যশোরের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারসহ চারজন করোনা রোগে আক্রান্ত,৩০বাড়ি লকডাউন

0
351

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

যশোরের বেনাপোল ইমিগ্রেশনে কর্মরত উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সহ চারজন করোনা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।
বাকি তিন জনের মধ্যে যশোর সদরের চুড়ামনকাঠিতে ঢাকা ফেরত এক যুবক, চৌগাছা উপজেলায় এক স্কুল ছাত্র ও এক মহিলার করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়। জেলা ও উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে আক্রান্দদের বাড়িসহ আশপাশ এলাকার প্রায় ৩০ঁ বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে,উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার কিছু দিন আগে হঠাৎ শরীরে জর ও ঠান্ডা কাশি অনুভব করলে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হয়। বুধবার সকালে তার রিপোর্ট পজেটিভ আসে।
শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল বলেন, গতকাল পর্যন্ত ৩৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হযেছিল। এ মধ্যে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে কর্মরত উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার এর পজেটিভ রিপোার্ট এসেছে। ওই চিকিৎসকের সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদের চিহ্নিত করে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে এবং তার সংস্পর্শে আসা উপজেলা হাসপাতাল, বেনাপোল ইমিগ্রেশন ও লক্ষণপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ৫ জন ডাক্তার ও ৫ জন স্বাস্থ্য সহকারীসহ ১৫ জনকে হোম কোয়ান্টোইনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আর তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
এদিকে সিভিল সার্জন ডাঃ সেখ আবু শাহীন জানান, যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাঠিতে আক্রান্ত যুবক ঢাকা ফেরত। স্থানীয়রা জানান, তাকে প্রশাসন হোম কোয়ারেন্টাইনের থাকার নির্দেশ দেয়া হলেও ওই যুবক তা মানছেন না। সে ওই এলাকায় জানাযা সহ সকল সামাজিক অনুষ্টানে অংশ নিয়ে বেড়াচ্ছে।
চৌগাছায় আক্রান্ত অষ্টম শ্রেনীর এক ছাত্র রয়েছে। তার মা বেসরকারি একটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্য সহকারি হিসেবে চাকরি করেন।উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম ধারনা করছেন, তার মা এর মাধ্যমেই এই ছেলেটি করোনা আক্রান্ত হতে পারে। আজ তার মায়ের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।অপরর জন হলেন একই উপজেলার ৭নং ওয়ার্ডেও এক মহিলা। তিনি কি ভাবে আক্্রান্ত হয়েছে সে বিষয়ে এখনই জেলা বা উপজেলা প্রশাসন কিছু জানাতে পারেনি।
যশোরের এই চার জনের করোনা আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হবার পর চার উপজেলা প্রায় ৩০ বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।