মুক্তিযোদ্ধা হত্যায় যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে মোকিম ও ঝড়ুর ফাঁসি কার্যকর

0
641

ডি এইচ দিলসান : বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১২টায় যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে আলমডাঙ্গার দুর্লভপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হোসেন মেম্বার হত্যা মামলার ২ আসামি মোকিম ও ঝড়ুর ফাঁসি কার্যকর ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলার আবু তালেব।

কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যে দুই খুনির ফাঁসি কার্যকর হয়েছে, তারা চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী ইউপি মেম্বার মনোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত ছিলেন। এই দুইজন হলেন, আলমডাঙ্গা উপজেলার দুর্লভপুর গ্রামের আরশেদ সরদারের ছেলে গোলাম রসুল ঝড়ু সরদার (৬৫) ও মুরাদ আলীর ছেলে মকিম হোসেন (৫৫)। এই মামলার বাদী ছিলেন নিহতের ভাই অহিম উদ্দিন।

দীর্ঘ প্রায় ২ যুগ পর আজ হত্যাকারীদের ফাঁসি কার্যকর হল। নিহত মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার মেম্বারের পরিবারের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে, নিহত মনোয়ারের স্ত্রী চায়না খাতুন বলেন, এক সময় বছরের পর বছর আমরা চোখের জলে বুক ভাসিয়েছি। আল্লাহ মুখ তুলে তাকিয়েছেন। আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া। খুনি দু’জনের ফাঁসি হচ্ছে। এখন খুনির আত্মীয়দের কান্নার পালা।

নিহত মনোয়ারের মেজ ছেলে ইউপি মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, দীর্ঘ ২৩ বছর পর পিতা হত্যার বিচার পেলাম। অবশ্যই খুশি। আমার নিরপরাধ পিতাকে হত্যার পর জনযুদ্ধের সময় কতো হুমকি সহ্য করেছি। নিজেদের জীবন বাঁচাতে খুনিদের জীবন বাঁচানোর ব্যবস্থা করে দিতে হয়েছে। তারপরও আমরা খুশি।

মুক্তিযোদ্ধা হত্যা মামলার বাদীর ছোট ভাই মুক্তিযোদ্ধা অহিম উদ্দীন বলেন, একসঙ্গে দু’ভাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলাম। কতো স্মৃতি আছে আমাদের। সেই ভাইকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। প্রাণপ্রিয় ভাইকে হারিয়ে নিরবে-নিভৃতে কতো ডুকরে ডুকরে কেঁদেছি। বিলম্বিত বিচার অবিচারের সামিল। মুক্তিযোদ্ধা হত্যার বিচার না পেয়ে কতো অসহায় চোখের জল ফেলেছি তা কাউকে বোঝাতে পারবো না। দু’যুগ পরে হলেও খুনিদের ফাঁসি হওয়ার সংবাদ শুনে ভালো লাগছে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য আলমডাঙ্গা উপজেলার কুমারী ইউনিয়নের দুর্লভপুর গ্রামের মৃত রবকুল মণ্ডলের মেজ ছেলে মনোয়ার হোসেন ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি দু’বার ইউপি মেম্বার নির্বাচিত হয়েছিলেন। বৃহত্তর এ অঞ্চলে তিনি কৃতিখেলোয়াড় হিসেবে পরিচিত ছিলেন। দেশে তো বটেই, ভারতের পশ্চিমবঙ্গসহ বিভিন্ন অঞ্চলেও তিনি হা-ডু-ডু খেলেছেন। ১৯৯৪ সালের ২৮ জুন গ্রামের বাদল সর্দ্দারের বাড়িতে পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি কতিপয় চরমপন্থিরা কুপিয়ে হত্যা করে মনোয়ারকে। ওইদিনই মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার মেম্বারের ভাই অহিম উদ্দীন বাদি হয়ে আলমডাঙ্গা থানায় ২১ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই হত্যা মামলা দীর্ঘ এক যুগ পর ২০০৬ সালে এ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ে ৩ জনের ফাঁসি ও দু’জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। দুর্লভপুরের মৃত মুরাদ আলীর ছেলে আব্দুল মোকিম ও একই গ্রামের মৃত আকছেদ আলীর ছেলে ঝড়–সহ ৩ জনকে মৃত্যুদণ্ডের রায় ঘোষণা করা হয়। এছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা ২ জন হলেন দুর্লভপুরের মৃত কুদরত আলীর ছেলে আমিরুল ইসলাম ও একই গ্রামের আবু বক্করের ছেলে হিয়া। বাকি ১৬ জন আসামিকে বেকসুর খালাস পায়। পরবর্তীতে উচ্চ আদালতে আপিল করলে ফাঁসির দন্ডাদেশপ্রাপ্ত একজন ও যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশপ্রাপ্ত ২ জন আমিরুল ইসলাম ও হিয়ার দণ্ডাদেশ মওকুফ করে আপিল বিভাগ। বাকি দু’জনের ফাঁসির দন্ডদেশ বহাল থাকে। দীর্ঘ ২৩ বছর পর আজ বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১২টায় মোকিম ও ঝড়ুর ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here