মা ইলিশ নিধনে শুধু নিষেধাজ্ঞাই যথেষ্ট নহে

0
184

পহেলা অক্টোবর হইতে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ডিমওয়ালা ইলিশ মাছ ধরা নিষিদ্ধ। এই নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও বিভিন্ন স্থানে নানা কৌশলে মা ইলিশ নিধনের খবর পাওয়া যাইতেছে। এই নিষেধাজ্ঞার আর মাত্র কয়েক দিন বাকি আছে। অভিযোগ উঠিয়াছে যে, এইবার প্রশাসনের অভিযান চলা সত্ত্বেও টাকার বিনিময়ে অনেকে ইলিশ ধরিবার সুযোগ পাইয়াছেন। এই সুযোগ করিয়া দিয়াছেন খোদ ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার ও ফাঁড়ির পুলিশরা। সংবাদপত্রে প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, কুড়িগ্রামের উলিপুরে ব্রহ্মপুত্র নদে সাত শত টাকা মূল্যের অনুমতিপত্র নিয়া এই নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে গভীর রাত হইতে ভোররাত পর্যন্ত শত শত মণ ইলিশ মাছ ধরা হইয়াছে। এভাবে সর্ষের মধ্যে ভূত থাকিলে যেকোনো মহত্ কর্ম পণ্ড হইতে বাধ্য।

এদিকে গতকাল ইত্তেফাকের অনলাইন সংস্করণের সর্বশেষ খবর হইল, পদ্মা নদীর মুন্সিগঞ্জের লৌহজং অংশে মা ইলিশ শিকার বন্ধে ভোর রাত্রে অভিযান পরিচালনা করিতে গিয়া জেলেদের হামলায় আহত হইয়াছেন উপজেলা মত্স্য কর্মকর্তা। জেলেরা কেন এভাবে মারমুখী হইয়া উঠিতেছেন এবং নিষেধাজ্ঞা অমান্য করিয়া ইলিশ ধরিতেছেন তাহা একটি বড় প্রশ্নই বটে। প্রকৃতপক্ষে এই নিষেধাজ্ঞা চলাকালে দরিদ্র জেলেদের সংসার পরিচালনার জন্য প্রত্যেককে ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় নির্দিষ্ট পরিমাণে চাল দেওয়া হয়। এইবার চাল সংকটের কারণে যথাসময়ে চাল দেওয়া সম্ভব হয় নাই। পত্র-পত্রিকায় লেখালেখির পর গত বৃহস্পতিবার নিষেধাজ্ঞার ১২ দিনের মাথায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় হইতে জেলেদের চাল দিবার বরাদ্দপত্র (ডিও) পান জেলা প্রশাসকরা। এবার উপকূলসহ দেশের ২৫টি জেলায় তিন লক্ষ ৮৪ হাজার ৪৬২ জেলের এই সহায়তা পাইবার কথা। ১১২টি উপজেলার জেলেদের প্রত্যেককে ২০ কেজি করিয়া মোট সাত হাজার ৬৮৯ মেট্রিক টন চাল প্রদান করা হইতেছে। কিন্তু এই চাল জেলেদের নিকট এমন এক সময়ে গেল, যখন এই কর্মসূচি শেষের পথে। অর্থাত্ প্রথম হইতেই চাল দেওয়া হইলে হয়ত উপর্যুক্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হইত না। জেলেরা চাল না পাইয়া বলিতে গেলে একপ্রকার বাধ্য হইয়াই ইলিশ ধরিতে নামিয়াছে। আর তাহাদের এই অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়াছে একশ্রেণির স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বার ও পুলিশ সদস্য।

উল্লেখ্য, এই সময়টায় মা ইলিশ ডিম পাড়িবার জন্য গভীর সমুদ্র হইতে মিঠা পানির নদীতে চলিয়া আসে। কিন্তু এই সময় ডিমওয়ালা ইলিশ ধরা হইলে ইলিশের উত্পাদন হ্রাস পায়। প্রতিবত্সর নিষেধাজ্ঞা জারির ইহাই মূল কারণ। এক তথ্যে জানা যায়, এবার ১ হইতে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত কেবল বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় দুই সপ্তাহে মা ইলিশ ধরিবার দায়ে ৩৯৫ জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ড প্রদান করা হইয়াছে। অর্থাত্ এবার চাল পাইতে বিলম্ব হওয়ায় সরকারি নিষেধাজ্ঞা কার্যকরে জেলেদের আগ্রহ ছিল কম। আবার দেখা যায়, কেহ কেহ কার্ড পাইলেও সহায়তা পান না। মাঠপর্যায়ে এই রকম অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণেও অনেক সময় এই কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত হয়। অতএব, এই ব্যাপারে আগামী মৌসুম হইতে যথাযথ প্রস্তুতি ও সতর্কতা অবলম্বন করা বাঞ্ছনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here