মিঠুর কৃষক বিশ্রামাগার

0
1033

এম আর মাসুদ: সবুজ মাঠের তিন দিকে সোনালী ফসল আর এক দিকে ২ শ’ গজ দুরে ঢেউ খাচ্ছে বাওড়ের ঘোলা পানি। দেড় বর্গ কিলোমিটারের মধ্যে নেই জনবসতি। নেই কোথাও একটু ছায়া। তেপান্তরের এই মাঠে সবুজ ক্ষেতের এক কোনায় রয়েছে একটি কুঁড়েঘর। ইট সিমেন্ট আর বালি দিয়ে কুঁড়েঘরের পাকা করা মেঝের দুই পাশে কংক্রিটের চৌকি করা আছে বসার জন্য। গোলপাতার ছাউনি এই কুঁড়েঘরের চালে গোজা আছে দুইটি তালপাতার হাতপাখা। পাশে এশটি নলকূপ। সাথে আছে একটি বদনা ও গ্লাস। এই কুঁড়েঘরটিকে এলাকাবাসী মিঠুর কৃষক বিশ্রামাগার বলে থাকেন। এটি যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার বল্লা গ্রামের মেদের মাঠে অবস্থিত।

সুইডেনের আলফ্রেড নোবেল আমাদের দেশের দানবীর হাজী মোহাম্মদ মহসিনের মত জগৎজোড়া খ্যাতি অর্জন সক্ষম নেই। তবে যেটুকু সক্ষম আছে সে অনুযায়ী মানুষের পাশে থাকতে চান মিঠু। তার পুরোনাম একরামুল হক মিঠু। সে যশোর জেলার ঝিকরগাছা উপজেলার বল্লা গ্রামের মৃত আকবর আলী (ইয়াকুব্বার মোড়ল) ও মৃত রিজিয়া খাতুনের ছেলে। ৮ বোনের একমাত্র ভাই সে। ১৯৮৭ সালে অনিবার্য কারণে এসএসসি পরিক্ষায় অংশ নেওয়া হয়নি তাঁর। এর পর থেকে পেশা হিসাবে কৃষিকাজে জড়িয়ে পড়েন। ২০১১ সালে মিঠু গ্রামের মেদের মাঠে একটি কুঁড়েঘর তৈরি করেন। ওই সময় ২০ হাজার টাকা খরচ করে তিনি এই কুঁড়েঘর বানান গোলপাতার ছাউনির নিচে ১২ ফুট লম্বা আর ১০ ফুট চওড়া পাতা মেঝে দুই পাশে কংক্রিটের বসার চৌকি পাশে একটি নলকূপ আছে। ওই মাঠে এক বর্গ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো গাছপালা নেই, নেই কোনো ছায়া। তাই কৃষকের বিশ্রামের কথা ভেবে তিনি এই কুঁড়েঘরটি তৈরি করেছিলেন। সে সময় পরিবার সহ অনেকেই বিষয়টি নিয়ে ঠাট্রা তামাশা করলেও এখন রীতিমত প্রসংশা বা আলোচনা করেন। মিঠু এ বছরও কুঁড়ে ঘরের ছাউনির গোলপাতা পাল্টে দিয়েছেন ২ হাজার টাকা খরচ করে। ওই গ্রামের কৃষক আলী হক জানান মিঠুর কুঁড়েঘরে কৃষকরা শুধু বিশ্রাম নেয় না সেখানে খাওয়া দাওয়া ও নামাজ আদায় করেন মাঠের কর্মরত সকলেই। বল্লা বাজারের চা দোকানী শাহজাহান কবির জানান, ওই কুঁড়েঘরে শুধু কৃষকরা না এলাকার বাচ্চারাও প্রায়ই বনভোজন করে থাকেন। একরামুল হক মিঠু ছোটবেলা থেকে মানুষের সাহায্য সহযোগিতা করেন সাধ্যমত। ২০০৪ সালে তিনি ওই গ্রামের শিক্ষানুরাগী ডাক্তার মিজানুর রহমানকে বলেছিলেন, স্কুলের গরীব ছেলে মেয়েদের ছাতা কিনে দিতে বর্ষাকালের জন্য। গত মাসে উপজেলার নির্বাসখোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মিঠুর কৃষক বিশ্রামাগার দেখতে গিয়েছিলেন। তিনি ওই খানে কিচু সরকারি অর্থ বরাদ্দের জন্য আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানা গেছে। মিঠুর ইচ্ছা মাঠের ওই রাস্তাটি পাকা হলে কৃষকের ফসল আনা নেওয়া সহজ হবে। সে ওই কৃষক বিশ্রামাগারের পাশে একটি পাকা টয়লেট করতে চায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here