মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি জাগ্রত থাকুক

0
195

সোমবারের সমকালে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত বধ্যভূমি সংরক্ষণ সংক্রান্ত দুটি খবর স্বাধীনতার এই মাসে আমাদের হতাশ না করে পারে না। এতে দেখা যাচ্ছে, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা ও আলীগঞ্জে দুটি বধ্যভূমি স্বাধীনতার সাড়ে চার দশক পরও অচিহ্নিত অবস্থায়। অন্যদিকে চট্টগ্রামে পাহাড়তলী বধ্যভূমি চিহ্নিত হলেও বহুতল ভবনের আগ্রাসনে চাপা পড়ে যাচ্ছে। বধ্যভূমি অচিহ্নিত বা অবহেলায় পড়ে থাকার খবর নতুন নয়। বস্তুত সেটাই হতাশার অন্যতম প্রধান কারণ। স্বাধীনতার এত বছর পরও দেশের বিভিন্ন স্থানে কেন অবহেলায় পড়ে থাকবে আমাদের জাতীয় আবেগের স্মারক? আমরা গভীর হতাশার সঙ্গে লক্ষ্য করি, দেশের বিভিন্ন এলাকার বিপুল অধিকাংশ বধ্যভূমি এখনও অচিহ্নিত। এমনকি অনেক স্থানেই বধ্যভূমি বেদখল হয়েছে কিংবা সেখানে বৈধভাবেই স্থাপনা গড়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও বধ্যভূমি চিহ্নিত বা স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হলেও তা অযত্নে পড়ে থাকার খবর সংবাদমাধ্যমে বিরল নয়। আরও হতাশাজনক হচ্ছে, দেশে কতগুলো বধ্যভূমি আছে_ সে ব্যাপারে পূর্ণাঙ্গ তালিকা করাও সম্ভব হয়নি। স্বাধীনতার জন্য বাঙালির আত্মত্যাগের এসব পবিত্র চিহ্ন মুছে যাওয়ার জন্য দায়ী মূলত প্রায় চার দশকের উদ্যোগহীনতা ও অবহেলা। আমরা চাই_ এখনই এসব চিহ্নিত করার উদ্যোগ নেওয়া হোক। এটা সত্য যে, সব বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ সম্ভব নয়। কিন্তু চিহ্নিত করা কঠিন হতে পারে না। এসব ক্ষেত্রে প্রশাসনের পাশাপাশি স্থানীয়রাও উদ্যোগী হতে পারে। কেবল পবিত্রতা রক্ষা নয়, স্থানীয় উদ্যোগে বধ্যভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করাও কঠিন নয়। আমরা যদি একাত্তরে স্বতঃস্ফূর্তভাবে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে স্বাধীনতার লাল সূর্য ছিনিয়ে আনতে পারি, সেই আত্মত্যাগের স্মারক ধরে রাখতে পারব না কেন? জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ এই কাজটি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা ও আলীগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের পাহাড়তলীর বধ্যভূমি তিনটি থেকেই শুরু হতে পারে। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধের স্মারকের সংরক্ষণে সবাই এগিয়ে আসবেন বলেই আমাদের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here