যশোরের খেদাপাড়ায় সেই কর্মসংস্থানের লোক দিয়ে বালি তোলানোর ব্যাপারে ব্যাবস্থা গ্রহণ

0
257

উত্তম চক্রবর্ত্তী, : ণিরামপুরের খেদাপাড়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডে কর্মসংস্থান কর্মসূচির লোক দিয়ে রাস্তার কাজ বাদ রেখে হরিহর নদী থেকে বালি উত্তোলনের ব্যাপারে জড়িত ইউপি মেম্বর তাইজুল ইসলাম মিলনের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন। কেন কর্মসূচির কাজ বাদ রেখে সেই শ্রমিক দিয়ে নদী থেকে বালি তোলানো হল সেই ব্যাপারে অভিযুক্ত মেম্বরের কাছে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে জবাব চেয়েছেন ইউএনও। বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দানে ব্যর্থ হলে ওই মেম্বরের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুজিবর রহমান বিষয়টি জানা শর্তেও কেন বাধা দেননি বা তিনি আসলেই বিষয়টি জানেন কিনা সেই ব্যাপারেও তার মন্তব্য চেয়েছেন ইউএনও। তাছাড়া ওই ওয়ার্ডে ৩৬ জন তালিকাভুক্ত লোকের মধ্যে যে ১৬ জন কাজ করেননা তাদের এক সপ্তাহের মজুরি কেটে নেয়া এবং যে ২০ জন গত ২৫ তারিখ শনিবার হতে ২৮ তারিখ মঙ্গলবার পর্যন্ত রাস্তার কাজ রেখে নদী হতে বালি তুলেছেন তাদেরও চার দিনের মজুরি কাটা হবে বলে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন ইউএনও। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইয়ারুল হক মঙ্গলবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পিআইও ইয়ারুল আরও জানান, কারণ দর্শানোর নোটিশের বিষয়ে চেয়ারম্যান ও মেম্বরকে ফোন করা হয়েছে। জানতে চাইলে অভিযুক্ত মেম্বর মিলন পিআইও অফিসের ফোন পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। প্রসঙ্গত,অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পে খেদাপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং (মাহমুদকাটি-কদমবাড়িয়া) ওয়ার্ডে কাজ শুরুর প্রথম থেকেই তালিকাভুক্ত ৩৬ জনের মধ্যে ২০-২২ জন বাদে বাকিরা একদিনও কাজে হাজির হননা। কাজে অনুপস্থিতদের মধ্যে চেয়ারম্যানের প্রতিনিধির লোকজনসহ মেম্বরের ছেলে,ভাই ও বেয়াই রয়েছেন। কাজে না আসলেও অনুপস্থিতদের ২০ দিনের কাজের টাকা উত্তোলন করেছেন মেম্বর মিলন। এর মধ্যে ১১ জনের টাকা সে আতœসাৎ করেছেন মর্মে ইউএনও বরাবর অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। তাছাড়া কাজে হাজির হওয়াদের দিয়ে গত ৪ দিন ধরে রাস্তার কাজ বাদ রেখে স্থানীয় মাহমুদকাটি বিশ্বাসপাড়া মোড় সংলগ্ন হরিহর নদী হতে বালি উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ডের মেম্বরের বিরুদ্ধে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here