মাদক সেবনের অভিযোগে যশোরে এক পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা

0
241

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: মাদক সেবন করে পয়সা না দিয়ে উল্টো মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করায় জনরোষে পড়ে পুলিশ কনস্টেবল সিরাজুল ইসলাম ধরাশায়ী। ঘটনাটি শনিবার বিকেলে যশোর ঝিনাইদহ সড়কের সাতমাইল বাজারস্থ হৈবতপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে। পুলিশ কনস্টেবল সিরাজুল ইসলামকে সাময়িক সাসপেন্ড করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। সিরাজুল ইসলাম সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার বাঁকড়া গ্রামের হাজী মো: আব্দুল গফফারের ছোট ছেলে।

রোববার সকালে কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদা সাংবাদিকদের জানান,শনিবার বিকেল ৫ টা ৫ মিনিটে যশোর পুলিশ লাইনে কর্মরত এসএএফ’র ফোর্স কনস্টবল নং ১৩৩৭ সিরাজুল ইসলাম সাতমাইল বারীনগর বাজার সংলগ্ন মাদক ব্যবসায়ী ওই এলাকার তুহিনের ছেলে পিকুলের মাদকের আখড়ায় যান। সেখানে সে মদ সেবন করে টাকা না দিয়ে চলে আসার সময় পিকুল টাকা চাইলে উল্টো ধমক দিয়ে তাকে পুলিশ পরিচয় গ্রেফতারের চেষ্টা করে। পিকুল চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে এসএএফ’র ফোর্স পুলিশ কনস্টেলবর সিরাজুল ইসলামকে মারপিট শুরু করে।

সিরাজুল ইসলাম নিজেকে পুলিশ পরিচয় দিলে স্থানীয় লোকজন তাকে ধরে রেখে থানায় খবর দেয়। থানা থেকে এসআই মোকলেছুজ্জামান ও এএসআই আবুল কালাম আজাদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তারা বিষয়টি শুনে জনগনের রোষানলে পড়া পুলিশ কনস্টেবল সিরাজুল ইসলামকে তাদের হেফাজতে নেন। পরে সিরাজুল ইসলামকে পুলিশ লাইনে নিয়ে আসা হয়। সেখানে পুলিশ সুপারকে বিষয়টি জানানো হলে পুলিশ সুপার সিরাজুল ইসলাম মাদক সেবন করেছে কিনা তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ওয়াশ দেওয়ার নির্দেশ দেন। জেলা গোয়েন্দা শাখার এএসআই আলমগীর হোসেন ও কনস্টেবল শরিফুল ইসলাম সিরাজুল ইসলামকে হাসপাতালে নিয়ে ওয়াশ দেন।

চিকিৎসক কনস্টেবল সিরাজুল ইসলামের পাকস্থলিতে এ্যালকোহল পান এমন প্রতিবেদন দেন। লাইসেন্স ব্যতীত মদ সেবন করার অভিযোগে কনস্টেবল সিরাজুল ইসলাম ও বিক্রির অভিযোগে পলাতক পিকুলের বিরুদ্ধে কোতয়ালি মডেল থানার এসআই মোকলেছুজ্জামান বাদি হয়ে মাদক আইনের ২২(গ) ধারায় রোববার দুপুরে মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক আবুল বাশার মিয়া পুলিশ কনস্টেবল সিরাজুল ইসলামকে আদালতে সোপর্দ করেন।

একেএম আজমল হুদা আরো জানান,কোন পুলিশ সদস্য মাদক সেবনের সাথে জড়িত থাকলে তার পরিস্থিতি এসএএফ ফোর্স সিরাজুল ইসলামের পরিনতি হবে। এক্ষেত্রে পুলিশ সুপার কঠোর অবস্থানে রয়েছেন। পুলিশ আইনের উর্দ্ধে নয়। সাধারণ মানুষ যে অপরাধে কারাগারে যেতে হচ্ছে পুলিশ সদস্যদের ক্ষেত্রেও তার কোন ব্যতিক্রম হবেনা বলে তিনি জানান। কনস্টেবল সিরাজুল জানান,বিগত ২০০৫ সালে তিনি পুলিশ কনস্টেবলে যোগদান করেন। তিনি যশোরে বছর কয়েক পূর্বে তিন মাস জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)তে কর্মরত ছিলেন।

গত শনিবার বিকেলে কোতয়ালি থানার এএসআই আবুল কালাম আজাদের কথা মতো সাত মাইল বাজার সংলগ্ন মাদক বিক্রেতা পিকুলের আখড়ায় যান। সেখানে পিকুলের কাছ থেকে ইয়াবা কেনার দোহায় দিয়ে বেশ পরিমান ইয়াবাসহ পিকুলকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতার করার পর তিনি জনরোষে পড়েন।তখন আর এএসআই আবুল কালাম আজাদ তাকে রক্ষা করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here