যবিপ্রবিতে সংঘর্ষের ঘটনা তদন্তে দুটি কমিটি, এক শিক্ষার্থী বহিষ্কার

0
97

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এছাড়া ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে বিএম সোহেল রানা নামে গণিত বিভাগের এক শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অস্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। রোববার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আনোয়ার হোসেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে (যবিপ্রবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে দুপক্ষের ১২ জন আহত হন। এদের মধ্যে তিনজন সাধারণ শিক্ষার্থীও রয়েছেন। ওই শিক্ষার্থীরা বিচার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। উপাচার্য আনোয়ার হোসেন দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। দুইটি কমিটি একটি ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ মারামারি ও অপরটি সাধারণ শিক্ষার্থীদের মারধরের বিষয়টি তদন্ত করে আগামী সাত কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ছাত্রলীগের মারামারি তদন্তের জন্য গঠিত কমিটির আহ্বায়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য ড. সৈয়দ গালিব হাসান ও সদস্য হিসেবে আছেন মার্কেটিং বিভাগের চেয়ারম্যান মেহেদী আল ইমরান হাসান। সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর হামলার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিওথেরাপি বিভাগের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া ইসলাম। এই কমিটির সদস্য সচিব সহকারী প্রক্টর তানভীর হোসেন ও সদস্য আরেকজন সহকারী প্রক্টর এস এম মনিরুল ইসলাম। এছাড়া সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর হামলার ঘটনায় গণিত বিভাগের ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সোহেল রানাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে তাকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। সোহেল রানা আগে থেকেই ক্যাম্পাসের শহীদ মশিউর রহমান ছাত্র হল থেকে বহিস্কৃত হন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, গত শনিবার ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় গঠন করা দুইটি কমিটিকে প্রতিবেদনের দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে তাৎক্ষণিকভাবে এক শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

ছাত্রলীগের কর্মী ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে ছাত্রলীগের সহসভাপতি আল মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান ও এস এম ইকরামুল কবিরের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে মৌলবাদবিরোধী একটি মিছিল শুরু হয়। মিছিল শেষে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সমাবেশ করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সমাবেশ শেষে বেলা পৌনে তিনটার দিকে আল মামুনসহ নেতা-কর্মীরা শহীদ মসিয়ূর রহমান ছাত্র হলে প্রবেশের চেষ্টা করেন। তখন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি সোহেল রানা ও সাধারণ সম্পাদক তানভীর ফয়সলের কর্মীরা হল থেকে লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ধাওয়া দেন। তারা আল মামুনকে মারধর করেন। মামুনকে মারধর করতে দেখে তদের সমর্থক আশরাফুল আলম তার মুঠোফোন বের করে ভিডিও ধারণ করতে থাকেন। তা দেখে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা আশরাফুলকেও মারধর করেন। একপর্যায়ে মামুন ও আশরাফুলকে উদ্ধার করে পুলিশি পাহারায় যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থী আশরাফুল ইসলাম ও জামিল খান আহত হন।

শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আল মামুন বলেন, ‘আমরা ক্যাম্পাসে মৌলবাদবিরোধী মিছিল ও সমাবেশ করতে গেলে সোহেল রানা ও তানভীর ফয়সালের অনুসারী ছাত্রলীগের কর্মীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে আমাদের ওপরে হামলা করে। তাঁরা আমাকে এলোপাতাড়ি মারতে শুরু করে।’ সোহেল রানা বলেন, ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি গঠনের পর সহসভাপতি আল মামুন প্রথম ক্যাম্পাসে আসেন। তিনি বহিরাগত কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে হলে প্রবেশের সময় তাঁদের এক কর্মী নৃপেন্দ্রনাথকে মারধর করেন। পরে ছাত্রলীগের কর্মীরা তাঁদের ধাওয়া দেন। এতে কয়েকজন আহত হয়।

মারামারির ঘটনায় নৃপেন্দ্রনাথ রায় বলেন, হলের রান্না শেষ না হওয়ায় বাইরে খেতে যাচ্ছিলেন। তখন বিপ্লব দে ও আল মামুন দুটি মোটরসাইকেল নিয়ে ক্যাম্পাসে আসেন, তাকে থামিয়ে তারা বলেন, ‘তুমি তো দূর থেকে এসে খুব রাজনীতি করছ।’ তারপর তিনি (নৃপেন্দ্রনাথ) একটু তর্কাতর্কি করেছেন। একপর্যায়ে তাঁরা তাঁকে চড়থাপ্পড় মারেন। তিনি থামাতে গেলে পাশে থাকা ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। এদিকে এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত করা হয়েছে।