ম্যানচেস্টার হামলাকারীর নাম সালমান আবেদি

0
349

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার অ্যারেনায় মার্কিন পপ গায়িকা অ্যারিয়ানা গ্রান্ডের কনসার্টে সন্দেহভাজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীর নাম সালমান আবেদি বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ পুলিশ।সোমবার রাতের ওই হামলায় শিশুসহ অন্তত ২২ জন নিহত হন, আহত হন অন্তত ৫৯ জন। খবর বিবিসির।

২২ বছরের সালমান ম্যানচেস্টারেই জন্মগ্রহণ করেন এবং লিবিয়া কমিউনিটিতে বেড়ে উঠেন। তার পরিবার লিবিয়া থেকে ব্রিটেনে পাড়ি জমিয়েছিলেন। তারা লিবিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মুয়াম্মার গাদ্দাফির প্রচণ্ড বিরোধী ছিলেন।

তার স্কুলের এক বন্ধু জানিয়েছেন, সালমান তিন সপ্তাহ আগে লিবিয়া চলে গিয়েছিল। দিন কয়েক আগে সে আবার ব্রিটেনে আসে।

সালমানের বড় ভাই ইসমাইল ডিডসবারি মসজিদ কোরআন স্কুলের একজন শিক্ষক।

তিনি গতকাল মঙ্গলবার জানান, সালমান ইসলামিক পোশাক পরিহিত ছিল। সে ইসলামিক স্টেট(আইএস)’র ভয়াবহতা সম্পর্কে সতর্ক করেছিল তখন তার চেহারায় একটা বিদ্বেষ ভাব ফুটে উঠেছিল।

চার ভাই-বোনের মধ্যে সালমান দ্বিতীয়। ১৯৯৪ সালে ব্রিটেনেই তার জন্ম। সালমানের মা-বাবা গাদ্দাফি থেকে বাঁচতে ব্রিটেনে শরণার্থী হয়ে পালিয়ে এসেছিল।

গ্রেটার ম্যানচেস্টারের পুলিশ বলছে, সালমান আবেদি এই হামলা একা চালিয়েছে না কী তার আরও কোনো সহযোগী ছিল সেটাই এখন তাদের অনুসন্ধানে অগ্রাধিকার পাচ্ছে।

ম্যানচেস্টোরে কয়েকটি জায়গায় থেকেছেন আবেদি। এর মধ্যে রয়েছে এলসমোর রোড এবং ফলোফিল্ডের বাড়িও। যেখানে পুলিশ তল্লাশি চালিয়েছে।

বিবিসির নিরাপত্তা সংবাদদাতা ফ্রাঙ্ক গার্ডনার বলছেন, ভয়ের বিষয় হচ্ছে, সালমান বোমা তৈরির দিকনির্দেশনা ব্রিটেনেই বা লিবিয়াতে পেয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, সালমান আবেদি অ্যারেনার প্রেক্ষাগৃহের চত্বরে ব্রিটিশ সময় রাত সাড়ে দশটার পর বোমা ফাটিয়ে আত্মঘাতী হয়। সেসময় মার্কিন সংগীতশিল্পী অ্যারিয়ানা গ্রান্ডের কনসার্ট শেষে তার ভক্তরা হল ছেড়ে বের হতে শুরু করেছিল।

আহতরা শহরের আটটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। এদের মধ্যে ১৬র কমবয়সী ১২জন শিশু রয়েছে।বহু মানুষ এখনও নিখোঁজ।এ পর্যন্ত তিনজন নিহতের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। এদের মধ্যে সাফি রোজ রুসসের বয়স ৮।নিহত আট বছরের সাফি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিল। আর নিহত জর্জিনা কলেজ ছাত্রী।

প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে তার বাসভবন ডাউনিং স্ট্রিট থেকে এক বিবৃতিতে বলেছেন এই বোমা হামলা একটা “নির্মম সন্ত্রাসী হামলা” যার লক্ষ্য ছিল “অসহায় শিশু কিশোর।”

ম্যানচেস্টারের আলবার্ট স্কয়ারের টাউন হলে নিহতদের স্মরণে চলছে মোমবাতি মিছিল।

যুক্তরাজ্যে ২০০৫ সালে ৭ জুলাই চালানো সন্ত্রাসী হামলার পর এটাই সবচেয়ে বড়ধরনের আত্মঘাতী হামলা। ২০০৫ এর হামলায় মারা গিয়েছিল ৫২ জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here