মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে মিথ্যা তথ্যে বিভ্রান্ত হয়নি নতুন প্রজন্ম: প্রধানমন্ত্রী

0
332

নিজস্ব প্রতিবেদক : বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ছবি: ফোকাস বাংলাস্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি দীর্ঘদিন মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস থেকে বঞ্চিত করে রাখলেও নতুন প্রজন্ম বিভ্রান্ত হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে শুক্রবার (১০ মার্চ) বিকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরের প্রজন্মকে মনগড়া ইতিহাস জানিয়ে বিভ্রান্ত করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নতুন প্রজন্মকে বহু বছর স্বাধীন বাংলাদেশের প্রকৃত ইতিহাস থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছিল। অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীরা মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জাতিকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু তাদের সেই চক্রান্ত সফল হয়নি। নতুন প্রজন্ম মিথ্যা তথ্যে বিভ্রান্ত হয়নি।’

বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে দিয়ে দীর্ঘকাল ইতিহাস বিকৃত করার চেষ্টাও চলেছে মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘পঁচাত্তরের পরে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাজাতে দেওয়া হতো না। এই ভাষণ বাজাতে গিয়ে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মী হত্যা-নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। একসময় বঙ্গবন্ধুর নাম নেওয়াটাই যেন নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছিল। তার ছবিও লুকিয়ে রাখতে হতো। কিন্তু তার অপরাধ কী ছিল? ক্ষুধা, দারিদ্র্য আর শোষণের হাত থেকে একটা জাতিকে স্বাধীনতা এনে দেওয়া?’

পঁচাত্তরের খুনি আর একাত্তরের পরাজিত শক্তির মধ্যে কোনও পার্থক্য ছিল না বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। তার দাবি, বঙ্গবন্ধুর খুনিরাই সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতায় বসেছিল। তিনি বলেন, ‘আসলে পাকিস্তানি হানাদার আর তাদের দোসর বিএনপি-জামায়াতের মধ্যে পার্থক্য ছিল না।’

আলোচনাজুড়ে স্বাধীনতা সংগ্রাম, স্বাধীনতা অর্জনে জাতির পিতার ভূমিকা নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘৭ মার্চের ভাষণের মধ্যেই আপনারা ইতিহাস পাবেন। মূলত ভাষণটি ছিলো ২৩ মিনিটের। সেময় মাঠে উপস্থিত থাকার সৌভাগ্য হয়েছিলো আমার। মঞ্চের সামনে নয়, ঠিক পাশেই। যেটা রেকর্ড করা হয়েছিলো সেটা ১৮-১৯ মিনিটের। সেই ভাষণে বাংলাদেশের জনগণের ২৩ বছরের বঞ্চনা এবং ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে প্রতিটি সংগ্রামে রক্ত দেওয়ার ইতিহাস; সবকিছু তুলে ধরে ভবিষ্যতে কী করতে হবে অর্থাৎ গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি কীভাবে নিতে হবে, এমনকি তিনি যদি হুকুম দিতে না-ও পারেন তখন কী করতে হবে; সেসব কথাও বলেছেন।’

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ দিনটির স্মৃতিচারণ করে শেখ হাসিনা বলেন, “৭ মার্চের ভাষণ দিতে বাবা বের হওয়ার সময় আমার মা তাকে বলেছিলেন, ‘অনেকে অনেক কিছু বলে দিয়েছে, লিখে দিয়েছে। তুমি জানো, একমাত্র তুমি জানো তোমার মনে ঠিক যে কথাগুলো আসবে তুমি ঠিক সেই কথাগুলোই বলবে।’ আমার মনে আছে, তার কথা শুনে বাবা হাসলেন। তারপর মাঠের দিকে রওনা দিলেন। পেছন পেছন আমি আর রেহানা আরেকটা গাড়িতে গেলাম।”

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে শুক্রবার এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here