মাধ্যমিকে পূর্বের রোলই থাকবে নতুন ক্লাসে

0
174

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাধ্যমিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় নির্ধারিত অ্যাসাইনমেন্ট শিক্ষার্থীদের নতুন ক্লাসে উত্তীণে কোনো প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবে না। অ্যাসাইনমেন্টের মূল্যায়ন হবে ‘ভেরি গুড, ভেরি নাইস’ টাইপের। পূর্বের রোল নম্বরই বহাল থাকবে পরের ক্লাসে। এমনটি জানিয়েছেন যশোর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক।

জেলা শিক্ষা অফিস জানায়, করোনা ভাইরাসের কারনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা না নিয়ে অটো ক্লাসের উঠিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়। তবে পূর্বের ক্লাসের মৌলিক অর্জন যাচাইয়ের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে। বিষয়টি নতুন হলেও শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ ধারনা দিতে মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়েছে। বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় গাইডলাইন দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় থেকে অথবা অনলাইন থেকে অ্যাসাইনমেন্টের বিষয় নিয়ে বাড়িতে লিখবে। সেটা বিদ্যালয়ে জমা দেবে। সেটা দেখে শিক্ষার্থীদের দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করবে ও পরের ক্লাসে এ সব দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠানোর চেষ্টা করবে। তবে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ দিতে গুড, ভেরিগুড, নাইচ ইত্যাদি মন্তব্য করবেন। ভুল হলে সেটা সংশোধনের জন্য আবার শিক্ষার্থীর কাছে দেয়া হবে। প্রতি সপ্তাহে তিন করে মাসে ১২টি অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। এটার সাথে ক্লাসে উঠার কোনো সম্পর্ক নেই।

জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম গোলাম আযম জানান, শিক্ষার্থীদের মৌলিক অভিজ্ঞতা যাচাইয়ের জন্য বিদ্যালয় থেকে অথবা অনলাইন থেকে অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে বাড়িতে লিখবে। সেই লেখায় গুড, ভেরি নাইচ কমেন্ট করে তাদের উৎসাহ দেয়া হবে।

নিউটাউন বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুরাইয়া শিরিন একই তথ্য জানান। তিনি বলেন মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে বিস্তারিত নির্দেশনা দেয়া আছে।

জেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল খালেক জানান শিক্ষার্থীদের অটো ক্লাসে উঠিয়ে দেয়া হবে। এতে করে শিক্ষার্থীদরে রোল নম্বর থাকবে একই। অর্থাৎ যে রোল নম্বর পূর্বের ক্লাসে ছিল। এর সাথে অ্যাসাইনমেন্টের কোনো সম্পর্ক নেই। অ্যাসাইনমেন্ট নেয়া হবে শুধু শিক্ষার্থীদের মৌলিক জ্ঞান যাচাইয়ের জন্য। ১ নভেম্বর থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বিদ্যালয় থেকে অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া শুরু করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আগামী মাসে এটা লিখে বিদ্যালয়ে যেয়ে অথবা অনলাইনের মাধ্যমে জমা দিতে পারবে। যারা বিদ্যালয়ে জমা দিতে পারবে না তারা শিক্ষা অফিস এমনকি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ইমেইল করবে পারবে।