মুক্ত সাংবাদিকতার অন্তরায়

0
274

অধ্যাপক মফিজুর রহমান : বাংলাদেশে সব ধরনের গণমাধ্যমের সংখ্যা যখন বাড়ছে এবং অবশ্যই যা এ ক্ষেত্রে সরকারের উদার দৃষ্টিভঙ্গির প্রমাণ- তখন ফ্রান্সভিত্তিক রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের ২০১৭ সালের মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যম সূচকে বাংলাদেশের দুই ধাপ পিছিয়ে গেল কেন? এ বিষয়টি নতুন চিন্তার সূত্রপাত ঘটিয়েছে।

এই রিপোর্ট অনুযায়ী শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বব্যাপী মুক্ত ও স্বাধীন সাংবাদিকতা সূচকে পতন লক্ষণীয়। যেমন ফিনল্যান্ড, যারা পাঁচ বছর ধরে এক নম্বর স্থানে ছিল, ২০১৭ সালে তিন নম্বর স্থানে নেমে এসেছে দুই ধাপ পিছিয়ে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২০১৬ সালের অবস্থান থেকে দুই ধাপ পিছিয়ে ৪১তম স্থান থেকে নেমে ৪৩তম স্থানে নেমেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেত্রে সরকার বিশেষত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মুক্ত সাংবাদিকতায় অন্তরায় হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে অন্তরায় হিসেবে বেরিয়ে এসেছে ধর্মীয় উন্মাদনা ও জঙ্গিবাদ এবং সাংবাদিকদের স্ব-আরোপিত বিধিনিষেধ বা সেলফ সেন্সরশিপ।

প্রতিবেশী ভারত তিন ধাপ পিছিয়ে ১৩৩ থেকে ১৩৬তম স্থানে নেমে এসেছে। সার্বিকভাবে ২০১৭ সালের মুক্ত গণমাধ্যম অবস্থাকে ever darker world map’ বলে আখ্যায়িত করেছে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস। বিশেষত গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলোতে স্বাধীন সাংবাদিকতা বেশি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে মত দিয়েছে তারা। আরএসএফের সূত্র অনুযায়ী- যে রাষ্ট্রের স্কোর শূন্য, সেখানেই কেবল শতভাগ মুক্ত ও স্বাধীন সাংবাদিকতার অস্তিত্ব রয়েছে। এই হিসাবে বিশ্বের কোথাও শতভাগ মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যমের অস্তিত্ব নেই। যে নরওয়ে ২০১৭ সালের সূচকে এক নম্বর স্থানে অবস্থান করছিল, তার স্কোর হলো ৭.৬০। এ থেকে নরওয়ের সাংবাদিকতা বা গণমাধ্যমের মুক্ত ও স্বাধীনভাবে চর্চার মাত্রা বোঝা যায়। আর বাংলাদেশের স্কোর হলো ৪৮.৩৬ অর্থাৎ প্রায় ৪০ পয়েন্টের ব্যবধানে রয়েছে এ দুটি রাষ্ট্র।

উন্নয়নের ক্ষেত্রে সিঙ্গাপুর বা মালয়েশিয়ার মডেল সর্বত্র সমাদৃত। অথচ সূচক অনুযায়ী মালয়েশিয়া ৪৬.৪৯ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের গত বছরের অবস্থান, অর্থাৎ ১৪৪-এ আছে। আর সিঙ্গাপুর ১৫১তম অবস্থানে, অর্থাৎ বাংলাদেশের চেয়ে পাঁচ ধাপ পিছিয়ে রয়েছে মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যম সূচকে। আরএসএফের তথ্য একটি দেশের স্বাধীন গণমাধ্যম ও উন্নয়নের মধ্যকার পারস্পরিক নির্ভরশীলতার বিষয়কে চ্যালেঞ্জের মধ্যে ফেলে।

গণতান্ত্রিক সমাজে মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যমের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। এক সময় দেশে দেশে সরকারকে মুক্ত গণমাধ্যমের প্রধান অন্তরায় মনে করা হতো এবং তার বাস্তব ভিত্তিও ছিল। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার অনুপস্থিতিতে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে সামরিক শাসক ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার আড়ালে স্বৈরশাসকরা স্বাধীন গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করত। বাংলাদেশের অবস্থাও ছিল তদ্রূপ। মধ্যরাতের প্রেস অ্যাডভাইস সংবাদপত্রের পৃষ্ঠা বদলে দিত। সাংবাদিকদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে কাজ করতে হতো। প্রেস অ্যাডভাইসে কাজ না হলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে হেনস্তা করা হতো। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনসহ জেল-জরিমানা, ভয়-ভীতি দেখিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইত। গণমাধ্যমের সংখ্যা কম ও প্রযুক্তির অনুপস্থিতিতে এভাবে সরকার তথ্য ধামাচাপা দিয়ে অনেক বিষয়ে জনগণকে অন্ধকারে রাখত। মূলত সরকার বেকায়দায় পড়তে পারে_ এমন মনোভাব থেকেই অন্যায়ভাবে তথ্য ধামাচাপা দেওয়া হতো।

প্রযুক্তির কল্যাণে আজ বহুমুখী তথ্যপ্রবাহ পথ তৈরি হয়েছে। বেসরকারি মালিকানায় সংবাদপত্র, টেলিভিশন ও বেতার আসার ফলে গণমাধ্যমের মালিকানায় বহুমুখী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মতাদর্শের সম্মেলন ঘটেছে। সরকারের মধ্যেও বোধোদয় হয়েছে_ দীর্ঘকাল ধরে যেসব তথ্য গোপন করার প্রবণতা গড়ে উঠেছে, তার অবসান ঘটলে ক্ষতির শঙ্কা নেই। তথ্য বঞ্চনার মধ্য দিয়ে নাগরিকদের অন্ধকারে রেখে দেশ শাসনের পরিবর্তে তথ্যসমৃদ্ধ সমাজ ও নাগরিক গড়ে তোলার মাধ্যমে সুশাসন প্রতিষ্ঠা এবং ভারসাম্য ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সমাজ তৈরির বিষয়টি সরকার আগের চেয়ে বেশি উপলব্ধি করছে। নাগরিক সমাজের দীর্ঘকালের আন্দোলন এ ক্ষেত্রে নিয়ামক হিসেবে কাজ করেছে। উদাহরণ হিসেবে, বাংলাদেশে ২০০৯ সালে তথ্যাধিকার আইন প্রণয়নের কথা বলা যায়। এই আইন যত প্রয়োগ হবে ততই সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও দপ্তরগুলোর গোপনীয়তার সংস্কৃতি থেকে ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসবে। কিন্তু এই আইনের প্রয়োগ বহুলাংশে নির্ভর করে জনগণ এবং বিশেষ করে সাংবাদিকদের ওপর। এটিই একমাত্র আইন, যা প্রয়োগের ক্ষমতা ও এখতিয়ার সাধারণ মানুষের। তাই মুক্ত ও স্বাধীন সাংবাদিকতায় এই আইনের প্রয়োগ বাড়াতে হবে।

কৃষি, সার, বিদ্যুৎ উৎপাদন, দেশে কর্মসংস্থানের অবস্থানসহ অনেক তথ্যই সরকার এখন নিজ ইচ্ছায়-উদ্যোগে প্রকাশ করে। পেশাদারি গণমাধ্যম ছাড়াও এসব তথ্য প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। সেবা দায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোতে সিটিজেন চার্টার তৈরি হওয়ায় এসব বিষয়ের তথ্যপ্রাপ্তি সহজ হয়েছে। তার পরও সামরিক বাজেটের বরাদ্দ ও ব্যয় এবং সরকারি বড় বড় কেনাকাটা সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া মুশকিল। এসব মুক্ত ও স্বাধীন সাংবাদিকতার সুযোগকে প্রভাবিত করে পরিসরকে সংকুচিত করে, পরিণামে সুশাসন ও স্বচ্ছতাকে যা প্রশ্নবিদ্ধ করে।

আরএসএফ যেসব বিষয়ের আলোকে মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যম সূচক তৈরি করে তা হলো- গণমাধ্যমে বহুপক্ষের মত উপস্থাপনের সুযোগ বা প্লুরালিজম, সম্পাদকীয় স্বাধীনতা বা মাধ্যমের স্বাধীনতার পর্যায়, সংবাদ ও তথ্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট আইনি কাঠামো, সংবাদ ও তথ্য উৎপাদনে প্রভাব বিস্তারকারী প্রতিষ্ঠান ও পদ্ধতির স্বচ্ছতা, সংবাদ ও তথ্য পরিবেশ, গণমাধ্যমের অপব্যবহার, গণমাধ্যমকর্মীর সহিংসতার শিকারের মাত্রা এবং সংবাদ ও তথ্য উৎপাদনে গণমাধ্যমের অবকাঠামো ও এগুলোর গুণগত মান।

এসব ক্ষেত্রের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে তারা বলেছে, বাংলাদেশে এখন বহু মতাদর্শিক গণমাধ্যম ব্যবস্থা বিদ্যমান আছে। মুক্ত সাংবাদিকতা এখন রাষ্ট্রীয় হস্তক্ষেপের পরিবর্তে ধর্মীয়-সামাজিক-প্রাতিষ্ঠানিক হস্তক্ষেপের শিকার হচ্ছে। তবে সরকার ও সংবিধানের সমালোচনা করাকেও এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সাংবাদিকরা এখন নিজেরাই সেলফ সেন্সরশিপের মাধ্যমে সংবেদনশীল অনেক তথ্য প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকছেন। ফলে মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যমের আলোচনা রাষ্ট্রকেন্দ্রিকতার পরিবর্তে সমাজ ও প্রতিষ্ঠানকেন্দ্রিক হয়ে উঠেছে।

বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী ধর্মীয় উন্মাদনা বৃদ্ধি পেয়েছে। ধর্মীয় রাজনীতি ব্যবসায়ীরা সমাজে বিদ্যমান বৈষম্যকে কাজে লাগিয়ে আদর্শিক দ্বন্দ্বকে উস্কে দিচ্ছে। ধর্মের নামে সন্ত্রাসবাদ ও মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। ধর্মীয় লেবাস ও অজুহাতের ফলে এরা বৃহত্তর সমাজে এক ধরনের সহানুভূতিও পায়। মুক্ত ও স্বাধীনভাবে লেখালেখিকে তারা গ্রহণ করতে পারে না। এমনতর সামাজিক ব্যবস্থায় স্বাধীন মতপ্রকাশের বিভিন্ন বাধা ও ধারাবাহিকভাবে ব্লগার, প্রকাশক হত্যার ফলে সাংবাদিকরা অনেক রক্ষণশীল হয়ে উঠেছেন বলে মনে করা যেতে পারে। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার দায় তারা নিতে চান না। ফলে অনেক বিষয়ে তারা লেখালেখি থেকে বিরত থাকছেন। তা স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশের পরিসরকে সীমিত করে তুলছে এবং সেলফ সেন্সরশিপের পরিধি বড় করেছে।

সাংবাদিক নিজে বা তার পরিবারের সদস্যদের ক্ষতি ও বিপদের আশঙ্কায় থাকলে তিনি তথ্য প্রকাশে বিরত থাকবেন, তাই স্বাভাবিক। তাই সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন অর্থাৎ সমাজকে শক্তি জোগাতে হবে মুক্ত ও স্বাধীন মতপ্রকাশের অধিকারকে গ্রহণ করতে। সমাজ যদি প্রস্তুত না হয় তাহলে সেলফ সেন্সরশিপের বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে আসা কঠিন হবে। তারপরও সাহসীরা অতীতে লিখেছেন, ভবিষ্যতে হয়তো লিখবেন; কিন্তু পরিণামে মুক্ত ও স্বাধীন গণমাধ্যম নির্মাণের অন্য নির্ণায়কগুলোতে অধোগতি দেখা দেওয়ার যথেষ্ট নজির আমাদের সামনে রয়েছে।

সাংবাদিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি প্রতিষ্ঠানকে বিবেচনা করতে হবে। পেশাগত দক্ষতার বিষয়টি এখন আর লেখালেখির কলাকৌশলের মধ্যে সীমিত রাখলে চলবে না। সাংবাদিকদের জন্য সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটি ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। অগি্নকাণ্ড কাভার করতে গিয়ে নিজে কীভাবে নিরাপদ থাকবেন, রাজনৈতিক সংঘর্ষে নিজেকে কীভাবে দূরে রেখে তথ্য সংগ্রহ করবেন। ক্ষেত্র অনুযায়ী বিশেষ পোশাক পরিধান, চরম সংঘর্ষে স্থান ত্যাগসহ যথাযথ নিরাপত্তার বিষয়ে সাংবাদিকদের যথাযথ কৌশল ও ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে; যা সাংবাদিকদের সাধারণ নিভৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে মনোবল বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।

সাংবাদিকদের আর্থিক নিরাপত্তার বিষয়টি স্বাধীন ও মুক্ত সাংবাদিকতার বিশাল অন্তরায়। মাস শেষে বেতন-ভাতা ঠিকমতো না পেলে স্বাধীন সাংবাদিকতা সম্ভব নয়। কিন্তু বাস্তব অবস্থা হচ্ছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সাংবাদিকরা যথোপযুক্ত বেতন-ভাতাদি পান না। এর জন্য মালিক পক্ষ দায়ী। সরকার ওয়েজ বোর্ড গঠন করে বেতন নির্ধারণ করে দেয়; কিন্তু মালিকরা তা মেনে চলেন না। গুটি কয়েক গণমাধ্যমে ওয়েজ বোর্ড কার্যকর আছে। সেগুলোতেও সব সংবাদকর্মী এর আওতাভুক্ত নন। অনেক ক্ষেত্রেই আবার চাকরির নিশ্চয়তা নেই। সিনিয়র হয়ে গেলে যেহেতু বেতন বেশি দিতে হয়, তাই বিভিন্ন অজুহাতে সাংবাদিকদের চাকরি ছাড়তে বাধ্য করা হয়। এভাবে মুক্ত, সাহসী, সৎ ও মানসম্মত সাংবাদিকতা আশা করা যায় না। যার কাছ থেকে সমাজ আলোকিত করার আশা রাখি, তার জীবন অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তায় রেখে তা সম্ভব নয়। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি নেওয়ার পর যদি বর্তমান বাজারে ১০-১২ হাজার টাকা বেতন নির্ধারণ করা হয়, সেটা কিছুতেই মানা যায় না। বাস্তবে তাই হচ্ছে নবীন ও শিক্ষানবিশ সাংবাদিকদের ক্ষেত্রে। একটি গণমাধ্যমের অনুরোধে আমার এক শিক্ষার্থীকে পাঠিয়েছিলাম সেখানে কাজের জন্য। তাকে মাসে আট হাজার টাকা বেতন নির্ধারণ করায় রাগে, ক্ষোভে দুই মাস পর চাকরি ছেড়ে দিয়েছে সে। একটি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি সম্প্রতি এক ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন- স্বনামধন্য একটি পত্রিকা তার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদককে মাসে দুই হাজার টাকার সম্মানী দেয়, যা দিয়ে তার কর্ম-সংক্রান্ত যোগাযোগের খরচ সংকুলান করা যায় না। বোঝা যায়, সংবাদকর্মীদের যৌবনের সবচেয়ে সৃষ্টিশীল সময়টুকু পার করতে হয় অবমাননাকর কঠিন চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে। মফস্বল সাংবাদিকদের বেতন কাঠামো নেই বললেই চলে। বেতন ছাড়া কীভাবে সাংবাদিকতা করা যায় এবং আর্থিকভাবে চলে যাওয়া যায়, তার একটি ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে মফস্বলের অনেক সংবাদপত্রে। এসবের পরিবর্তন দরকার মুক্ত সাংবাদিকতার জন্য।

মালিকপক্ষ এখন স্বাধীন মানসম্মত সাংবাদিকতার বড় অন্তরায়। ২৫ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে এমন একজন সাংবাদিক আমাকে জানিয়েছেন- এখন প্রেস অ্যাডভাইস পাই না। তারপরও সম্পাদকীয় স্বাধীনতা নেই। মালিকপক্ষের বিভিন্ন অজুহাতে, তদবিরে, ইচ্ছায় ও অনিচ্ছায় অনেক সংবাদ দিনের আলো দেখে না। স্বাধীন ও মুক্ত সাংবাদিকতার সূচকে ওপরে উঠতে হলে সম্পাদকীয় স্বাধীনতার বিকল্প নেই। এই প্যারামিটারে তখনই মান বাড়বে, যখন একজন যথোপযুক্ত সাংবাদিককে সম্পাদক পদে অভিষিক্ত করা হবে। ব্যবসায়ী সম্পাদক হলে ব্যবসা ভালো বুঝবেন, স্বাধীন ও মুক্ত সাংবাদিকতা নয়। এসব তার কাছে কোনো মূল্যবান বিষয় নয়, রাজনীতিবিদ সম্পাদকের কাছে সাংবাদিকতা যেমন।

তাই মালিকপক্ষকে সাংবাদিকদের আর্থিক বিষয়াদি, সেফটি ও পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে ট্রেনিংসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে এগিয়ে আসতে হবে। রাষ্ট্রের যথাযথ প্রতিষ্ঠানের সহায়তা বাড়লে স্বাধীন ও মুক্ত সাংবাদিকতা কিছুটা গতি পাবে। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, সব সাংবাদিক হত্যাকাণ্ড ও নির্যাতনের ঘটনার বিচার করা। শফিউল আলম মুকুল, শামছুর রহমান, মানিক চন্দ্র সাহা, হুমায়ুন কবীর বালু, সাগর-রুনি, গৌতম দাস ও অতি সম্প্রতি সমকাল পত্রিকার শাহজাদপুর প্রতিনিধি আবদুল হাকিম শিমুলের হত্যাকাণ্ডের বিচারসহ সব সাংবাদিক হত্যার বিচার ত্বরান্বিত করতে হবে। সাংবাদিক হত্যার বিচার ছাড়া মুক্ত ও স্বাধীন সাংবাদিকতা চর্চার পরিবেশ তৈরি করা যাবে না, তৈরি হবে না। গণমাধ্যমের সংখ্যা বাড়িয়ে বিচারহীনতার অপবাদও ঘোচানো যাবে না। আবার সাংবাদিকতা স্বাধীন ও মুক্ত হলেই মানসম্মত হবে, এমন কোনো কথা নেই। দায়িত্বশীলতার মধ্য দিয়ে সাংবাদিকতার চর্চা, পেশার মর্যাদা, গণমাধ্যমের বিশ্বাসযোগ্যতা ও মানসম্মত সাংবাদিকতার সূচক বাড়াতে সাহায্য করবে। দায়িত্বশীলতা ও নৈতিকতার মানদণ্ডে উত্তীর্ণ সাংবাদিকতাই কেবল স্বাধীন ও মুক্ত সাংবাদিকতার অধিকার রাখে। এসব বিষয়ে সাংবাদিক সমাজের জোরালো অবস্থান প্রয়োজন।

সাংবাদিকতা একটি সামাজিক প্রেক্ষাপটে চর্চা হয়। তাই সামাজিক ব্যবস্থা ও গণমাধ্যম ব্যবস্থার মধ্যে ভারসাম্য স্থাপনে রাষ্ট্রকে কখনও কখনও দোভাষীর ভূমিকা নিতে হয়। বিভিন্ন পক্ষ উদ্দেশ্যমূলকভাবে নৈতিকতা-বিবর্জিত সাংবাদিকতার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ কখনও কখনও অবশ্যম্ভাবী করে তোলে। বৃহত্তর সামাজিক স্থিতিশীলতার অজুহাতে আরোপিত নিয়ন্ত্রণ, বাধানিষেধ আপাত গ্রহণযোগ্যতা পেলেও তা একটি দীর্ঘমেয়াদে কাঙ্ক্ষিত নয়। কারণ এ ধরনের বিধিনিষেধ রাষ্ট্রের ভেতরের অনেক শক্তিকে নিজ স্বার্থে অপরের মত দমনের সুযোগ তৈরি করে দেয়।

চেয়ারপারসন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here