মিলন হত্যার রহস্য উদঘাটন করলো পিবিআই

0
23

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের বেনাপোলে মিলন হোসেন (৪০) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় জড়িত হিরো (২৪) নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি শনিবার অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বেনাপোলের ভবেরবেড় পশ্চিমপাড়া এলাকার তোতা মিয়ার ছেলে হিরো। শুক্রবার তাকে নড়াইল জেলার কালিয়া থানাধীন পূর্ব মাধবপাশা গ্রামের শ্বশুর হান্নান শেখের বাড়ী থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। অভিযুক্ত হিরো’র দেখানো মতে ঘটনার দিন মৃত মিলন হোসেন সাথে থাকা একটি সাদা প্লাষ্টিকের ব্যাগ (যাতে ভিকটিমের পরনের কাপড়, ভিকটিমের ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ এর ছবি, দলিল এর ফটোকপি ও ভিকটিমের এনআইডি কার্ডের একটি ফটোকপি) উদ্ধার করা হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পিবিআই যশোরের পুলিশ সুপার রেশমা শারমিন।

জানা যায়, ২০২১ সালের ২৯ আগস্ট সকালে যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি গ্রামের বাসিন্দা মিলন হোসেন নিজ বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশ্যে বের হয়। দুইদিন অতিবাহিত হলেও মিলন হোসেন বাড়িতে ফিরে আসে নাই। ৩১ আগস্ট সন্ধ্যায় বেনাপোল রেলস্টেশনের পূর্বে রেল কর্মচারীর পরিত্যক্ত ভবনের সামনে মিলন হোসেনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। এ ঘটনা নিহত মিলন হোসেনের পুত্র বিপ্লব হোসেন (১৮) অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা করেন। মামলাটি পিবিআই যশোর জেলা স্বউদ্দ্যোগে মামলার তদন্তভার গ্রহণ করে।

অভিযুক্ত হিরো জানিয়েছেন, হিরোসহ তার অন্যান্য সহযোগীরা ছিনতাইসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সহিত জড়িত ও মাদকাসক্ত। গভীররাতে বেনাপোল পোর্ট থানাধীন রেলষ্টেশন এলাকায় আগত লোকজনদের নিকট থেকে সবর্স্ব ছিনিয়ে নেওয়াই তাদের পেশা। অভিযুক্ত হিরো ঘটনার তারিখ ও সময়ে ঘটনাস্থলের আশেপাশে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে থাকে। একপর্যায়ে মিলন হোসেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে অভিযুক্ত হিরো ও তার সহযোগীরা ভিকটিমকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে ভিকটিমের সাথে থাকা ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত হিরো ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিলেন। তার শ্বশুরবাড়ি নড়াইল জেলার মাধবপাশা গ্রামে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক বেনাপোল পোর্ট থানাধীন মাছ বাজারস্থ অভিযুক্তের নিজ ভাঙড়িরর দোকান থেকে তার দেখানো মতে মৃত মিলন হোসেন এর ঘটনার দিন সাথে থাকা একটি সাদা প্লাস্টিকের ব্যাগ (যাতে ভিকটিমের পরনের কাপড়, ভিকটিমের ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ এর ছবি, দলিল এর ফটোকপি ও ভিকটিমের এনআইডি কার্ডের একটি ফটোকপি) উদ্ধার করা হয়। শনিবার অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। হিরো ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন।