মাদকাসক্ত নিরাময়ে এসে লাশ হলেন যুবক

0
85

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করার ২৬ দিন পরে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন চুয়াডাঙ্গার যুবক মাহফুজুর রহমান (২২)। গত ২৬ এপ্রিল তাকে যশোর শহরের চারখাম্বার মোড়ের মাদকাসক্তি নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করে পরিবার। মৃত মাহফুজুর রহমান চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের মনিরুজ্জামানের ছেলে। শনিবার মারা যাওয়ার পরে নিরাময় কেন্দ্রের লোকজন তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যায়।
রবিবার দুপুরে এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলায় ১৪ জনের নাম উল্লেখসহ আরও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় ১৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। অভিযোগ, শনিবার দুপুরে কেন্দ্রের ভেতরে মারপিটসহ নানারকম নির্যাতনের ফলে মারা যান মাহফুজুর রহমান। ঐ প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের বিরুদ্ধে এই হত্যার অভিযোগ উঠেছে।
যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই শংকর কুমার বিশ্বাস জানান, শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে কে বা কারা মৃত মাহফুজুর রহমানের লাশটি যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে চলে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ লাশটি দেখে বিভিন্নস্থানে বার্তা পাঠায়। এরই মধ্যে পরিবারের লোকেরা হাসপাতালে আসে। মৃত মাহফুজুর রহমানের হাতে একটি কামড়ের দাগ আছে।
নিহতের ফুফু রাবেয়া বেগম সাংবাদিকদের জানান, মাহফুজুর রহমান নেশাগ্রস্ত হওয়ায় তাকে পরিবারের পক্ষ থেকে গত ২৬ এপ্রিল যশোরের চারখাম্বা মোড়ের মাদকাসক্তি নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। শনিবার দুপুরের দিকে মাহফুজুর রহমান মারা যায়। তবে নিরাময় কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ ঝামেলা এড়াতে মাহফুজুর রহমানের লাশ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যায়।
যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি তাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনা জানার পরে রাতে প্রতিষ্ঠানটির সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জানা যায়, মাহফুজকে মারপিট করে হত্যা করা হয়েছে। মারপিটের কারণে সে মলত্যাগ করে ফেলে। তখন মাহফুজকে দিয়েই ওই মল পরিষ্কার করানো হয়।
তিনি বলেন, পুলিশের পৃথক কয়েকটি টিম সারারাত অভিযান চালিয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক পূর্ববারান্দীপাড়ার বাসিন্দা আবুল কাসেমের ছেলে মাসুম করিম ও অপর পরিচালক বারান্দীপাড়া বটতলা এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে আশরাফুল কবির, রেজাউল করিম, ওহেদুজ্জামান, ওহিদুল ইসলাম, আল শাহরিয়া, শাহিন, ইসমাইল হোসেন, শরিফুল ইসলাম, এএসএম সাগর আলী, অহেদুজ্জামান সাগর, নুর ইসলাম, হৃদয় ওরফে ফরহাদ ও আরিফুজ্জামানকে আটক করা হয়েছে।