যবিপ্রবির জিনোম সেন্টারে ২ ভারতীয়সহ তিন জনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত

0
98

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারে তিন জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের নতুন ধরণ ওমিক্রন শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই জন ভারতীয় ও একজন বাংলাদেশি নাগরিক। বুধবার যবিপ্রবির জিনোম সেন্টারে বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক জিনোম সিকুয়েন্সের মাধ্যমে করোনার নতুন এ ধরণটি শনাক্ত করে।

যবিপ্রবির অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও জিনোম সেন্টারের সহযোগী পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদ বলেন, যবিপ্রবি ল্যাবে জিনোম সিকোয়েন্সিয়ে তিনদিন সময় লাগে। ভারতীয় নাগরিকসহ মোট ১৬ জনের নমুনা সিকোয়েন্সিং করে তিন জনের নমুনাতে ওমিক্রন শনাক্ত হলো। যে ভারতীয় দুই নাগরিকের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তারা বাংলাদেশ ঘুরে ভারতে ফিরে যাবার সময় নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এদের একজনের ২ জানুয়ারি এবং অপরজনের ৫ জানুয়ারি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বাংলাদেশের নাগরিকের নমুনা নেয়া হয় ৩১ ডিসেম্বর। দেশে করোনার হঠাৎ যে দাপট, তার পিছনে ওমিক্রনের ভূমিকা রয়েছে বলে অভিমত দেন বিশিষ্ট এই অণুজীববিজ্ঞানী।

যবিপ্রবির জিনোম সেন্টার থেকে জানানো হয়, ভারতীয় দুই নাগরিকের মধ্যে একজন পুরুষ, যার বয়স ৩০ বছর এবং নারীর বয়স ৪১ বছর। তাদের মধ্যে করোনার তেমন কোনো উপসর্গ ছিল না। বাংলদেশি নাগরিক একজন পুরুষ এবং তার বয়স ২৫ বছর। যিনি স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত হয়েছেন বলে গবেষক দলটি ধারণা করছে। তার তিন দিন ধরে ঠান্ডা, গলাব্যথা ছাড়া অন্য কোনো উপসর্গ নেই। তবে করোনা ভাইরাসের নতুন এ ধরণটি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এটি করোনার ডেল্টা ধরণের চেয়ে প্রায় চারগুণ শক্তিশালী।

গবেষক দলটি জানিয়েছে, ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের নতুন এ ধরনের স্পাইক প্রোটিনে ৩০টিরও বেশি মিউটেশন বিদ্যামান। ওমিক্রন শনাক্ত হওয়া তিন জনের ডাটাটি জিএসআইডি ডাটাবেজে জমাও দেওয়া হয়েছে।

করোনার নতুন এ ধরণটি শনাক্তের বিষয়ে যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ওমিক্রন খুবই দ্রুত সংক্রমনশীল। এজন্য টিকা গ্রহণ, মাস্ক ব্যবহারসহ কঠোরভাবে করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তিনি জানান, করোনা ভাইরাসের নতুন ধরণ ওমিক্রন শনাক্তের কাজটি জিনোম সেন্টারে অব্যাহত থাকবে।
যবিপ্রবির অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও জিনোম সেন্টারের সহযোগী পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদের নেতৃত্বে করোনার নতুন এ ধরণ শনাক্তে গবেষক দলের অন্য সদস্যরা হলেন বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান ড. হাসান মো. আল-ইমরান, অণুজীববিজ্ঞন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শোভন লাল সরকার, এ এস এম রুবাইয়াতুল আলম, প্রভাষক শামিনুর রহমান, জিনোম সেন্টারের গবেষণা সহকারী প্রশান্ত কুমার দাস, আলী আহসান সেতু ও তৌকির আহম্মেদ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, এর আগে করোনা ভাইরাসের ডেল্টা ধরণটির স্থানীয় সংক্রমণের বিষয়টিও যবিপ্রবির জিনোম সেন্টারে শনাক্ত করা হলে সরকারের নানা পর্যায় থেকে আপত্তি তোলা হয়। পরবর্তীতে ডেল্টা ভেরিয়েন্টের বিষয়টি সরকারিভাবে স্বীকারও করে নেয়া হয়। তারও আগে করোনা শনাক্তের হার এই সেন্টারে বেশি এবং ল্যাবটি সঠিক ফলাফল দিতে পারছে না বলেও হৈচৈ করে একটি মহল। এক্ষেত্রেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আমেরিকার ফেডারেল সরকারের একজন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞকে এখানকার ল্যাবে পাঠায়। তিনি ল্যাবটি বিশ্বমানের এবং সব ফলাফল সঠিক বলে অভিমত দেন।