মালয়েশিয়ায় পাহাড় ধসে নিহত ঝিকরগাছার মনিরুলের বাড়িতে শোকের মাতম

0
4264

এম আর মাসুদ  : সুখ নামক সোনার হরিণ ধরতে মালয়েশিয়া গিয়ে লাশ হতে হয়েছে মনিরুল ইসলাম (২৬) এক হতভাগ্য যুবকের। আড়াই বছর আগে দরিদ্র পিতা ধার দেনা করে সংসারে স্বচ্ছল আনতে একমাত্র ছেলেকে মালয়েশিয়া পাঠিয়েছিলেন। কথা ছিল কিছুদিন পরই বুকের ধন বাড়িতে ফিরলে বসাবেন বিয়ের পিঁড়িতে। কিন্তু বিধিবাম, পুত্রের সেই হাসিমাখা মুখের পরিবর্তে দেখতে হবে লাশ। স্বজনেরা এখন মনিরুলের লাশের অপেক্ষায় প্রহর গুনছে। গত শনিবার মালয়েশিয়ার পেনাংএ পাহাড় ধসে নিহত ৬ বাংলাদেশির মধ্যে মনিরুল ইসলামও রয়েছে। হতভাগ্য মনিরুলের বাড়ি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পটুয়াপাড়া গ্রামে। সে ওই গ্রামের দিন মজুর শহিদুল ইসলামের ছেলে। তার মৃত্যু খবরে বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। একমাত্র পুত্রের মৃত্যু খবরে মা রহিমা খাতুন মূর্ছা যাচ্ছেন বারবার। বাবাও নির্বাক হয়ে পড়েছেন। গত শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ৮ টা দিকে পাহাড় ধসে নিহতের ৬ বাংলাদেশির মধ্যে মনিরুলও রয়েছে। ঘটনার আধা ঘন্টা পর নিহত মনিরুলের মামা জসিম মোবাইল ফোনে বাড়িতে এই দূর্ঘটনার খবর দেন। মামা জসিম ও মনিরুল মালয়েশিয়ার পেনাং শহরে চাইনিজ কোম্পানীর বিল্ডিং কনস্ট্রাকশনের কাজ করত।

মনিরুলের পিতা দিনমজুর শহিদুল ইসলাম জানান, আড়াই বছর আগে ধার দেনা করে ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা খচর করে কলিং ভিসায় ছেলেকে মালয়েশিয়ায় পাঠিয়েছিলেন। সেখানে মনিরুল বিল্ডিং কনস্ট্রাকশন কাজ করত। ইতমধ্যে ধার দেনা শোধ করলেও নতুন ওয়ার্ক পারমিটের জন্য গত ৬ মাস কোন টাকা পাঠায়নি মনিরুল। নিহতের বোন ময়না খাতুন জানান, তার ভাই মোবাইল ফোন সব সময় খোলা থাকত এবং ফেসবুকে সবর থাকতেন। ওই দিন সকালে কাজে যোগদানের সময়ও তার ফেসবুক খোলা ছিল। পরে বাংলাদেশ সময় ১০ টার দিকে সংযোগ বিছিন্ন হয়। সব ঠিকঠাক থাকলে নতুন ওয়ার্ক পারমিটের কাগজ হাতে পেলে মনিরুল বাড়িতে এসে বিয়েরও কথা চলছিল। ভায়ের এমন খবরের পরিবর্তে মৃত ভায়ের লাশের অপেক্ষায় বোন ময়না খাতুন। পরে আর কথা বলতে পারেন নি তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here