মোড়লিপনার দিন শেষ হইয়া আসিতেছে

0
446

তরঙ্গ উঠিয়া সেই তরঙ্গ আবার মিলাইয়াও যায়। আলো-আঁধার, উদয়-অস্ত, জয়-পরাজয় এই জগতের নিত্য ঘটনা। পরাশক্তির ক্ষেত্রেও ইহা প্রযোজ্য বটে। ব্রিটেনের সাম্রাজ্যবাদ নিয়া এই প্রবাদ চালু ছিল যে, ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে সূর্য কখনো অস্ত যায় না। অর্থাত্ দিবারাত্রির ২৪ ঘণ্টার পৃথিবীতে ব্রিটিশের অধীনস্থ ভূখণ্ড বিশ্বব্যাপী এমনভাবে ছড়াইয়া ছিটাইয়া ছিল যে, এক স্থানে রাত্রি নামিয়া আসিলেও অন্যস্থানে সূর্যালোক খেলিয়া বেড়াইত। সেই সাম্রাজ্যবাদেরও সূর্যের অস্ত ঘটিল এক সময়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের প্রভাব হ্রাস পাইতে থাকিলে পরাশক্তি হিসাবে আমেরিকার উত্থান শুরু হয়। এইসময় প্রায় ৪৫ বত্সর ধরিয়া স্নায়ুযুদ্ধ চলিতে থাকে যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যে। সেই সময়টিতে বিশ্ব-ব্যবস্থা অন্তত কিছুকালের জন্য হইলেও দ্বি-কেন্দ্রিক নিয়ন্ত্রণে ছিল। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর অবসান ঘটে শীতল যুদ্ধের এবং একক ও অপ্রতিদ্বন্দ্বী পরাশক্তি হিসাবে উন্মেষ ঘটে আমেরিকার; যেমনটি ঘটিয়াছিল রোমান অথবা বৃটিশ সাম্রাজ্যের সমৃদ্ধিকালে।
বর্তমানে এক মেরুর বিশ্ব হইতে বহু মেরুর বিশ্বে রূপান্তর এবং নূতন নূতন শক্তির বিকাশের মধ্য দিয়া পরিবর্তন ঘটিয়া চলিয়াছে বিশ্বের ভূ-রাজনৈতিক মানচিত্রের। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, নূতন পরাশক্তির প্রভাববলয়ে থাকা একটি জনপদ কখনো পূর্বের পরাশক্তি নির্দেশিত নিয়মে আর পরিচালিত হইতে পারে না। যে কারণে গণতান্ত্রিক পরাশক্তিকেও আমরা বহুক্ষেত্রে স্বৈরতান্ত্রিক আচরণ করিতে দেখিয়াছি। তবে সম্প্রতি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক অর্থে দর্পণে নিজেদের বর্তমান অবস্থান নির্ণয় করিতে চাহিতেছেন। তিনি প্রায়শই এই কথা উচ্চারণ করিতেছেন যে, তিনি বিশ্বের প্রেসিডেন্ট নহেন, কেবল আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। নির্বাচনের পূর্বে তিনি নিজের দেশকে তৃতীয় বিশ্বের সহিতও তুলনা করেন। অর্থাত্ নানা বাস্তবতায় বিশ্ব মোড়লিপনা হইতে নিজেদের গুটাইতে চাহে আমেরিকা। কিন্তু এতদিনের অভ্যাসের পরিবর্তন কি এত সহজ? সম্প্রতি উত্তর কোরিয়া আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাইবার পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও হুঙ্কার ছাড়িতে বাধ্য হন যে, উত্তর কোরিয়ার আয়ু আর বেশি বাকি নাই। উত্তর কোরিয়াও পাল্টা হুঙ্কার দিয়া বলিয়াছে, উত্তর কোরিয়া চাহিলে যুক্তরাষ্ট্রকে মাটির সহিত মিশাইয়া দিতে পারে। বিশ্লেষকরা মনে করেন, প্রকৃত পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু হইলে অপূরণীয় মূল্য চুকাইতে হইবে সকল পক্ষকে, সুতরাং এই বোকামি এখন কেহই আর করিবে না। বরং পরমাণু অস্ত্র এমন এক তুরুপের তাস যাহা যতখানি যুদ্ধের জন্য প্রয়োজন, তাহা অপেক্ষা অধিক প্রয়োজন নিজেকে রক্ষার জন্য। অনেক বিশ্লেষকই মনে করেন, এই তাস সীমিত হস্তে থাকিলেই বরং বিশ্বের শক্তির ভারসাম্যহীনতা বহাল থাকিবে। সুতরাং পরাশক্তির বুঝিতে হইবে—অন্যের ঘরে ঢুকিয়া অশান্তি ও অনধিকার চর্চার কাল অতিক্রান্ত হইয়া গিয়াছে। এখন দর্পণে নিজেদের দেখিবার সময়। এইসকল মোড়লের দেশের অধিকাংশ মানুষ জানেন না তাহাদের দেশের বাহিরে আসলে কী ঘটিতেছে এবং তাহাতে তাহাদের ভূমিকাই-বা কী? বাক-স্বাধীনতার কথা বলা হইলেও অবাধ তথ্যপ্রবাহ সেখানে নানা প্রতিবন্ধকতার শিকার হইতেছে। অতএব, মোড়লিপনার মাধ্যমে অন্যের ঘুম কাড়িয়া নিবার দিন শেষ হইয়া আসিতেছে। এখন নিজে সুখে থাকিবার দিন, অন্যকেও সুখে থাকিতে দিবার দিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here