যশোরকে বিভাগ ও সিটি করপোরেশন এমপি কাজী নাবিলের

0
39

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলাকে বিভাগ ও পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করার দাবি তুলেছেন কাজী নাবিল আহমেদ। একইসঙ্গে তিনি যশোর বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করার দাবি তোলেন।

সোমবার (২০ জুন) জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ এ দাবি করেন।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, যশোর জেলাবাসীর পক্ষ থেকে দাবি করতে চাই, ব্রিটিশ-ভারতের প্রথম জেলাকে অবিলম্বে নতুন বিভাগ ঘোষণা করা হোক। যশোর পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে এবং বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করা হোক।

বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগ দলীয় এই এমপি সরকারের নানা উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি ব্যক্তি আয়করমুক্ত সীমা তিন লাখ থেকে বাড়িয়ে ৫ লাখ টাকা করার প্রস্তাব করেন।

চলমান বন্যা পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, সিলেট, সুনামগঞ্জ ও উত্তরাঞ্চলের রংপুর, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনা এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়ে আছে। সেখানে আমাদের ভাইবোনেরা কষ্টের মধ্যে আছে। তবে আমরা সৌভাগ্যবান যে এই সময় দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যিনি ১৯৯৮ সালে দীর্ঘকালের স্থায়ী বন্যা মোকাবিলা করেছেন। এবারও বন্যায় শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমাদের সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের কর্মকর্তারা ও রাজনৈতিক নেতা ও কর্মী বাহিনী বন্যাকবলিত এলাকায় নিয়োজিত আছেন, মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য। আমি তাদের সবার প্রতি সহানুভূতি জ্ঞাপন করছি। আশা করছি, আমরা এই বন্যা পরিস্থিতি শিগগিরই মোকাবিলা করতে সক্ষম হবো।

প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে তিনি বলেন, কোভিড অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় প্রত্যাবর্তনের এই বাজেট ২০০৯ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ পার করছে—একটি অভাবনীয় ও স্বর্ণালি অধ্যায়। বাংলাদেশ পরিণত হয়েছে শান্তি, প্রগতি আর সম্প্রীতির এক মিলনমেলায়। একের পর রচিত ‍হচ্ছে উন্নয়নগাথা।

বাজেটের খাতভিত্তিক বরাদ্দের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে সামাজিক অবকাঠামো খাতে বরাদ্দ আছে এক লাখ ৮৩ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। মানবসম্পদ খাতে বরাদ্দ এক লাখ ৬৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। ভৌত অবকাঠামো খাতে বরাদ্দ আছে দুই লাখ ৮৬০ কোটি টাকা। সাধারণ সেবা খাতে বরাদ্দ আছে এক লাখ ৫৩ হাজার কোটি টাকা। সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব বিভিন্ন শিল্পে আর্থিক সহায়তা, ভর্তুকি, রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বরাদ্দ আছে ৫৩ হাজার কোটি টাকা।

করোনার টিকা প্রদানে সরকারের পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে কাজী নাবিল বলেন, ২০২১ সালের শুরুর দিকে বিশ্বে কোভিড-১৯ টিকার বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী শুরুতেই ঘোষণা দেন, যত অর্থেরই প্রয়োজন পড়ুক, সরকার দ্রুততম সময়ের মধ্যে দেশের সব নাগরিককে বিনামূল্যে কোভিড-১৯ টিকার আওতায় নিয়ে আসবে। টিকার বৈশ্বিক সরবরাহে নানা ধরনের চ্যালেঞ্জ থাকলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুসারে, আমরা বিভিন্ন বিকল্প উৎস থেকে প্রয়োজনীয় টিকা সংগ্রহ করতে সক্ষম হই। মাত্র এক বছরের মধ্যে ১২ বছরের ঊর্ধ্বে দেশের প্রায় সব নাগরিককে সফলভাবে দুই দফায় টিকা প্রদান করা সম্ভব হয়। বর্তমানে বুস্টার ডোজ প্রদানের কার্যক্রম চলছে। কোভিড-১৯ অতিমারি থেকে উত্তরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ১২১টি দেশের মধ্যে পঞ্চম শীর্ষস্থান এবং দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষস্থানে অবস্থান করছে।

এবারের বাজেটে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখা উল্লেখ করে সরকার দলের এই এমপি বলেন, বিগত দুই বছরের অপ্রত্যাশিত অভিঘাত কোভিড-১৯-এর প্রভাব কাটিয়ে বিশ্ব অর্থনীতি যখন ঘুরে দাঁড়াচ্ছিল, ঠিক তখনই মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাত। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের শুরু থেকে সৃষ্ট চলমান সংঘাতের ফলে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে নানাবিধও বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। করোনা পরবর্তী বৈশ্বিক অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে হঠাৎ করে চাহিদা বেড়ে যাওয়াতে ২০২১ সালের শেষ দিক থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের মূল্য বাড়তে থাকে। আর রাশিয়া-ইউক্রেন সংকটের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য পরিস্থিতি আরও অস্থির হতে শুরু করে। সম্প্রতি পরিশোধিত তেলের দাম—ক্রুড অয়েল প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ব্যারেলপ্রতি ১১৩ মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। অপরদিকে, প্রাকৃতিক গ্যাসের মূল্য বিশ্ববাজারে ১২ গুণ বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। তেল ও গ্যাসের পাশাপাশি বৈশ্বিক কমোডিটি মার্কেটে কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রেও রাশিয়া ও ইউক্রেন গুরুত্বপূর্ণ সরবরাহকারী দেশ।

তিনি বলেন, সরকার দেশের বিরাজমান চাহিদার প্রবৃদ্ধি কমিয়ে সরবরাহ বৃদ্ধির মাধ্যমে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে অর্থনীতির অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে চায়।

কাজী নাবিল বলেন, কোভিড-১৯ অতিমারিজনিত অর্থনীতির শ্লথগতি থেকে উত্তরণের উদ্দেশে শিল্পে উৎপাদন এবং রফতানি খাত পুনরুদ্ধারে সরকার যে কাউন্টার টেকনিক্যাল ব্যবস্থা নিয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে— রফতানিমুখী শিল্পের শ্রমিকদের বেতন ভাতা পরিশোধে ৫ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল, ক্ষতিগ্রস্ত বৃহৎ শিল্পে ৭৩ হাজার কোটি টাকা, সিএমএসই খাতের জন্য ৪০ হাজার কোটি টাকার চলতি মূলধন ঋণ তহবিল, রফতানি উন্নয়ন তহবিলের জন্য ৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করা হয়েছে এবং ৫ হাজার কোটি টাকার প্রি-শিপমেন্ট ক্রেডিট পুনঃঅর্থায়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশের স্বল্প আয়ের মানুষ যাতে কম দামে নিত্যপণ্য পায়, তার জন্য খোলা বাজারে ন্যায্য মূল্যে টিসিবি, ওএমএস কার্ডের মাধ্যমে এবং অতি দরিদ্র গোষ্ঠীকে নগদ অর্থ প্রদানের মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য বৃদ্ধির প্রভাবের কথা তুলে ধরে কাজী নাবিল বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যের অস্বাভাবিক বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে ইমপোর্টেড ইনফ্লেশন হিসেবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখা। আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশের ৯টি পণ্যের- জ্বালানি তেল, এলএনজি, গম, রাসায়নিক সার, পাম অয়েল, সয়াবিন তেল, কয়লা, ভুট্টো, চাল একই পরিমাণ আমদানি করতে এবার গতবারের তুলনায় ৮ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পরিশোধ করতে হবে। এতে অভ্যন্তরীণ বাজারে বর্তমানে ইমপোর্টেড ইনফ্লেশনের চাপ অনুভূত হচ্ছে।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনীতি গতিশীল হওয়ায় আমদানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। যার কারণে চলতি বছরে আমাদের ব্যালেন্স অব পেমেন্ট কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। যার কারণে আমাদের রিজার্ভ যেটা ছিল ৪৮ বিলিয়ন ডলার, সেটা এখন ৪২ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া ডলারের বিপরীতে টাকা কিছুটা অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। কিন্তু এরপরও করপোরেট কর কমানোর কারণে সাধুবাদ পেতে পারে। পাশাপাশি গার্মেন্ট ও নন-গার্মেন্ট পণ্যের কাঁচামাল আমদানিতে ১২ শতাংশ করারোপ বিনিয়োগকে উৎসাহিত করবে। এটি হবে সরকারের চমকপ্রদ একটি সংস্কার।

তিনি প্রতিবন্ধী ভাতা ও ভাতাপ্রাপ্তির আওতা বৃদ্ধির জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

আগামী ২৫ জুন নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের প্রসঙ্গ টেনে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই এমপি বলেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে আছি। এই সেতু কারণে এই অঞ্চলের ২১টি জেলার সঙ্গে রাজধানীর সংযোগ আরও ‍বৃদ্ধি ও সহজতর হবে। ব্যবস্থা-বাণিজ্য আরও বৃদ্ধি পাবে। বর্তমান সরকারের আমলে যশোরে যে অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে, তা ভবিষ্যতে আরও বৃদ্ধি পাবে।