যশোরের চাচড়ায় নদীতে বাধ দেওয়ায় শেষ সম্বল বাঁশের সাঁকোটিও পানির নিচে ।। সিমাহীন দূর্ভোগে পানিবন্দী মানুষ

0
1136
ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বুক পানি পার হয়ে স্কুলে যাচ্ছে। ছবিটি যশোরের চাচড়া কোলনী পাড়া থেকে তুলেছেন বিলাল হোসেন বনি।

ডি এইচ দিলসান ও বনি : যশোর সদর উপজেলার চাচড়া ক্লোনিপাড়ার মুক্তেশ্বরী নদীতে বাধ দেওযায় পানিবন্দী হয়ে পড়েছে ৬শ পরিবার। একই সাথে নদীর উপর থাকা একটি মাত্র বাঁশের সাঁকোটিও পানির নিচে তলিয়ে গেছে। আর যার কারনে প্রায় ১০টি গ্রামের মানুষের নদীর এপার থেকে ওপারে যাওয়া বন্ধ প্রায়। জানা গেছে চাচড়া কোলনী পাড়াতে নদীর উপর একটি ব্রিজ করার জন্য কাজ শুরু করার প্রায় ২ মাস আগে বাধ দেওয়া হয়, যে কারনে যশোর শহরের পানি এবং বুকভরা বাউড়ের পানি জমে বাধের এপারের এলাকা পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বুক পানি পার হয়ে স্কুলে যাচ্ছে। ছবিটি যশোরের চাচড়া কোলনী পাড়া থেকে তুলেছেন বিলাল হোসেন বনি।

খালের এপারে ৭ নং ওয়ার্ডের পুলের হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পুলেরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বালিকা বিদ্যালয়সহ অনেক প্রতিষ্ঠানে ছেলেমেরা ওপার থেকে আসেতে পারছে না। অন্যদিকে খালের ওপার ৯ নং ওযার্ডের ভাতুড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যারয়, ভাতুড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, স্কুল এন্ড কলেজসহ আরো কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও এপার থেকে ছেলেমেয়েরা গত এক মাস ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না। এছাড়া এপার থেকে ওপারের মানুষ অনেক কষ্টে ভিজে ভিজে পার হচ্ছেন। বিভিন্ন প্রয়োজনে শহরে আসা মানুষ গলা পর্যন্ত ভিজে আসছেন আবার ভিজে ভিজে বড়ি ফিরছেন।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্কুল থেকে ছোট্ট শিশুরা গলা পর্যন্ত পানি পার হয়ে বই গুলো মাথার উপরে নিয়ে পার হয়ে ঘরে ফিরছে। অনেকে দূর্ঘটনার শিকারও হচ্ছেন।

এ ব্যাপারে ওই এলাকার বাবর আলী ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, যে কাজ ১৫ দিনে শেষ করা যায় সেটা করতে ৬ মাস সময় পার করছেন ব্রিজ নির্মানের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। তিনি বলেন ব্রিজ করার জন্য নদীর উপর  বাধ দেওয়ার কারনে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের ছেলে মেয়েরা স্কুলে যেতে পারছে না, শহরে যেতে হলে ভিজে ভিজে যেতে হচ্ছে। তিনি দাবি করেন যত দ্রুতো সম্ভাব ব্রিজের কাজ শেষ করে এলাকার মানুষের সাহায্য করুন।

যশোরের চাচড়া কোলনী পাড়ায় নির্মানাধীন ব্রিজ ও বাধ, ছবি- বিলাল হোসেন বনি।

চাচড়া ৭ নং ওয়ার্ড মেম্বার ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, আমি গ্রামবাসীর পাশে আছি। তিনি বলেন ব্রিজটি হয়ে গেলে মুক্তেশ্বরী নদীর দুপারের মানুষের কষ্ট লাঘোব হবে। তবে তিনি বলেন, যে কাজ ৩০ থেকে ৪০ জনে করবে সেই কাজ মাত্র ৫-৬ জনে করছে, যার কারনে ব্রিজটি করতে দেরি হচ্ছে। আর ব্রিজ করার জন্য নদীতে বাধ দেওয়ার করনে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে নদীর উপরে দেওয়া বাশের সাকোটি পানিতে ডুবে গেছে, তাছাড়া দুপাড়ের গ্রাম, ঘরবাড়িও পানির নিচে, এখন একটু বৃষ্টি হলেই শুরু হবে আবার দূর্ভোগ। কারন হিসেবে তিনে বলেন যশোর শহরের পানি এবং বুক ভরা বাওড়ের পানি এই নদী দিয়ে ভবদাহে পতিত হয়।

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেলো ব্রিজের তলদেশ ঢালাই দেওয়ার জন্য রড বুনছে কেবল, কবে নাগাদ ব্রিজের কাজ শেষ হবে তা জানতে চাইলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাব কন্ট্রাকটার নজরুল ইসলাম ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, কবে শেষ হবে তা বলা যাচ্ছে না, তিনি বলেন প্রতিদিন ৩০-৪০ জন কাজ করছে যদিও বাস্তবে দেখা গেছে ৬ জন লোক কাজ করছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here