যশোরের এমপিও’ভূক্তি ৫২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আনন্দের বন্যা

0
60

নিজস্ব প্রতিবেদক : পৌনে তিন বছর পর নতুন করে ২ হাজার ৭১৬টি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করেছে সরকার। এর মধ্যে যশোরের ৮টি উপজেলায় ৫২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থান পেয়েছে। এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ, ১০টি দাখিল-আলিম মাদরাসা এবং ৭টি বিএম ও ভোকেশনাল প্রতিষ্ঠান। এর আগে ২০১৯ সালে ২ হাজার সাতশ’ বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করেছিল সরকার। সেবার যশোরে ৬০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়। এদিকে, এমপিওভুক্তির সংবাদে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। তেমনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও গ্রামবাসীদেরও আনন্দ উল্লাসের কমতি নেই।
বুধবার চলতি বছরে নতুন করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করেছে সরকার। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৫১টি এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ৬৬৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এদিন সকালে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর’ এবং ‘শেখ জামাল ডরমেটরি ও রোজী জামাল ডরমেটরি’র উদ্বোধন অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ঘোষণা দেন।
ঘোষিত এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে যশোরে মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৩১টি। মাধ্যমিক ঃ শার্শার কোদলারহাট হাই স্কুল, শিকারপুর সম্মিলনী হাই স্কুল, পাকশিয়া সম্মিলনী গার্লস স্কুল, চৌগাছার এবিসিডি হাই স্কুল, বারিয়ালি হাওলি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাকাপুর-বল্লভপুর হাই স্কুল, আইপি পাওয়ার হাই স্কুল, বিকেএইচ হাই স্কুল, হিজলী হাই স্কুল, উজিরপুর এম পি জে বি হাই স্কুল, ঝাউতলা এমকেএনজি হাই স্কুল। ঝিকরগাছার বল্লা হাই স্কুল, এম সি ডি সম্মিলনী হাই স্কুল, অমৃতবাজার গার্লস স্কুল, এম কে আদর্শ হাই স্কুল, সদরের ডাকাতিয়া হাই স্কুল, বি আর বি হাই স্কুল, যশোর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি স্কুল এন্ড কলেজ, খরিচাডাঙ্গা হাই স্কুল, আঞ্জুমানারা আরা একাডেমি, আমেনা আহমেদ জিটি মডেল হাই গার্লস স্কুল, অভয়নগরের রাজ ট্রেক্সটাইল হাই স্কুল, বাঘারপাড়া কে কে আর হাই স্কুল, বি.এম হাই স্কুল, জায়ান্ট হাই স্কুল, মণিরামপুরের পৌরসভা গার্লস হাই স্কুল, নেবুগাতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শৈলী হাই স্কুল, কিসমত চাকলা গার্লস হাই স্কুল। কেশবপুরের এম এম গোবিন্দপুর হাই স্কুল, ত্রিমোহনী হাই স্কুল

স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও কলেজ ৪টিঃ মণিরামপুরের গোপালপুর এম এর হাই স্কুল এÐ কলেজ, শার্শার ইউনাইটেড আদর্শ কলেজ, মণিরামপুরের ঢাকুরিয়া কলেজ, মাতৃভাষা মহাবিদ্যালয়। ৮টি দাখিল মাদরাসা : যশোরের বাঘারপাড়ার জামদিয়া হাফেজিয়া দাখিল মাদরাসা, চৌগাছার পাতিবিলা-নিয়ামতপুর দাখিল মাদরাসা, ঝিকরগাছার কাগমারি দাখিল মাদরাসা, সদরের নারাঙ্গালি দাখিল মাদরাসা, হয়রত শাহ ওলিউল্লাহ ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা, বাজে দুর্গাপুর দাখিল মাদরাসা, সাড়াপোল দারুস সালাম দাখিল মাদরাসা, শার্শার গীবা দারুল উলুম দাখিল মাদরাসা। ২টি ভোকেশনাল : মণিরামপুরের শায়লাহাট হাই স্কুল, মনোহরপুর টেকনিক্যাল এন্ড সাইন্স কলেজ। ৫টি এইচ এস সি বিএম : চৌগাছার এবিসিডি কলেজ, তরিকুল ইসলাম পৌর কলেজ, সদরের নতুনহাট পাবলিক কলেজ, মণিরামপুরের নেহালপুর হাই স্কুল এন্ড কলেজ, মনোহরপুর টেকনিক্যাল কলেজ সাইন্স কলেজ। ২টি আলিম মাদরাসা : ঝিকরগাছার বেজিয়াতলা আলিম মাদরাসা, মণিরামপুরের ধলিগাতি সুন্দলপুর আলিম মাদরাসা।
এদিকে, নতুন করে এমপিওভুক্তির সংবাদে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। ঈদুল আযহা উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকলেও ; মুঠোফোনে স্ব স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহকর্মীদের কাছ থেকে মুঠোফোনে এমপিওভুক্তির খবর শুনে একে-অন্যেই আনন্দ মাতেন। এমপিওভুক্তির আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দুর্দিন নিয়ে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা স্মৃতিচারণ করেছেন। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আরো এগিয়ে নিতে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। একই সাথে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও গ্রামবাসীদেরও আনন্দ উল্লাসের কমতি নেই বলে জানাগেছে।

যশোরের ঝিকরগাছা কাগমারি দাখিল মাদরাসার সুপার আব্দুর রহিম বলেন, এমপিওভুক্তির খবরে আমার অনুভূতি হারিয়ে ফেলেছি। আমরা সকল শিক্ষক ও কর্মচারী মহাখুশি। এখন রাত বলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আনন্দ করতে পারছি না। তিনি বলেন, দীর্ঘ ১৯ বছর পর এই মাদ্রাসা এমপিওভুক্তি হলো। এই বিদ্যালয়ে বর্তমানে ১৩৭ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত। এতোদিন এমপিওভুক্তি না হওয়াতে তেমন শিক্ষার্থীরাও ভর্তি হতো না; আবার লেখাপড়ার মান তেমন ছিলো না। এখন এই মাদরাসার আরো মান বৃদ্ধি পাবে। একই উপজেলার এম কে আদর্শ হাই স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবির বলেন, শিক্ষা আশা আকাক্সক্ষার প্রতীক, শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা নিয়ে বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন সে স্বপ্নকে বাস্তব রূপ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপিওভ‚ক্তর মাধ্যমে শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। আমার বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হওয়াতে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন পরে হলেও আমার বিদ্যালয়ের তিন শতাধিক শিক্ষার্থী, ১৯ শিক্ষক-কর্মচারী সবাই খুব খুশি।