মানবতা যেখানে উপেক্ষিত

0
276

ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী : মানুষের জীবনের মূল লক্ষ্য হচ্ছে তাকে সৃজনশীল ও মননশীল ব্যক্তিত্ব হিসেবে গড়ে তোলা। আর এই ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠে মানুষের সর্বজনীন মানসিকতা ও উদার দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে। রক্ষণশীল দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বেরিয়ে আসতে হলে প্রথাগত শিক্ষার সঙ্গে স্বশিক্ষা, নিজের সংস্কৃতির চর্চা ও বাংলাদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্বন্ধে সম্যক ধারণা থাকা দরকার। আজকের এই সময়ে রক্ষণশীলতার কোনো জায়গা নেই। কারণ রক্ষণশীলতা মানুষের মধ্যে এক ধরনের পশ্চাৎমুখিতা ও প্রতিক্রিয়াশীল মানসিকতা তৈরি করে। মনস্তাত্তি্বক বিশ্লেষণে দেখা যায়, মানুষ যখন প্রগতিশীল চিন্তাধারা থেকে বিচ্যুত হয়ে প্রতিক্রিয়াশীল ধারণাকে তার মধ্যে লালন করে, তখন তার চিন্তাধারার স্বকীয়তা হারিয়ে যায়। যখন মানুষের মধ্যে নিজস্বতা বলে কিছু থাকে না, তখন তার দৃষ্টিভঙ্গি বিকশিত হতে পারে না। ফলে অন্যের দ্বারা তার প্রভাবিত হওয়ার আশঙ্ক অনেক বেশি। আর এ রকম একটি অবস্থায় তার মধ্যে জঙ্গিবাদ দানা বাঁধতে পারে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

এ বছর ২৬ মার্চ জাতি যখন স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন করছে, এমন একটি সময়ে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ির জঙ্গি আস্তানা আতিয়া মহলের পার্শ্বর্বর্তী এলাকায় জঙ্গিবাদের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়। কুমিল্লা, মৌলভীবাজার, ঢাকায় আত্মঘাতী জঙ্গিদের তৎপরতা এই মার্চ মাসেই ঘটেছে, যা দুঃখজনক। বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রধান একটি অঙ্গীকার ছিল শিক্ষা ও সংস্কৃতির চর্চা করা। এই সংস্কৃতির চর্চার ওপরেও জঙ্গিবাদীদের মাধ্যমে আক্রমণ ঘটেছে। ১৯৯৯ সালের ৬ মার্চ উদীচীর অনুষ্ঠান ও ২০০১ সালে রমনার বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার ঘটনা প্রকৃতপক্ষে বাঙালি সংস্কৃতির ওপর জঙ্গিবাদীদের আক্রমণ। এই ঘটনাগুলো প্রমাণ করে- পরাজিত শক্তিরা এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করে এবং তাদের দোসরদের মাধ্যমেই এসব ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের নারীরা যখন বিভিন্ন ক্ষেত্রে এগিয়ে চলেছে, এমনই এক সময়ে নারীদের মাধ্যমে আত্মঘাতী হামলা চালানোর নীল নকশা আঁকা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কৌশলগত অবস্থান গ্রহণ করেছে জঙ্গিবাদীরা। বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করে সেখানকার লোকজনের সঙ্গে তারা প্রথমে আত্মীয়তার সম্পর্ক গড়ে তুলছে। এর পর অনেকটা বাধ্য করেই তারা নারীদের আত্মঘাতী জঙ্গি হতে অনুপ্রাণিত করছে। আর মাতৃত্বের যে সর্বজনীন বিষয়টি রয়েছে, তাকে অনেকটা গৌণ করে দেখানোর অপচেষ্টা করা হচ্ছে। ফলে একজন জঙ্গি মা তার আদরের সন্তানকে জঙ্গিবাদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। স্বাধীনতার অঙ্গীকার হিসেবে নারী জাতিকে অগ্রসরমান বিশ্বের সঙ্গে এগিয়ে নেওয়ার যখন প্রচেষ্টা চলছে, তখন নারীদের জঙ্গিরা কৌশলে ব্যবহার করে তাদের মধ্যে এক ধরনের পশ্চাৎমুখিতা ও রক্ষণশীলতা তৈরির কাজটি করে যাচ্ছে। কারণ জঙ্গিবাদীদের কাছে সম্পর্কের কোনো মূল্য নেই। এখন প্রশ্ন হচ্ছে- কীভাবে এই জঙ্গিবাদকে রোধ করা যায়? এটি রোধ করার সামাজিক ও মনস্তাত্তি্বক বিশ্লেষণ যেমন প্রয়োজন, তেমনি এই জঙ্গিবাদকে প্রতিরোধ করার কৌশলগত বিষয়টিও গুরুত্ব সহকারে ভাবতে হবে। সাম্প্রতিককালে দেখা যাচ্ছে, প্রচুর বিস্টেম্ফারকসহ জঙ্গিবাদীরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় আস্তানা গড়ে তুলেছে। কীভাবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ এড়িয়ে এই বিপুল বিস্টেম্ফারক ও আগ্নেয়াস্ত্র মজুদ করা হচ্ছে, তা নতুন করে ভেবে দেখা দরকার। নজরদারির ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অবহেলা রয়েছে কি-না অথবা তাদের সংখ্যা পর্যাপ্ত কি-না এ বিষয়টি ভাবতে হবে। আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে রাস্তায় চলাচলকারী সন্দেহভাজনদের যাতে শনাক্ত করা যায় তার ব্যবস্থা করতে হবে।

কোন কোন এলাকায় জঙ্গিবাদীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে তা চিহ্নিত করে নির্মূলের ব্যবস্থা নিতে হবে। কেন হঠাৎ একজন তরুণ অথবা চাকরিজীবীর মনোভাবের পরিবর্তন ঘটছে তা দৃষ্টিগোচরে আনা প্রয়োজন। প্রতিটি এলাকার জনপ্রতিনিধি হিসেবে যারা আছেন সেই এলাকার বিভিন্ন পরিবারের সদস্যদের প্রতি মাসে বিভিন্ন কার্যক্রমের তথ্য প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা দরকার। বিভিন্ন মসজিদে যে ইমামরা রয়েছেন তাদের জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ সম্পর্কে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে। ধর্ম যে জঙ্গিবাদের সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত নয়_ তার ধর্মীয় ব্যাখ্যা প্রদানের মতো যোগ্যতাসম্পন্ন করে ইমামদের গড়ে তুলতে হবে। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিবিড় পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। তবে সবার আগে প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা ও মনোভাবের পরিবর্তন। কেননা, জঙ্গিদের কোনো ধর্ম নেই, দেশ নেই, কাল নেই, পাত্র নেই। জঙ্গিবাদই এদের ধর্ম। এদের প্রতিরোধ করতে আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও আন্তরিকতা প্রয়োজন।

অধ্যাপক, ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গাজীপুর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here