মেঘে ঢাকা ‘অমর একুশে’

0
376

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম : কালো মেঘে অনেকটাই আজ ঢাকা পড়ে যাচ্ছে ‘একুশের’ অমরত্ব ও বিশ্বজনীনতা। ‘একুশের’ জীবনী শক্তি যখন লুপ্ত হওয়ার পথে তখন নিশ্চুপ বসে থাকার সুযোগ নেই। ‘একুশের’ জীবনী শক্তিকে রক্ষা করতেই হবে। প্রশ্ন হলো, কী ছিল তার সেই অমর জীবনী শক্তি?

ইতিহাস কখনো একনাগাড়ে সোজা সরল মসৃণ পথ ধরে চলে না। চলতে চলতে তাতে রচিত হয় বিপ্লবী উল্লম্ফনের অধ্যায়। কালের যাত্রাপথে এমন কিছু দিনের আগমন ঘটে যা হয়ে ওঠে ‘চলতি হাওয়ার’ মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো ক্ষণ। তা তখন হয়ে ওঠে ‘ঐতিহাসিক দিন’। পরবর্তী ইতিহাস রচনায় প্রেরণা ও দিকনির্দেশনা প্রদানের উত্স রূপে তা জীবন্ত থাকে। তেমনই একটি দিন হলো বাঙালির ‘অমর একুশে’।

একুশের ফেব্রুয়ারিকে আমরা ‘শহীদ দিবস’ বলে আখ্যায়িত করে থাকি। সেদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিক্যাল কলেজ চত্বরে সংগ্রামরত ছাত্রসমাজের ওপর পাকিস্তানের পুলিশ বাহিনী নির্বিচার হামলা, লাঠিচার্জ ও গুলি চালিয়েছিল। ছাত্রদের বুকের রক্তে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হয়েছিল। গুলিতে মাথার খুলি উড়ে গিয়েছিল, বুক ঝাঁজরা হয়েছিল। ছেলেকে খাওয়াবে বলে ‘কুমড়ো ফুল তুলে রাখা’ অপেক্ষমাণ মায়ের বুক খালি করে হাহাকার জাগিয়ে তুলেছিল বাঙালির ঘরে ঘরে। শহীদ হয়েছিল সালাম, রফিক, জব্বার, বরকত, শফিউর। এই চিরঞ্জীব শহীদদেরকে জাতি ৬৫ বছর ধরে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছে। তবে কথা হলো, শুধু কি ‘ছেলেহারা কতো মায়ের অশ্রু’ দিয়ে রাঙানো হওয়ার কারণে একুশে ফেব্রুয়ারি ‘শহীদ দিবস’ হিসেবে অমর হয়েছে? বায়ান্নর আগে-পরে এবং এখনো, ছোট-বড় সংগ্রামে কতো শহীদ জীবন বিলিয়ে দিয়েছে ও দিচ্ছে। সব শহীদের মৃত্যুই শোকের, বেদনার। সব শহীদদের প্রতিই জাতির শ্রদ্ধা-সম্মান সুগভীর। তাহলে নিশ্চয়ই একুশে ফেব্রুয়ারির অমরত্বের উত্স শুধু সেদিনের ঘটনাবলির শোকের মধ্যে নিহিত নেই। তার উত্স হলো অন্যত্র। কোথায় রয়েছে সেই অমরত্বের উত্স? ‘একুশের’ সেই অমরত্বের উত্স হলো সেদিনের সেই সংগ্রামের ঐতিহাসিক সন্ধিক্ষণ ও তার দাবির অন্তর্নিহিত তাত্পর্যে।

একুশে ফেব্রুয়ারি ছিল বায়ান্নরও চার বছর আগে আটচল্লিশে সূচিত ভাষা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় সংগঠিত একটি অনন্য সাড়া-জাগানিয়া উপাখ্যান। একটি বড় আন্দোলনের ধারাবাহিকভাবে প্রবাহিত পর্বে গ্রথিত থাকে খণ্ড খণ্ড সংগ্রামের অসংখ্য উপাখ্যান। সেসব সংগ্রামের উপাখ্যানগুলোর মধ্যে কোনো একটি অনন্যতা অর্জন করে তার ‘মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার সক্ষমতার’ কারণে। সেটি তখন সমগ্র আন্দোলনের প্রতিনিধিত্বশীল প্রতীকের স্থান করে নেয়। বাংলা হলো বাঙালির মাতৃভাষা। বহু যুগ ধরেই এই ভাষায় মা-কে মা বলে ডেকেছে বাঙালি জাতি। সেই ঘোষণার বিরুদ্ধে বিদ্রোহে গর্জে উঠেছিল বাঙালি। সেই বিদ্রোহের পর্যায়ক্রমিক প্রবাহে রচিত হয়েছিল একুশের শহীদ দিবসের উপাখ্যান।

সেভাবেই ‘একুশে’ হয়ে উঠতে পেরেছে বাঙালির সমগ্র ‘ভাষা আন্দোলনের’ প্রতীকী দিন। আরো এক ধাপ এগিয়ে, তা আজ পরিণত হয়েছে বিশ্বের সব জাতির সব মানুষের ভাষার অধিকারের প্রতীকী দিন।

সেদিনের সংগ্রাম মোটেও বাংলা ও উর্দুর মধ্যে কোনো ভাষা দাঙ্গার ঘটনা ছিল না। ‘রাষ্ট্রভাষা’ আন্দোলনের দাবি ছিল— বহুজাতিক রাষ্ট্র পাকিস্তানের ‘অন্যতম’ রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলা ভাষাকে আইনগত স্বীকৃতি দিতে হবে। কারণ, বাংলা হলো পাকিস্তানের নাগরিকদের বৃহত্তম অংশ বাঙালির মাতৃভাষা। উগ্র জাত্যাভিমান ও সংকীর্ণ জাতীয়তাবাদী ফ্যাসিসুলভ চিন্তা নিয়ে যদি সেদিনের সে সংগ্রাম পরিচালিত হতো তাহলে দাবি উঠতো যে বাংলাকে পাকিস্তানের ‘একমাত্র’ রাষ্ট্রভাষা করতে হবে। কিন্তু বাংলাকে ‘একমাত্র’-এর বদলে ‘অন্যতম’ রাষ্ট্রভাষা করার দাবি করা হয়েছিল।

‘অন্যতম’ ও ‘একমাত্র’—এ দুয়ের মাঝে পার্থক্যের বিষয়টি মোটেও হালকা কোনো বিষয় নয়। বাংলাকে ‘অন্যতম’ রাষ্ট্রভাষা করার দাবি তোলার মাধ্যমে ভাষা আন্দোলনকে সংকীর্ণ ও উগ্র জাতীয়তাবাদের চোরাবালিতে ডুবে যাওয়ার বিপদ থেকে রক্ষা করে তাতে গভীর সর্বজনীন গণতান্ত্রিক অধিকারবোধ ও প্রগতিবাদী চরিত্র সন্নিবেশিত করা সম্ভব হয়েছিল। প্রতিটি জাতির জাতীয় স্বকীয়তা, আত্মমর্যাদা ও আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারের নিশ্চয়তা বিধানের গণতান্ত্রিক নীতি-আদর্শের ওপর দাঁড়িয়েই ভাষা আন্দোলন পরিচালিত হয়েছিল। এভাবে, ভাষা আন্দোলনের গতিমুখ স্বতঃস্ফূর্তভাবে প্রবাহমান হয়েছিল বিশ্বব্যাপী চলতে থাকা সাম্রাজ্যবাদ-উপনিবেশবাদবিরোধী ‘জাতীয় মুক্তি আন্দোলনের’ ধারায়। এর ফলে বাঙালির পরবর্তী গণসংগ্রামগুলোও অর্জন করতে পেরেছিল সেই গতিমুখিনতা। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধেও সেই গতিমুখিনতা আরো গভীরভাবে প্রবিষ্ট থাকার পথ করে নিতে সক্ষম হয়েছিল।

বাঙালির ভাষা আন্দোলনে ও বায়ান্নর ‘একুশের’ গভীরে প্রোথিত ছিল প্রত্যেক জাতিসত্তার স্বাধীন আত্মপ্রতিষ্ঠার গণতান্ত্রিক অধিকার ও বৈচিত্র্যপূর্ণ বহুমাত্রিকতায় মানব সভ্যতাকে বিকশিত করার স্পষ্ট প্রত্যয়। ‘একুশের’ এই বিশ্বজনীন গণতান্ত্রিক মর্মবাণীর কারণেই আজ একুশে ফেব্রুয়ারি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ রূপে বিশ্ব সভায় মর্যাদা লাভ করেছে। বাঙালির রক্তে রাঙানো ‘একুশে’ এভাবেই বাঙালির একান্ত নিজস্ব জাতীয়তার গণ্ডি অতিক্রম করে বিশ্ব সভ্যতার সম্পদ হয়ে উঠতে পেরেছে।

বাঙালি জাতির জন্য ভাষা আন্দোলন ছিল সাংস্কৃতিক, সামাজিক, মতাদর্শিক ইত্যাদি ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক। তা ছিল, এসব ক্ষেত্রে একটি মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো ঐতিহাসিক ঘটনা। বায়ান্নর মাত্র কয়েক বছর আগে পূর্ববাংলার ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ ধর্মভিত্তিক জাতীয়তাবাদ ও পাকিস্তানের প্রতিক্রিয়াশীল দ্বি-জাতিতত্ত্বের দ্বারা বিভ্রান্ত ও মোহাচ্ছন্ন হয়েছিল। ভাষার অধিকারের প্রশ্নে জন্ম নেওয়া ‘একুশের’ সেই উপাখ্যানের ফলে বাঙালি জনগণের মনোজগতে সৃষ্টি হওয়া সাময়িক বিভ্রান্তির ‘পাকিস্তানি কালো মেঘ’ দ্রুত কাটতে শুরু করেছিল। সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্পে যারা প্রায় পরিপূর্ণ আচ্ছাদিত হয়ে পড়েছিল, তাদের সেই ভুল ভাঙতে শুরু করেছিল। ‘ধর্মভিত্তিক’ জাতি পরিচয়ের প্রতিক্রিয়াশীল ও সাম্প্রদায়িক চিন্তার চোরাবালি থেকে বেরিয়ে এসে বাঙালি জাতি ফিরে আসতে শুরু করেছিল ‘ভাষাভিত্তিক’ জাতির পরিচয়ের চিন্তায়। ‘একুশে’ ছিল একটি তোলপাড় সৃষ্টি করতে পারা ‘ঘুম-জাগানিয়া’ উপাখ্যান। নতুন করে পুনর্জাগরিত হয়েছিল বাঙালির জাতীয় চেতনা। ‘একুশে’ ছিল একাধারে সেই জাগরণের ফসল এবং একই সঙ্গে তার মূল কর্ষকও। ‘একুশেতে’ যে চেতনার উন্মেষ, ‘একাত্তরে’ সেটিই পরিণতি লাভ করেছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে। সে কারণেই ‘একুশের’ আবেদন ও তাত্পর্য অনন্য।

‘একুশের’ বা ‘ভাষা আন্দোলনের’ সঙ্গে সরাসরিভাবে ভাষা, সংস্কৃতি, চেতনা ও আদর্শের বিষয়গুলো জড়িত ছিল। কিন্তু তার পেছনের চালিকারূপে ছিল অর্থনৈতিক স্বার্থের প্রশ্ন। পাকিস্তানি শাসকরা শুরু থেকেই পূর্ববাংলাকে শোষণের লীলাক্ষেত্র বানিয়ে তার উপর ঔপনিবেশিক ধরনের শোষণ চাপিয়ে দেওয়ার পথ গ্রহণ করেছিল। জাতিগতভাবে অর্থনৈতিক শোষণ চালাতে হলে রাজনৈতিক আধিপত্য নিশ্চিত করাটি একটি আবশ্যিক শর্ত। একটি জাতির ওপর রাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে সহজ পথ হলো, পদানত জাতির জাতিগত আত্মপরিচয় ও সত্তাকে বিলুপ্ত করা বা তাকে অন্তত প্রশ্নবিদ্ধ, খর্বিত, বিকৃত অথবা দুর্বল করে রাখা। সে কারণে, প্রথম দিন থেকেই বাঙালির জাতিগত আত্মপরিচয় ও অস্তিত্বের বিরুদ্ধে পাকিস্তানি শাসকরা আঘাত হানার পথ গ্রহণ করেছিল। যে কোনো জাতির আত্মপরিচয় ও অস্তিত্বের একটি প্রধান স্তম্ভ যেহেতু তার নিজস্ব ভাষা, তাই বাঙালির ভাষার ওপর সবচেয়ে আগে তারা আঘাত হেনেছিল।

পাকিস্তানি শাসকরা উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করার ঘোষণার মাধ্যমে এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চেয়েছিল। উর্দুকে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করে তারা একদিকে বাঙালির জাতীয় আত্মপরিচয়কে ধ্বংস এবং অন্যদিকে সরকারি পদে ও রাষ্ট্র-সমাজের নিয়ন্ত্রণমূলক জায়গাগুলোতে বাংলা ভাষাভাষীদের জন্য অনতিক্রম্য প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে চেয়েছিল। এটিই ছিল পাকিস্তানি শাসকদের ষড়যন্ত্রমূলক পরিকল্পনা। তাদের পক্ষে এই পথ গ্রহণ করা সহজ হয়েছিল এ কারণে যে, পাকিস্তান আন্দোলন ও পাকিস্তান রাষ্ট্রের ভিত্তি ছিল ‘ধর্মভিত্তিক জাতির’ প্রতিক্রিয়াশীল তত্ত্ব।

পাকিস্তানের শাসকদের যুক্তি ছিল নিম্নরূপ। জাতি হিসেবে পাকিস্তানের সব ভাষাভাষী মানুষই হলো ‘মুসলমান’ জাতিভুক্ত। তাই, বাঙালি জাতি বা বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রশ্ন তোলা হলো অবান্তর। আর ‘মুসলমান’ হিসেবে সবাই যেহেতু এক জাতি, সে কারণে তাদের রাষ্ট্র পাকিস্তানের ভাষাও একই হওয়া বাঞ্ছনীয়। কী হতে পারে সেই সাধারণ ভাষা? নিশ্চয়ই তা বাংলা নয়। কারণ হিন্দুদের ব্যবহূত সংস্কৃত ভাষা থেকে বাংলা ভাষার উদ্ভব হয়েছে। বাংলা বর্ণমালার উদ্ভবও ঘটেছে সংস্কৃত থেকেই। অন্যদিকে, উর্দু বর্ণমালার প্রায় সমপ্রকারের হলো আরবি বর্ণমালা। আর আরবি হলো পবিত্র কোরআনের ভাষা। তাই, কেবল উর্দুই পাকিস্তানের ‘মুসলিম জাতির’ জন্য গ্রহণযোগ্য ভাষা হওয়ার যোগ্যতা রাখে।

একদিকে অর্থনৈতিক আধিপত্যের লোভ ও অন্যদিকে সাম্প্রদায়িক দ্বি-জাতিতত্ত্বের প্রতিক্রিয়াশীলতা— উভয় দিক থেকে বাঙালির ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, জাতীয় আত্মপরিচয় ও অস্তিত্ব, জাতীয় অর্থনীতি, জীবনযাত্রার উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক স্বার্থ— সবকিছুর বিরুদ্ধে পাকিস্তানি শাসকরা মরণ আঘাত হানতে শুরু করেছিল। ভাষা আন্দোলন ছিল এই আঘাতের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের মশাল। একুশে ছিল সেই প্রতিরোধ সংগ্রামের দুর্জয় বিস্ফোরণের এক মোড় ঘুরিয়ে দেয়ার মতো মহান দিন। কিন্তু প্রশ্ন হলো, একুশের সেই জীবনী শক্তিকে আমরা কতোটা সজীব রাখতে পেরেছি? ‘একুশে’ পালনের আনুষ্ঠানিকতার ক্ষেত্রে আজ আর নেই সেই কাকডাকা ভোরে গলায় হারমোনিয়াম ঝুলিয়ে গান গাইতে গাইতে এগিয়ে চলা নগ্নপদের প্রভাত ফেরি। পাকিস্তানের যুগ এখন বিদায় নিয়েছে ঠিকই। কিন্তু সাম্রাজ্যবাদ-আধিপত্যবাদ আমাদের উপর আরো শক্ত করে চেপে বসেছে। অর্থনৈতিক শোষণের নিগড়ে দেশ ও জাতিকে বেঁধে ফেলেছে। সেই সূত্রে বাঙালির ভাষা সাহিত্য সংস্কৃতি ইত্যাদির উপরেও নেমে আসছে আগ্রাসন-আঘাত-হামলা। হারিয়ে গেছে কোটি কণ্ঠে উচ্চকিত ‘সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু কর’ শ্লোগানের বাস্তবায়ন। সর্বত্র আজ নতুন ‘রাজভাষা’ ইংরেজির দাম্ভিক বিস্তার। সঙ্গে চলছে ‘বাংলিশ’ ও পাশ্চাত্য সংস্কৃতি-জীবনাচারের কৃত্রিম অনুপ্রবেশ। হিন্দি সিরিয়ালের দাপটও কম নয়।

যেটি সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ঘটনা হিসেবে উদয় হয়েছে তা হলো— ‘একুশের’ সার্বজনীনতা ও তার অসাম্প্রদায়িকতা আজ এদেশেই কালো মেঘে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে। এদেশের যেসব নাগরিক বাঙালি জাতিভুক্ত নয় সেসব আদিবাসী ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষের নিজস্ব ভাষা-সংস্কৃতি-জীবনাচার আজ হামলা ও হুমকির মুখে। যে জাতি ‘সব জাতির ভাষার অধিকারের’ নীতি-দর্শনকে অবলম্বন করে একুশের অমর উপাখ্যান রচনা করেছিল, নিজেরা সে অধিকার পাওয়ার পর তারা এখন অন্য জাতির অনুরূপ অধিকারকে হরণ করছে! এর চেয়ে বড় লজ্জার কী হতে পারে? সবচেয়ে ধিক্কারের যে ঘটনা তা হলো, চোরাগুপ্তা পথে তো বটেই, এমনকি আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারি ছত্রছায়ায় পাঠ্যবই, শিক্ষা ব্যবস্থা, সংস্কৃতি, সামাজিক মনস্তত্ত্ব ইত্যাদি সর্বত্র সাম্প্রদায়িকীকরণের বিস্তার ঘটে চলেছে। স্কুলের পাঠ্যবইয়ের ‘হেফাজতিকরণের’ সাম্প্রতিক ঘটনা তার নিদর্শন বহন করছে। এসব ঘটনা একুশের মহান শহীদদের মর্যাদার প্রতি চরম পদাঘাত!

কালো মেঘ এসে ঢেকে ফেলছে ‘অমর একুশের’ জীবনীশক্তিকে। এই আগ্রাসনকে রুখতে হবে। তাই আজ বুলন্দ আওয়াজ তুলতে হবে— সেই লড়াইয়ের জন্য ‘জোট বাঁধো, তৈরি হও’!

লেখক : সভাপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here