মানুষ ও পাহাড় দুই-ই বাঁচান

0
197

পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পাঁচ জেলায় এখন স্বজনহারা মানুষের আহাজারি থামছে না। লক্ষাধিক পরিবার আশ্রয়হীন। কিছু পরিবার অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে উঠেছে। অনেক পরিবার রয়েছে ধ্বংসস্তূপের ওপর বা আশপাশে। অনেক নর-নারী-শিশুর অবস্থান খোলা আকাশের নিচে। সরকারের বাড়িঘর পাহাড়ের মাঝে লীন হয়ে গেছে। বোঝার উপায় নেই- এখানে বাড়িঘর, গাছপালা ছিল; মানুষের পদচারণা ছিল।
দুর্ভাগ্যজনক যে, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার অসংখ্য নারী-পুরুষ-শিশু অনাহারে-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। তাদের কাছে সরকারি কোনো ত্রাণ পেঁৗছাচ্ছে না। বলা হচ্ছে, এ জন্য রাঙামাটির সঙ্গে এখনও চট্টগ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। এ যুক্তি কতটুকু গ্রহণযোগ্য? রাঙামাটির সরকারি গুদাম থেকে এ চাহিদা পূরণে বাধা কোথায়? প্রয়োজনে হেলিকপ্টারেও খাবার পেঁৗছানো সম্ভব। আর ত্রাণ না পাওয়ার অভিযোগ কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষেরও।
এ ব্যাপারে কোনো গাফিলতি কাম্য নয়। আর কাল বিলম্ব নয়। জরুরি ভিত্তিতে ঋণ সরবরাহ করতে হবে। সেই সঙ্গে পুনর্বাসনের বিষয়টিও এখনই ভাবতে হবে। নিহত ও আহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিতে হবে, যাতে ক্ষতিগ্রস্তদের স্বাভাবিক জীবন বিঘি্নত না হয়। বাবা বা মায়ের অবর্তমানে কোনো শিশুর পড়াশোনা যেন বন্ধ না হয়। সন্তানের অবর্তমানে কোনো মা-বাবা যেন অনাহারে না থাকেন। তাদের বাড়িঘর নির্মাণে সর্বাত্মক সহায়তা দিতে হবে। এবং যাদের বাড়িঘর এখনও ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে আছে তা স্থানান্তরের ব্যবস্থা করতে হবে। পুনর্বাসন মানে যত্রতত্র বাড়িঘর গড়তে দেওয়া নয়। পুনর্বাসনের ক্ষেত্রেও পাহাড়ের পরিবেশ বিবেচনায় রাখতে হবে।
উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে আরেক ভয়াবহ ভূমিধসের পর বেশকিছু সুপারিশ করা হয়েছিল, যা আজ পর্যন্ত বিবেচনায় নেওয়া হয়নি। বন্ধ হয়নি পাহাড় কাটা, বালি ও পাথর উত্তোলন এবং বৃক্ষ নিধন। অব্যাহত রয়েছে অবৈধ বসতি স্থাপন ও নগরায়ন। এমনকি পাহাড়ের ওপর ইটভাটাও করা হচ্ছে। পাহাড় দখল করে বাগান, পর্যটন শিল্প, হোটেল-রেস্তোরাঁও নির্মিত হচ্ছে। আমাদের মনে রাখতে হবে, এই দুর্যোগে মানুষ ও পাহাড় দুই-ই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই পুনর্বাসন নীতি হতে হবে একই সঙ্গে মানুষ ও পাহাড় উভয়ের ক্ষতেরই নিরাময় করা।
আমরা জানি, ক্ষতিগ্রস্ত অনেকের বাগান, কৃষিকাজ, দোকান ছিল। এসবকিছু ধ্বংস হয়ে গেছে। এসব শুরু করার জন্য তাদের আর্থিক সহায়তা, ঋণ মওকুফ, নতুন ঋণ প্রদানের আহ্বান জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here