মুমিনের মহাপুরস্কারের রাত

0
258

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : বছরের সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ রাত হচ্ছে লাইলাতুল কদর, যা শবে কদর নামে আমাদের সমাজে পরিচিত। এটি রমজানের শেষ দশকে কোনো একটি বেজোড় রাতে। তবে হাদিস শরিফের বর্ণনা অনুযায়ী ২৬ রমজান দিবাগত রাতটি পবিত্র লাইলাতুল কদর হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। মহিমান্বিত এ রাতের ফজিলতের সঙ্গে অন্য কোনো রাতের তুলনা হয় না।

লাইলাতুল কদর বা শবে কদর অর্থ সম্মান ও মর্যাদাপূর্ণ রাত। বছরের যে কটি দিন ও রাত বিশেষভাবে মহিমান্বিত, তার মধ্যে সর্বাপেক্ষা উত্তম ও ফজিলতপূর্ণ এই শবে কদর। পবিত্র রমজানের এ রাতে লাওহে মাহফুজ থেকে নিম্ন আকাশে মহাগ্রন্থ আল কোরআন অবতীর্ণ হয়। কোরআন নাজিলের মাস হিসেবে রমজান যেমন বিশেষ মর্যাদায় ভূষিত, তেমনি কোরআন নাজিলের কারণেই শবে কদর অতি ফজিলত ও তাৎপর্য বহন করে। কোরআনে বলা হয়েছে, ‘তুমি জান লাইলাতুল কদর কী? লাইলাতুল কদর হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম। সে রাতে ফেরেশতারা ও রূহ (জিবরাইল) তাদের রবের অনুমতিক্রমে সব সিদ্ধান্ত নিয়ে অবতরণ করেন।’

অসংখ্য হাদিসে শবে কদরের ফজিলত ও তাৎপর্য ব্যাখ্যা করা হয়েছে। প্রিয়নবী (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি লায়লাতুল কদরে ঈমানের সঙ্গে সওয়াব লাভের আশায় ইবাদত করে তার পূর্ববর্তী গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।’ রাসুলুল্লাহ (সা.) পুরো রমজান, বিশেষত রমজানের শেষ দশকে লাইলাতুল কদরের অন্বেষায় ব্যাকুল হয়ে ওঠতেন। পরিবার-পরিজন এবং সাহাবায়ে কেরামকেও লাইলাতুল কদর তালাশ করতে বলতেন।

লাইলাতুল কদর উম্মতে মোহাম্মদির বিশেষ বৈশিষ্ট্য। আর কোনো নবীর উম্মতকে এ ধরনের ফজিলতপূর্ণ রাত বা দিন দান করা হয়নি। আগের যুগের উম্মতেরা অনেক আয়ু পেতেন। সে জন্য তারা অনেকদিন ইবাদত করারও সুযোগ পেতেন। সে তুলনায় উম্মতে মোহাম্মদির আয়ু নিতান্তই কম। এজন্য আল্লাহতায়ালা তার বিশেষ দয়ায় মহানবীর (সা.) উম্মতকে মহিমান্বিত এ রাত দান করেছেন। যারা এ রাতে ইবাদত করে কাটাবেন তাদের জন্য রয়েছে মহাপুরস্কার।

এ রাতে নির্দিষ্ট কোনো ইবাদত নেই। তবে শবে কদরে ইবাদতের প্রস্তুতি হিসেবে গোসল করা সওয়াবের কাজ। মাগরিবের নামাজের পর দুই রাকাত নফল নামাজের কথা বলা হয়েছে। এ রাতে তারাবি তো পড়তে হবেই; তাহাজ্জুদের নামাজও গুরুত্বের সঙ্গে পড়তে হবে। এ ছাড়া সালাতুল তওবা, সালাতুল হাজত, সালাতুল তাসবিহ নামাজও পড়া যায়। এই রাতে কোরআন তেলাওয়াতের বিশেষ ফজিলত রয়েছে। পবিত্র এই রাতেই মহাগ্রন্থ আল কোরআন অবতীর্ণ হয়। এজন্য কোরআনের সঙ্গে এই রাতের সম্পর্ক ওৎপ্রোত। অন্য যেকোনো সময়ের তুলনায় এ রাতের তেলাওয়াতের ফজিলত বেশি।

আত্মসমালোচনা বা আত্মবিচার এ রাতের বিশেষ আমল। আমরা নিজেই নিজের পর্যালোচনা করি জীবনের ফেলে আসা দিনগুলোতে আল্লাহর কতগুলো বিধান অমান্য করেছি। আল্লাহর ফরজ ও ওয়াজিবগুলো কতটা পালন করেছি এবং তা কতটা নিষ্ঠার সঙ্গে করেছি। ইচ্ছায় ও অনিচ্ছায় কী কী বড় গোনাহ আমরা করে ফেলেছি। এ রাতে নীরবে-নিভৃতে এ বিষয়গুলো ভাবতে হবে।

এই রাতে আল্লাহর কাছে বেশি বেশি চাইতে হবে। এ রাতের মোনাজাত আল্লাহর কাছে কবুল হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। মানুষ আল্লাহর কাছে যত চায় আল্লাহ তত খুশি হন। কাজেই এ রাতে আমরা কায়মনোবাক্যে আল্লাহর দরবারে মোনাজাত করবো, ক্ষমা চাইব, রহমত চাইব, জাহান্নাম থেকে মুক্তি চাইব। মনের আবেগ নিয়ে চাইব। চোখের পানি ফেলে চাইব। আল্লাহ আমাদের হাত খালি হাতে ফেরাবেন না। যথাযথ ইবাদত-বন্দেগির মধ্যে কাটাতে পারলে একটি রাতই হতে পারে আমাদের জীবনে সাফল্যের কারণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here