‘যশোরকে খাদ্যের কমফোর্ট জোন করতে চাই’-সেমিনারে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের যুগ্ম সচিব

0
107

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক জনসচেতনতামূলক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের যুগ্ম সচিব ও সদস্য (খাদ্যভোগ ও ভোক্তা অধিকার) মো. রেজাউল করিম। মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. শিরিন নিগার।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের যুগ্ম সচিব ও সদস্য (খাদ্যভোগ ও ভোক্তা অধিকার) মো. রেজাউল করিম বলেন, যশোর জেলাকে খাদ্যের কমফোর্ট জোন করতে চাই। এজন্য নিরাপদ খাদ্য আইনে অনিরাপদ খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। শুধু খাদ্য উৎপাদন নয়, খাদ্য উপকরণ থেকে শুরু করে ভোক্তা পর্যায়ের সকল স্তরে খাদ্যকে নিরাপদ না করলে আমরা যথাযথ খাদ্যমানে পৌঁছাতে পারব না।

তিনি বলেন, শুধু অর্থনৈতিক উন্নয়নের নিরিখেই উন্নত দেশের মর্যাদা আসবে না, এর জন্য খাদ্যমানও যথাযথ হতে হবে। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ করবার যে লক্ষ্য প্রধানমন্ত্রী নির্ধারণ করেছেন, তার অর্জনও নির্ভর করছে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি খাদ্যমানের সূচকেও উন্নতি করার ওপর।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপি খাদ্য শৃঙ্খলার পরিবর্তন হয়েছে। আর এজন্যই প্রধানমন্ত্রী খাদ্যের সব পর্যায়ের সমন্বয়ের জন্য এই কর্তৃপক্ষ গঠন করেছেন। বিশ্বব্যাপি এই নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ তৈরি হয়েছে।

RELATED POSTS
যশোরে দুর্যোগে জরুরি সাড়াদান পদ্ধতি নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা

নওয়াপাড়ায় মশক নিধন অভিযান উদ্বোধন

মেহেরপুরে প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্যোগের কর্মশালা

ব্যবসাকেন্দ্রের পরিবেশ উন্নত হলে আমরা সেই প্রতিষ্ঠানটিকে নিরাপদ খাদ্য প্রতিষ্ঠান বলে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেব। এতে ওই প্রতিষ্ঠানের মানের উন্নতির সাথে সাথে মুনাফার পরিমাণও বেড়ে যাবে।

– মো. তমিজুল ইসলাম খান, জেলা প্রশাসক

ঢাকার একটি ব্র্যান্ড বেকারির অভিজ্ঞতার উল্লেখকালে তিনি বলেন, বিএসটিআইয়ের সকল উপাদান খাবারে যথাযথ মানে রয়েছে। কিন্তু পারিপার্শ্বিক যে পরিবেশ তা মোটেও সুখকর নয়। তিনি দুঃখপ্রকাশ করে বলেন, দেশে খাদ্যস্থাপনা তৈরি করতে কোনো লাইসেন্স লাগে না। খাদ্যশৃঙ্খলা আমাদের ব্রেনকে নষ্ট করে ফেলছে। প্রোটেনশিয়ালিটি থাকলেও আমরা সবকিছু নষ্ট করে ফেলছি। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের চিন্তার জগতকে খুলতে হবে। ‘ওয়াল্ড হেলথ অ্যাপোচ’ উৎপাদনের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রয়োগ করতে হবে। উৎপাদন থেকে খাওয়া পর্যন্ত সবখানে নিরাপদ হতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান বলেন, আমরা শিশুখাদ্য, ওষুধেও ভেজাল দিই। আমরা ভুলে যাই আমি একইসাথে কনজুমার, আবার বিক্রেতাও।

তিনি বলেন, আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকলে, নিজের নৈতিকতা ঠিক থাকলে ভালো খাবার ভালো পরিবেশে দেয়া সম্ভব। আমরা আইনের প্রয়োগ না করে ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানিয়েছি জরিমানা দিলে যে টাকা ব্যয় হবে, তার চেয়ে কম টাকায় ব্যবসাকেন্দ্রের পরিবেশ উন্নয়নের। আর ব্যবসাকেন্দ্রের পরিবেশ উন্নত হলে আমরা সেই প্রতিষ্ঠানটিকে নিরাপদ খাদ্য প্রতিষ্ঠান বলে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেব। এতে ওই প্রতিষ্ঠানের মানের উন্নতির সাথে সাথে মুনাফার পরিমাণও বেড়ে যাবে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মো. সায়েমুজ্জামানের সঞ্চালনায় সেমিনারে বক্তব্য রাখেন যশোর জেলা নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা শাকিল আহমেদ, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ, প্রেসক্লাব যশোরের সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক আবু তোহা, জেলা বেকারী মালিক সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান, সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম প্রমুখ।