যক্ষ্মা প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে যশোরের সংস্কৃতিসেবীদের সাথে মতবিনিময়

0
225

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ‘এখনই সময় অঙ্গিকার করার, যক্ষ্মা মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যশোরের সংস্কৃতিসেবীদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়েছে। যক্ষ্মা প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি (নাটাব) যশোর জেলা শাখার উদ্যোগে বুধবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় যক্ষ্মা প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার প্রয়োজন ও গুরুত্ব বিবেচনায় করণীয় বিষয়সহ যক্ষ্মা কি, যক্ষ্মার লক্ষণ, যক্ষ্মা কিভাবে প্রতিরোধ করা যায়, কিভাবে যক্ষ্মা রোগের চিকিৎসা নিতে হয়, চিকিৎসার ব্যয় প্রভৃতি বিষয়ের প্রতি আলোকপাত করেন যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের কনসালটেন্ট ডা. সৈয়দ জিজিএ কাদরী ও যশোর টিবি ক্লিনিকের কনসালটেন্ট ডা. পলাশ কুমার নাথ। সভাপতিত্ব করেন নাটাবের যশোর জেলা শাখার সভাপতি অ্যাড. জাফর সাদিক।
চিকিৎসকরা সভায় জানান, একসময় যক্ষ্মা একটি ভয়ানক ব্যধি ছিল। তখন বলা হতো ‘যক্ষ্মা হলে রক্ষা নাই’। কিন্তু বর্তমানে যক্ষ্মা রোগ নিরাময়যোগ্য এবং এ রোগের চিকিৎসা সহজলভ্য। নিয়মিতভাবে ৬ মাস, কোনো কোনো ক্ষেত্রে ৮ মাস চিকিৎসা নিলে যক্ষ্মা ভালো হয়। কিন্তু যক্ষ্মাক্রান্ত রোগী অনিয়মিতভাবে ওষুধ সেবন করলে যক্ষ্মা সাময়িকভাবে হয়তো ভালো হবে। কিন্তু পরবর্তীতে পুরনায় যক্ষ্মায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে বেশি। তখন কিন্তু সাধারণ চিকিৎসায় যক্ষ্মা ভালো হওয়ার সম্ভাবনা কম। এমনকি দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসায় যক্ষ্মা ভালো হবে, তারও নিশ্চয়তা থাকবে না। তখন যক্ষ্মাক্রান্তরোগীর চিকিৎসা ব্যয় বেড়ে যায় অনেক। এজন্য যক্ষ্মা হলে পুরোপুরি নিরাময় হতে হলে চিকিৎসকের পরামর্শমত নিয়মিতভাবে ওষুধ সেবন করতে হবে।
বাংলাদেশে যক্ষ্মারোগের পরিস্থিতি বিষষে সভায় বলা হয় ২০১৭ সালের জরিপ অনুযায়ী প্রতিবছর বাংলাদেশে প্রতি এক লাখে যক্ষ্মারোগীর সংখ্যাবৃদ্ধি পায় ২২১ জন। আর প্রতিবছর বাংলাদেশে প্রতি এক লাখে যক্ষ্মার কারণে মৃত্যুবরণ করেন ৩৬ জন। সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাব যশোর ও নন্দন যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন। সংস্কৃতিসেবীদের মধ্যে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন ও উপস্থিত ছিলেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির সহসভাপতি সুকুমার দাস, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তরিকুল ইসলাম তারু, সুরধুনী সংগীত নিকেতনের সভাপতি হারুণ অর রশীদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক যোগেশ চন্দ্র দত্ত, তির্যক যশোরের সাধারণ সম্পাদক দীপংকর দাস রতন, চাঁদের হাটের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হিমাদ্রী সাহা মণি, নন্দন যশোরের সাধারন সম্পাদক ডি এইচ দিলসান, সুরবিতানের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাসুদেব বিশ্বাস, বিবর্তন যশোরের সাধারণ সম্পাদক আতিকুজ্জামান রণি, বিবর্তন আবৃত্তি স্কুলের পরিচালক এইচআর তুহিন, বিশ্ব বাবা দিবস উদযাপন পর্ষদের সদস্য সচিব প্রণব দাস। বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতির কার্যক্রম ও যক্ষ্মা বিষয়ক তথ্য উপস্থাপন করেন স্যোসাল মোবিলাইজার জাহাঙ্গীর আলম।