাদের সে সব কথাও স্থান পেয়েছে এই বইতে। মনে হয় এরা তাঁর কতোই না আপনজন। উদাহরণ হিসেবে ‘লুদু’র কথা বলা যায়। ১৯৫০ সালে যখন জেলে এসেছিলেন বঙ্গবন্ধু তখন পরিচয় হয় লুদু ওরফে লুত্ফর রহমানের সঙ্গে। ১৯৫৪ ও ১৯৫৮ সালেও তাকে তিনি দেখেছেন জেলে। ১৯৬৬-তেও এসে পান তাকে। তার গল্প তিনি লিখেছেন অসীম মমতায়। চুরি ও পকেটমারাকে কেন পেশা হিসেবে নিয়েছিল লুদু? তার বাবার সাত বিয়ে ও নানা বদভ্যাসের ফসল লুদু। নানা বাড়ির পাশের বাড়ির গোপাল নামের এক যুবকের কাছে তার চুরি বিদ্যায় হাতেখড়ি। এরপর একা চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়লো লুদু। থানার পুলিশ ও দারোগার সঙ্গে ‘দেখা-সাক্ষাত্ করে’ কি করে আরো বড়ো পকেটমার হয়ে উঠলো সে কাহিনী বঙ্গবন্ধুর বইতে ফুটে উঠেছে। এরপর জিআরপি, সিআইডিসহ পুলিশের নানা পর্যায়ে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ‘বন্দোবস্ত’ করতে পারেনি এমন পুলিশের হাতে ধরা পড়ে ফের লুদু জেলে। জেলের ভেতরেও রয়েছে অপরাধ জগত্। সেই জগতেরও পাকা সদস্য লুদু। গলায় ‘খোকড়’ কেটে জেলখানা থেকে বের হয়ে নানা জায়গায় পকেটমারি করে। ফের ধরা পড়ে। মাঝখানে বের হয়ে বিয়েও করেছে লুদু। তার স্ত্রীর জন্যে খুব অনুভব করে লুদু। একটা ছেলে ছিল। সেও মারা গেছে। লুদুর চিন্তা কি করে বাঁচবে তার স্ত্রী। ‘জীবনের উপর একটা ধিক্কার এসেছে’ লুদুর। এইভাবে একেবারে সাধারণ এক অপরাধীর কষ্টের কথা সযত্নে তুলে এনেছেন বঙ্গবন্ধু তাঁর লেখায়।

এরপর নিয়মিত ডায়েরি। ২ জুন ১৯৬৬। বৃহস্পতিবার। প্রায় প্রতিদিনই তিনি লিখেছেন জেলের জীবন নিয়ে। প্রায় সব দিনের লেখাতেই রাজনৈতিক সহকর্মী ও কর্মীদের জন্যে তাঁর উত্কণ্ঠা, দরদ ও ভালোবাসা ফুটে উঠেছে। ৭ জুনের হরতালকে বানচাল করার জন্য তাদের যেভাবে গ্রেফতার করা হচ্ছে তাতে তিনি ভীষণ ক্ষুব্ধ। বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর মোনেম খানের বাড়াবাড়ি বিষয়ে তিনি বিস্তর লিখেছেন। আর লিখেছেন সুবিধাবাদী রাজনীতিকদের আপসকামিতার কথা। তবে ছয়-দফার প্রশ্নে তিনি যে আপসহীন সে কথা বলতে ভোলেননি। ‘এত জনপ্রিয় সরকার তাহলে গ্রেফতার শুরু করেছেন কেন!’— এমন বিস্ময় তাঁর মুখেই সাজে। কাকে কাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এই খবর জানার জন্যে তিনি উতলা ছিলেন। সত্যি কথা বলতে তিনি কখনো দ্বিধা করতেন না। মওলানা ভাসানীকে তিনি খুবই শ্রদ্ধা করতেন। কিন্তু ছয়-দফা নিয়ে তাঁর মন্তব্যে বঙ্গবন্ধু বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। তিনি তাই লিখেছেন: “মওলানা সাহেব পশ্চিম পাকিস্তানে যেয়ে এক কথা বলেন, আর পূর্ব বাংলায় এসে অন্য কথা বলেন। যে লোকের যে মতবাদ সেই লোকের কাছে সেইভাবেই কথা বলেন। আমার চেয়ে কেউ তাঁকে বেশি জানে না।” এ-কথা বলেই তিনি রাজনীতির মূলনীতি বিষয়ে মুখ খুলেছেন। “তবে রাজনীতি করতে হলে নীতি থাকতে হয়। সত্য কথা বলার সাহস থাকতে হয়। বুকে আর মুখে আলাদা না হওয়াই উচিত।” বুকে-মুখে এক কথা বলতেন বলেই পাকিস্তানী রাষ্ট্র তাঁকে এক দণ্ডের জন্যেও স্বস্তি দেয়নি। কারারক্ষীদের অনেকেই বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা করতেন। তাই তারা তাঁর খোঁজ নিতেন। প্রয়োজনীয় তথ্য দিতেন। ঐ সময়টায় যে প্রচুর ‘শেখ সাহেবের লোক’ জেলে ঢুকছে সে তথ্য তিনি এদের কাছ থেকেই পান। আর এ তথ্য পেয়ে তিনি অস্থির হয়ে যান।

‘আজ আর লেখাপড়ায় মন দিতে পারছি না। কি হবে বাইরে, কর্মীদের কি অবস্থা, অত্যাচার ও গ্রেপ্তার সমানে চলছে, আওয়ামী লীগ কর্মীদের উপর। দিনভরই ছটফট করতে লাগলাম, কাগজ কখন পাব?’ এই ছটফটানি তাঁর শেষ হবার নয়। তাঁর সহকর্মীদের ডিভিশন দেয়া হচ্ছে না, তার কর্মীদের ভালোভাবে খাবার দাবার দেয়া হচ্ছে না। তাই তাঁর উদ্বেগের কোনো শেষ নেই। যারা তাঁর কথা ভাবেন, তার জন্য দোয়া করেন তাদের সম্বন্ধে তিনি লিখেছেন:“দুঃখ হয়, এদের কোনো কাজেই বোধহয় আমি লাগব না। …. একথা সত্য, যখন আমি জেল অফিসে যাই তখন কয়েদিদের সঙ্গে দেখা হলে, জেল অফিসারদের সামনেই আমাকে সালাম দিতে থাকে। যারা দূরে থাকে তারাও এগিয়ে আসে। বুড়া বুড়া দু’একজন বলেই ফেলে, ‘বাবা আপনাকে আমরা দোয়া করি’।” জেলের রান্না ভাত খেতে কষ্ট হয়। তবু খেতে হয়। শুধু বাঁচার জন্যে। তা সত্ত্বেও তাঁর উদ্বেগ, “যারা এই দু’দিনে জেলে এসেছে, তাদের ডিভিশন দেয় নাই, কিভাবে কোথায় রেখেছে — জানার উপায় নেই।”

এরই মধ্যে ঝাড়ুদার এক কয়েদি নাছোড়বান্দা। “আমাকে আপনি ছেড়ে দিন, আপনি বললেই জেল থেকে বের করে দিবে।” তার এ কথার উত্তরে বঙ্গবন্ধু বল্লেন, “আমি তো তোমার মতো একজন কয়েদি, আমার ক্ষমতা থাকলেই আমিও বা জেলে আসব কেন?” সে বলে: “আপনি কলম মাইরা দিলেই কাজ হয়ে যায়।” বঙ্গবন্ধু বল্লেন, “কলম আছে, কিন্তু মাইরা দিবার ক্ষমতা নাই।” তাদের সকলের বিশ্বাস তিনি বল্লেই হবে। এই যে মানুষের প্রতি তাঁর ভালোবাসা এবং তাঁর প্রতি মানুষের বিশ্বাস তা তো একদিনে হয়নি। আজীবন তিনি যে তাদের পাশেই ছিলেন। সকল অর্থেই যে তিনি হতে পেরেছিলেন ‘তাদের লোক’। বাবুর্চির রান্না ভালো হয় না বলে নিজেই রান্না করতে নেমে যান। পাইলসের অসুখটা ফের দেখা দিয়েছে। জেলের খাবারে তার ঐ অসুখ আরো বেড়েছে। কিন্তু পরিবার, বিশেষ করে স্ত্রী রেনুকে জানানো যাবে না। তারা দুশ্চিন্তা করবেন।

ইত্তেফাক ও তার মালিক-সম্পাদক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াকে নিয়ে তাঁর চিন্তার শেষ নেই। ইত্তেফাক তাঁর এবং তাঁর দলের কথা বলতো। মানিক মিয়া বঙ্গবন্ধুর বড় ভাইয়ের মতো। তাই ইত্তেফাকের ওপর সরকারের চাপাচাপিতে তিনি খুবই বিক্ষুব্ধ। বন্ধু শহীদুল্লাহ্ কায়সারের ‘সংশপ্তক’ বইটি পড়ে তাঁর খুব ভালো লেগেছে। ঐ বই পড়তে পড়তেই লিখেছেন:“বেপরোয়া গ্রেফতারের পরেও ভেঙে পড়ে নাই দেখে ভালোই লাগছে। রাজনৈতিক কর্মীদের জেল খাটতে কষ্ট হয় না যদি বাইরে আন্দোলন থাকে।” রাজনীতি আর জীবন এভাবেই এক ‘অর্গানিক’ সম্বন্ধে বাধা পড়ে যায়। সন্ধেবেলা তাঁর ঘর বন্ধ করে দেয়। পরেরদিন পাশেই রাখা পাগলদের গোসল করানোর কথা লিখেছেন। পাগলদের সঙ্গে যে নিষ্ঠুর আচরণ করা হয় তাতে তিনি খুবই মর্মাহত। যদিও পাগলদের চিত্কারে প্রায়ই তিনি ঘুমুতে পারেন না, তবু তাদের জন্য রয়েছে তাঁর দরদী মন। সুযোগ পেলেই তাদের সঙ্গে কথা বলেন, তাদের জন্যে কিছু করতে চেষ্টা করেন। খাবার পাঠান।

৬ জুনে ডায়েরির পাতায় তিনি লিখেছেন:“আগামীকাল ধর্মঘট। পূর্ব বাংলার জনগণকে আমি জানি, হরতাল তারা করবে। রাজবন্দীদের মুক্তি তারা চাইবে। ছয়-দফা সমর্থন করবে।” মানুষের সমর্থন তাঁর প্রতি রয়েছে বলেই তিনি এই নিঃসঙ্গ জেলজীবন হাসিমুখেই বরণ করে নিয়েছিলেন। তিনি তাঁর মনের অবস্থা বোঝাতে এভাবে লিখেছেন: “আমি একা থাকি, আমার সঙ্গে কাউকে মিশতে দেওয়া হয় না। একাকী সময় কাটানো যে কত কষ্টকর তাহা যাহারা ভুক্তভোগী নন বুঝতে পারবেন না। আমার নিজের উপর বিশ্বাস আছে, সহ্য করার শক্তি খোদা আমাকে দিয়েছেন। ভাবি শুধু আমার সহকর্মীদের কথা। এক একজনকে আলাদা আলাদা জেলে নিয়ে কিভাবে রেখেছে? ত্যাগ বৃথা যাবে না, যায় নাই কোনোদিন। নিজে ভোগ নাও করতে পারি, দেখে নাও যেতে পারি, তবে ভবিষ্যত্ বংশধররা আজাদী ভোগ করতে পারবে। … জয়ী আমরা হবোই। ত্যাগের মাধ্যমে আদর্শের জয় হয়।” ভয়কে জয় করার জন্যেই কবিগুরুর কাছে ফিরে যেতেন। গুনগুনিয়ে উঠতেন- “বিপদে মোরে রক্ষা করো / এ নহে মোর প্রার্থনা, / বিপদে আমি না যেন করি ভয়।”

এর পরেরদিন ৭ জুন। হরতালের দিন। বাইরে কি হচ্ছে কে জানে। সর্বক্ষণ ছটফট করছেন তিনি। লিখেছেন: “বন্দি আমি, জনগণের মঙ্গল কামনা ছাড়া আর কি করতে পারি! … গুলি ও মৃত্যুর খবর পেয়ে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেছে। শুধু পাইপই টানছি। … কি হবে? কি হতেছে? দেশকে এরা কোথায় নিয়ে যাবে, নানা ভাবনায় মনটা আমার অস্থির হয়ে রয়েছে। এমনিভাবে দিন শেষ হয়ে এলো। মাঝে মাঝে মনে হয় আমরা জেলে আছি। তবুও কর্মীরা, ছাত্ররা ও শ্রমিকরা যে আন্দোলন চালাইয়া যাইতেছে, তাদের জন্য ভালোবাসা দেওয়া ছাড়া আমার দেবার কিছুই নাই। মনে শক্তি ফিরে এলো এবং দিব্য চোখে দেখতে পেলাম ‘জয় আমাদের অবধারিত।’ কোনো শক্তি আর দমাতে পারবে না।” রাতে আর ঘুম আসে না। শুধুই চিন্তা। এর পরেরদিন (৮ জুন) ডায়েরির পাতা জুড়ে রয়েছে গ্রেপ্তার করা কর্মীদের বিবরণ। “কারো পায়ে জখম, কারো কপাল কেটে গিয়েছে, কারো হাত ভাঙা, এদের চিকিত্সা বা ওষুধ দেওয়ার কোনো দরকার মনে করে নাই কর্তৃপক্ষ।” দিনভরই জেল ভর্তি করা হচ্ছিল। কিছু স্কুলের ছাত্রও তাদের মধ্যে ছিল। কেউ কেউ এদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছিল। তাই বাধ্য হয়ে তিনি জেল কর্তৃপক্ষকে জানালেন: “অত্যাচার বন্ধ করুন। তা না হলে ভীষণ গোলমাল হতে পারে।” ঐদিন বিরাট করে ডায়েরি লিখেছেন তিনি। ছয়-দফা যে বৃথা যাবে না সে কথা জোর দিয়ে বলেছেন। “যে রক্ত আজ আমার দেশের ভাইদের বুক থেকে বেরিয়ে ঢাকার পিচঢালা কালো রাস্তা লাল করল, সে রক্ত বৃথা যেতে পারে না।” সারাদিন তিনি পাগলের মতো ঘরে বাইরে হাটছিলেন। ছোট ছোট বাচ্চাদের ধরে এনেছে। জানালা দিয়ে চিত্কার করে তিনি বলছিলেন—“জমাদার সাহেব এদের খাবার বন্দোবস্ত করে দিবেন। বোধহয় দুইদিন না খাওয়া।” এর পরের পাতাগুলোও এমন মানবিক আবেদন ও ছটফটানিতে ভর্তি। মানুষকে কতোটা ভালোবাসলে কারাবন্দি এক নেতা দেশবাসীর জন্যে এমন করে দুঃখ পেতে পারেন তা পাঠকই বিবেচনা করবেন। এই স্বল্প পরিসরে তাঁর মানবিকতার বিবরণ সম্পূর্ণভাবে ফুটিয়ে তোলা আমার পক্ষে সত্যি অসাধ্য।

এরপর রয়েছে মায়ের অসুখের কথা। তাঁর জন্যে গভীর কষ্টের কথা। জেলে জেলে ঘুরছেন। মাকে দেখতে পারছেন না। মা-বাবার ছোট্ট ‘খোকা’র সে যে কী আকুতি তা পড়ে চোখ ভিজে আসে। এসব কথা সম্পাদনার সঙ্গে যুক্ত তাঁর কন্যাদেরও চোখের পানি ছল ছল করে বয়ে গেছে। টাইপ করেছে যে মেয়েটি তার চোখের জলে ভিজে গেছে কম্পিউটারের কিবোর্ড। একদিকে মায়ের অসুখ, অন্যদিকে অনেক কর্মী জেলে, অনেকেই আহত, নিহত। তিনি অস্থির। ট্রেন দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যু, সিলেটের বন্যায় মানুষের কষ্ট—সবই তাঁকে উতলা করে তোলে। তাঁর কিছুই ভালো লাগে না। তবুও অর্থমন্ত্রী শোয়েবের বাজেট বিবরণ ঠিকই তুলে ধরেছেন। ঐ বাজেটে যে বাঙালির হিস্যা খুবই সামান্য সে কথা অঙ্ক কষে বের করেছেন জেলে বসে। কর ধার্য বেশি করায় জনগণের কি কষ্ট হবে সে কথা ভেবেই তিনি উদ্বিগ্ন। পাশাপাশি, পূর্ব-পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী এম এন হুদার বাজেট নিয়েও তাঁর মন্তব্য রয়েছে। বিশেষ করে, ছয়-দফার বিরুদ্ধে বলায় তাঁকে এক চোট নিয়েছেন বঙ্গবন্ধু। এরপর পরিবারের কথা লিখেছেন। ছেলে-মেয়েরা ও স্ত্রী তাকে দেখতে আসেন। বড় দুটো ছেলে-মেয়ে বুঝলেও ছোট দুটো তো বোঝে না। তারা বাবাকে ছেড়ে ফিরতে চায় না। তাই বাচ্চাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তাঁর মন খারাপ হয়ে যায়। বাবা-মা’র দেখা পান না বলে তাঁর মন আরো ভারাক্রান্ত।

ইত্তেফাকের সম্পাদক মানিক ভাইয়ের গ্রেপ্তারে তিনি (বঙ্গবন্ধু) দারুণ উদ্বিগ্ন। তিনি সত্য কথা বলেন বলে তাঁকে জেলে নিয়ে আসা হয়েছে। তিনি কিভাবে জেলের এই জুলুম সহ্য করবেন সেই চিন্তাতেই তাঁর ঘুম আসে না। কয়েকদিন ধরে ইত্তেফাক ও মানিক মিয়াকে নিয়ে কত কথাই না তিনি তাঁর ডায়েরিতে লিখেছেন। ‘সংবাদ’-এর কথাও বার কয়েক এসেছে। এসেছে ন্যাপের কারাবন্দি নেতাদের সঙ্গে জেলে দেখা হবার কথা। ভিন্ন দলের হলেও তাদের জন্য তাঁর দরদ কম নয়। যেসব কর্মী জেলে থেকে পরীক্ষা দিচ্ছিল তাদের জন্যেও তাঁর উত্কণ্ঠার শেষ নেই। এছাড়া জেলে বন্দিরা তাঁকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান, তাদের তিনি খিচুড়ি রান্না করে খাওয়ান, মেটসহ কয়েদিদের ভালো-মন্দ খাবারের ভাগ দেন, পাশের গাছে দুটো হলুদ পাখি, বারান্দায় কবুতরের বাচ্চাটির বেড়ে ওঠা, একটি মুরগির মৃত্যু-যন্ত্রণা — সবকিছুই তাঁর দৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। শুধু গুরুত্বপূর্ণ ছিল না তাঁর নিজের জীবন। এই ডায়েরির পাতায় পাতায় জায়গা পেয়েছে রাজনৈতিক সহকর্মী, কর্মী এবং সাধারণ কয়েদিদের কথা। আর জায়গা পেয়েছে স্বদেশের মুক্তিচিন্তা। এর মাঝেই আচমকা তাঁকে আসামি করা হয় আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায়। নিয়ে যাওয়া হওয়া কুর্মিটোলায়। সামরিক আদালতে বিচার শুরু হবে। সর্বক্ষণ পাহারা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ নেই। নিঃসঙ্গ। টান টান উত্তেজনা। সারা পূর্ব বাংলায় চলছে আন্দোলন। এক পর্যায়ে ১৯৬৯ সালে ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে ছাত্র-জনতার অভ্যুত্থানে মুক্তি পান শেখ মুজিব। তাদের ভালোবাসায় হয়ে ওঠেন বঙ্গবন্ধু। মানুষের প্রতি তাঁর বিশ্বাস ও ভালোবাসার কোনো কমতি ছিল না বলেই এমন প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পেরেছেন বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের দিকে। ডাক দিতে পেরেছিলেন মুক্তিযুদ্ধের। তিনিই প্রকৃত বীর যিনি মৃত্যুকে ভয় পান না। বারে বারে তিনি মৃত্যুকে উপেক্ষা করে বীরের বেশে জেল থেকে বের হয়ে এসেছেন।

মাটি ও মানুষের প্রতি নির্ভেজাল ভালোবাসার দলিল এই রোজনামচা। তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার তত্ত্বাবধায়নে শেষ পর্যন্ত যে বইটি বাংলা একাডেমি প্রকাশ করেছে তার ঐতিহাসিক মূল্য অপরিসীম। যুগে যুগে তাঁর এই ত্যাগের কথা, মানুষের প্রতি ভালোবাসার কথা আমাদের দেশে এবং সারাবিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের অনুপ্রেরণার উত্স হয়ে থাকবে। বইটির সম্পাদনায় প্রচুর মুন্সিয়ানার পরিচয় মেলে। সংযোজনীতে ছয়-দফা, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের সংক্ষিপ্ত বিবরণ, টীকা, নির্ঘণ্ট বইটির সম্পাদনায় পেশাদারিত্ব ও আধুনিকতা স্পষ্টতই ফুটে উঠেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই বইয়ের মোড়ক উন্মোচনের দিন বলেছেন যে, এই বইয়ের পাতায় পাতায় সাধারণ মানুষের দুঃখ ও গ্লানি ঘোচানোর যে আকুতি রয়েছে তার আলোকেই তিনি স্বদেশের উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। গরিব, দুঃখী মানুষের মঙ্গল চিন্তাই হবে তাঁর সকল নীতির মূল কথা। সেটাই স্বাভাবিক। মানুষকে যে বঙ্গবন্ধু কতোটা ভালোবাসতেন তা এই বই পড়ে যেমন বোঝা যায়, তেমনি তাঁর ভাষণগুলো পড়লেও অনুভব করা যায়। আমি অন্যত্র তাঁর জীবন ও ভাষণগুলো নিয়ে গবেষণা করেছি। সেই বইতে (আতিউর রহমান: শেখ মুজিব বাংলাদেশের আরেক নাম) বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত সহকারী শাহরিয়ার ইকবালের সৌজন্যে অন্য আরেকটি ডায়েরির ইংরেজিতে লেখা একটি পাতা থেকে কয়েকটি লাইন উদ্ধৃত করার লোভ সম্বরণ করতে পারছি না। “As a man, what conces mankind conces me. As a Bengalee, I am deeply involved in all that conces Bengalees. This abiding involvement is bo of and nourished by love, enduring love, which gives meaning to my politics and to my very being.”

রাজনীতির এই অমর কবি অক্ষরে অক্ষরে তাঁর কথা রেখেছেন। মানুষকে চিরদিনের ভালোবাসার বন্ধনে বেঁধে ঘুমিয়ে আছেন তিনি বাংলাদেশের ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল জুড়ে।

লেখক: উন্নয়ন অর্থনীতিবিদ, গবেষক ও অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাবেক গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here