মিরপুরের জঙ্গি বাড়ির মামলায় পাইলট সাব্বিরের স্বীকারোক্তি

0
324

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর মিরপুর মাজার রোডের বর্ধনবাড়ি এলাকায় ‘কমল প্রভা’ জঙ্গি বাড়ির মামলায় বাংলাদেশ বিমানের পাইলট সাব্বির এনাম আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনছারীর কাছে সাত দিনের রিমান্ড শেষে তিনি ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় এই জবানবন্দি দেন। পরে স্বীকারোক্তি গ্রহণের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

ব্যার-৪ এর এসআই মামলাটি তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আমিরুল ইসলাম এই স্বীকারোক্তি গ্রহণের আবেদন করেন।

এদিকে মামলাটিতে বুধবার মো. আলম আলমের পুনরায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে সিএমএম আদালত।

পুনরায় পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আমিনুল ইসলাম এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ১ নভেম্বর পাইলট সাব্বির এনাম সাত দিনের এবং মো. আলমের ছয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিল আদালত।

এদিকে বর্তমানে মামলাটিতে পাইলটের মা সুলতানা পারভীন এবং আসামি সৈয়দ নুরুল হুদা মাসুম এবং মো. মাজহারুল ইসলাম রিমান্ডে রয়েছেন।

র‌্যাবের দাবি, পাইলট সাব্বির ২০০৯ সালে বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমি থেকে উড়োজাহাজ চালানোর প্রশিক্ষণ নেন। ২০১০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত রিজেন্ট এয়ারওয়েজে চাকরি করেন। ওই বছরই তিনি বিমানের পাইলটের চাকরি নেন। বিমানের ফার্স্ট অফিসার হিসেবে সাব্বির বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ চালাতেন। গত ৩০ অক্টোবর তিনি ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করেন। তবে জঙ্গি আবদুল্লাহর সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠতা ছিল। নিহত জঙ্গি সারোয়ার জাহানের কাছ থেকে সাব্বির বায়াত গ্রহণ করেন। গুলশানে হলি আর্টিজানে হামলার আগে ও পরে নাশকতার পরিকল্পনা ছিল তার। এরই অংশ হিসেবে সাব্বির বিমান চালিয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যক্তিদের বাসভবনে আঘাতের পরিকল্পনা করেন।

প্রসঙ্গত, গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে মিরপুর মাজার রোডের বর্ধনবাড়ি এলাকায় ‘কমল প্রভা’ নামের একটি বাড়িতে (পাইলট সাব্বির ও সুলমানা পারভীনের বাড়ি) অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযান চলার সময় ওই বাড়ির পঞ্চম তলায় ‘জঙ্গি আস্তানায়’ ভয়াবহ রাসায়নিক বিস্ফোরণ হয়। অভিযানে জঙ্গি মীর আকরামুল করিম ওরফে উপল ওরফে আবদুল্লাহ (৪৩) ও তার পরিবার আত্মসমর্পণের জন্য সময় নেয়। কিন্তু পরে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আবদুল্লাহ, তাঁর দুই স্ত্রী নাসনির (৩৫) ও ফাতেমা (২৫), দুই সন্তান ওসামা বিন আকরামুল (১০) ও ওমর বিন আকরামুল (৩)ও দুই সহযোগী কামাল ও অজ্ঞাত ব্যাক্তি আত্মাহুতি দেয়। ওই ঘটনায় র‌্যাব বিপুল পরিমাণ বোমা, গান পাউডারসহ ২৪ ধরনের আলামত জব্দ করে। এরপর গত ৮ সেপেম্বর বিস্ফোরক আইনে রাজধানীর দারুস সালাম থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here