মাত্র ১০ মিনিটের জন্য

0
213
মাত্র ১০ মিনিটের জন্য বাঁচিয়া গেল ২৫ শিশু শিক্ষার্থী। ঘটনাটি ঘটিয়াছে গত বুধবার। ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া উপজেলার এনায়েতপুর পশ্চিমপাড়া ফুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের বিম স্কুল ছুটি হইবার মাত্র ১০ মিনিটের মাথায় ধসিয়া পড়ে। অল্পের জন্য ২৫ শিশু শিক্ষার্থী যেন নূতন জীবন পাইল! জানা যায়, ফুলবাড়ীয়ার ওই প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের বিমে ফাটল ধরিয়াছিল অনেক আগেই। খসিয়া পড়িতেছিল পলেস্তারাও। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মারাত্মক ঝুঁকির বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে লিখিতভাবে জানাইয়াছিলেন। অতঃপর গত বুধবার যেন শিশু শিক্ষার্থীদের কানের পাশ ঘেঁষিয়া ছুটিয়া গেল বিষাক্ত তীর। ওই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একমাত্র ভবনটি নির্মিত হয় ১৯৯৩ সালে। মাত্র ২৪ বত্সরের ভিতরেই বিদ্যালয় ভবনের স্থানে স্থানে দেখা দেয় ফাটল। চুয়াইয়া পানি পড়া কিংবা পলেস্তারা খসিয়া পড়া ছিল নিত্যদিনের ঘটনা।
ফুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হইল হাঁড়ির মধ্যে অসংখ্য ফুটন্ত চাউলের একটি, যাহার দৈন্যচিত্র প্রকাশ করিয়া দেয় হাঁড়ির অন্যসব চাউলের অবস্থাও। আট মাস পূর্বে ইত্তেফাকে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, সারা দেশে অবকাঠামোগত সংকটে রহিয়াছে ২০ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়। এইসব বিদ্যালয় ভবনের কোনোটির বিমগুলিতে অসংখ্য ফাটল, কোনোটির দেওয়ালের পলেস্তারা খসিয়া পড়িতেছে কিংবা মরিচাধরা রড কঙ্কালের মতো বাহির হইয়া আসিয়াছে। পিলারসমূহের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক, কোনো কোনো কক্ষে দরজা-জানালা পর্যন্ত নাই, বাঁশে ঠেকা দেওয়া ছাদ। জানা যায়, জরাজীর্ণ ২০ হাজার স্কুলের অবকাঠামোগত সমস্যা সমাধানে গলদঘর্ম অধিদফতর। সংস্কারের গতি ধীর হইবার কারণে প্রত্যন্ত গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃত এইসব স্কুলের নানা সংকট যেন স্থায়ী রূপ নিয়াছে। আবার ইহাও জানা গিয়াছে যে, মাঠ পর্যায়ের এমন চিত্র এবং শিক্ষা কর্মকর্তাদের বক্তব্যের সহিত পুরাপুরি একমত নহেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের কোনো কোনো কর্মকর্তা। তাহাদের মতে, মাঠ পর্যায়ের এই চিত্র পুরাপুরি সত্য নহে। আর্থিক সুবিধা লাভের জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধান ও শিক্ষা অফিসাররা অনেক সময় মনগড়া তথ্য দিয়া থাকেন।
বাস্তবতা হইল, কোনো কোনো ক্ষেত্রে আর্থিক সুবিধা লাভের জন্য প্রতিষ্ঠানপ্রধান ও শিক্ষা অফিসাররা মনগড়া তথ্য যদি প্রদান করিয়াও থাকেন, তাহা হইলে সারা দেশে অসংখ্য বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গাছতলায় বসিয়া ক্লাস করিতে হইত না, ঘটিত না ফুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো ভয়াবহ ঘটনা। অধিদফতর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করিবে, ভালো কথা, কিন্তু ভবন ধসিয়া যাইবার মতো ভয়াবহ ঘটনা ঘটিবার সুযোগ কি তাহারাই করিয়া দিতেছেন না? এইখানে অগ্রাধিকারের লালফিতা শিক্ষার্থীদের গলায় ফাঁসে পরিণত হইবে কেন? স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও কেন কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেন না? কোনো না কোনো বরাদ্দের মাধ্যমে এই সকল নাজুক বিদ্যালয়ের সংস্কারের ব্যবস্থা তো তাহাদের পক্ষে অসম্ভব নহে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় অবশ্য সমপ্রতি সুবার্তা দিয়াছে যে, কোনো শিক্ষার্থীকে আর গাছতলায় ক্লাস করিতে হইবে না। আগামী দেড় বত্সরের মধ্যে সকল জরাজীর্ণ বিদ্যালয় ভবন সংস্কার করিবার লক্ষ্য নির্ধারণ করিয়াছে সরকার। আশা করা যায়, এইসকল সংস্কার টেকসই হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here