মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ত্রিশ জনসহ একশ’ জনের চুড়ান্ত নিয়োগ

0
236

যশোর প্রতিনিধি : খুলনা বিভাগে কারারক্ষী নিয়োগ প্রক্রিয়ার অবসান হয়েছে। বুধবার সকালে রক্ষী নিয়োগে চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। খুলনা বিভাগের নড়াইল জেলা বাদে ৯ জেলায় ৩০ জন মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ  ১শ’ জনকে প্রাথমিক পর্যায়  নিয়োগ নিশ্চিত করেছে। কারারক্ষি নির্বাচন কমিটির সভাপতি ও কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে কর্মরত সিনিয়র তত্ত্বাবধায়ক (চ:দা:) জাহানারা বেগম,সদস্য সচিব ও যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে কর্মরত জেলা মো: আবুল তালেব,কারারক্ষি নির্বাচন কমিটির সদস্য ও বাগেরহাট জেলা কারাগারে কর্মরত কারা তত্ত্ববাধয়ক মো: গোলাম দস্তগীর,সদস্য ও গোপারগঞ্জ জেলা কারাগারে কর্মরত কারা তত্ত্বাবধায়ক মো: ইকবাল হোসেন,সদস্য  ও যশোর সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা: আরিফ আহমেদ স্বাক্ষরিত কারারক্ষি নিয়োগের প্রাথমিক পর্যায় চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে। তালিকা অনুযায়ী জানাগেছে, যশোর জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৮জন ও সাধারণ কোটায় ১১জন, খুলনা জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২জন ও সাধারণ কোটায় ১০জন,চুয়াডাঙ্গা জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ১জন ও সাধারণ কোটায় ৬জন,সাতক্ষীরা জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩ জন ও সাধারণ কোটায় ৯জন, মেহেরপুর জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২জন ও সাধারণ কোটায় ২জন,মাগুরা জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২জন ও সাধারণ কোটায় ৬ জন,কুষ্টিয় জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৬জন,ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠী কোটায় ১জন ও সাধারণ কোটায় ১০জন,ঝিনাইদহ জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩জন ও সাধারণ কোটায় ৬জন ও বাগের জেলায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩জন ও সাধারণ কোটায় ৯জনকে প্রাথমিক পর্যায় নিয়োগ চুড়ান্ত করা হয়েছে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, গত ২৬ এপ্রিল সকাল থেকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের মাঠে খুলনা বিভাগের নড়াইল জেলা বাদে ৯ জেলার বাসিন্দা নূন্যতম এসএসসি কিংবা তার সমপরিমান যুবকদের কারারক্ষি নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়। প্রথম দিনে মাপঝোক করার পর লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। লিখিত পরীক্ষা শেষে মৌখিক পরীক্ষা শুরু হওয়ার পূর্ব থেকে যাদেরকে নিয়োগের জন্য চুড়ান্ত করা হবে তাদের একটি তালিকা বিভিন্ন লিংকের মাধ্যমে নির্বাচন কমিটির কাছে পৌছে দেওয়া হয়। তালিকা অনুযায়ী কমিটির সভাপতিসহ অন্যান্যরা তাদেরকে টিকিয়ে রাখার প্রতি লক্ষ্য রেখে চুড়ান্ত পর্যায় পৌছায়। সূত্রগুলো বলেছেন, খুলনা বিভাগের ৯ জেলা থেকে ১শ’ জনের মধ্যে অধিকাংশ প্রার্থীকে বিভিন্নভাবে গুনতে হয়েছে নূন্যতম ১০ লাখের উপরে টাকা। রক্ষি নিয়োগে যে সব লিংক কাজ করেছেন তাদের কাছে বিভিন্ন ব্যাংকের লাখ টাকা চেক রয়েছেন। সূত্রগুলো জানিয়েছে, নির্বাচন কমিটি মেধাবী ও যোগ্যতা প্রার্থীদের ব্যাপারে প্রথম দিকে খেয়াল করলেও শেষের দিকে তা উল্টে যায়। কারারক্ষি পদে যোগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থী টাকার কাছে পরাজিত হয়ে তালিকা থেকে শেষমেষ বাদ পড়েছে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন,যাদেরকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তাদের পরিবার বর্গ জানেন চাকুরী বাজারে টিকে থাকা কতটা চ্যালেঞ্জ বটে!। কারারক্ষি নিয়োগে যাদেরকে চুড়ান্ত করা হয়েছে তাদের অধিকাংশদের শারীরিক ও মেধার যোগ্যতা নিয়ে রয়েছে নানা সংশয় বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here