যবিপ্রবির সদ্য বিদায়ী ভিসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

0
87

নিজস্ব প্রতিবেদক : সদ্য বিদায়ী যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির ৫০টির বেশি অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন শিক্ষকদের একাংশ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির একাংশের উদ্যোগে প্রেসক্লাব যশোরে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মো: আমজাদ হোসেন।
অভিযোগে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বলেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন এর সীমাহীন দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার শেষ নেই। তিনি পছন্দসই ব্যক্তিদের দিয়ে গঠনকৃত কমিটির সুপারিশের মাধ্যমে প্রতিমাসে ৬০,০০০ টাকা উত্তোলন করে সরকারের আর্থিক ক্ষতি করেন।
সরকারি বিধিমালা লঙ্ঘন করে উপাচার্য ক্যাম্পাসে অবস্থানকালীন দিনপ্রতি মাত্র ১২৫ টাকা ভাড়া দিয়ে উপাচার্যের জন্য নির্ধারিত বাংলো সম্পূর্ণ ব্যবহার করেন এবং বাংলোর সকল সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেন
উপাচার্যের নিয়োগপত্র মোতাবেক সার্বক্ষণিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করবেন মর্মে শর্ত থাকলেও উপাচার্য প্রায়ই ক্যাম্পাসে অনুপস্থিত থাকেন। যবিপ্রবির শেখ রাসেল জিমনেসিয়াম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী উপস্থিতিতে গত ১৪/১১/২০২০ তারিখে উপাচার্য কর্তৃক যবিপ্রবি’র উচ্চমানের গবেষকদের সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক (যিনি বিশ্ব সেরা টপ ২% গবেষক হিসেবে নির্বাচিত) অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন এর নামের সাথে যবিপ্রবির উপাচার্যের নামের মিল থাকায় নিজেকে সেরা গবেষক (টপ ২% গবেষক) হিসাবে মিথ্যাচার করে শিক্ষক সমিতি-২০২০ এর নিকট থেকে সম্মাননা গ্রহণ ও নিজে মিডিয়াবাজি করেন।
যবিপ্রবির উপাচার্য যবিপ্রবিতে যোগদান করার পর থেকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে গবেষণা ভাতা হিসেবে মাসিক ৩,০০০ টাকা গ্রহণ করেন অথচ বিশ^বিদ্যালয়ের বিশ^সেরা গবেষকদের মধ্যে থাকা সত্ত্বেও শিক্ষক ড. ইমরান খান, ড. জাভেদ হোসেন খান ও ড. আমিনুল ইসলামসহ অন্যান্য সকল শিক্ষকদেরকে মাসিক গবেষণা ভাতা হিসেবে মাত্র ১৫০০ টাকা প্রদান করা হয়।
যবিপ্রবির উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে বিধি বহির্ভূতভাবে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ, পদোন্নতি প্রদান ও এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে স্থানান্তর করেন। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় উপাচার্যের সাবেক ছাত্র মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. ইকবাল কবীর জাহিদের মদদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির শর্ত অমান্য করে পিএইচডিডিগ্রিবিহীন ৩৫ বছরের অধিক বয়সে ফিরোজ কবিরকে শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক পদে নিয়োগ প্রদান করেন।

এসময় তিনি বলেন, উপাচার্য ড. আনোয়ার হোসেন তিন বছর ১১মাসে শিক্ষক, কর্মচারী নিয়োগ, বিধিবহির্ভূতভাবে পদোন্নতি প্রদান ও এক বিভাগ থেকে অন্যবিভাগে স্থানান্তর করা, ভবন নির্মাণে অনিয়ম, অনুমোদনবিহীন বিভাগ চালু করাসহ নানা অনিয়মের মাধ্যমে নিজে লাভবান হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন, দুদকসহ বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দেয়া হলেও কোন প্রতিকার মেলেনি।
তিনি আরো বলেন, উপাচার্য্য পদে থাকায় তিনি প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করতেন। কিন্তু এখন তিনি ওই পদে না থাকায় সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক ড. আব্দুর রউফ, কোষাধ্যক্ষ ড. সাহেদুর রহমান, সদস্য কিশোর কুমার, ড. ফরহাদ বুলবুল, সুমন রহমান, ড. হুমায়ুন কবীর।
প্রসঙ্গত. গত ১৯ মে উপাচার্য্য প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেন বিদায়ী সংর্বধনা নেন।