যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার কুন্দিপুর গ্রামে চাঞ্চল্যকর হুমায়ূন কবীর হত্যা মামলা

0
240

সাতজনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল এজাহার নামীয় ১২জনকে অব্যহতি
এম আর রকি : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার কুন্দিপুর গ্রামে চাঞ্চল্যকর হুমায়ূন কবীর হত্যা কান্ডর ঘটনায় সাত জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই আবুল কালাম আজাদ এই মামলায় তৃতীয় তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে বুধবার আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। হত্যাকান্ডে উপযুক্ত সাক্ষ্য প্রমান না পাওয়া এজাহার নামীয় আসামী ১৩জনকে অত্র মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন জানানো হয়েছে।
হত্যা মামলায় চার্জশীট ভূক্ত আসামীরা হচ্ছে, যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পাঁচপোতা গ্রামের মো: জব্বার মোড়লের ছেলে মো: আনিছুর রহমান, শার্শা উপজেলার জিড়েন গাছা গ্রামের বর্তমানে ঝিকরগাছা উপজেলার পাঁচপোতা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর বাড়ির ভাড়াটিয়া (ঘর জামাই) মৃত ইবাদ আলীর ছেলে আব্দুল কাদের,পাঁচ পোতা গ্রামের খলিলুর রহমান গাজীর ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন,একই উপজেলার পারবেড়াই পানি গ্রামের মৃত অহেদ আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম লাট, বায়সা গ্রামের মোশারফ মোড়লের ছেলে বজলুর রহমান টিটু,বায়সা পশ্চিমপাড়ার কেরামত আলীর ছেলে মো: আলামিন ও বায়সা গ্রামের শুকুর আলী ওরফে শুকোর ছেলে জাহাঙ্গীর।
অব্যাহতি প্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে, অত্র মামলায় এজাহার নামীয় আসামী ঝিকরগাছা উপজেলার কুন্দিপুর গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে মো: ফজলুর রহমান,মৃত শুকুর আলীর ছেলে মো: হাফিজুল হক ঝন্টু,ইউনুছ রাজাকারের ছেলে মো: খায়রুল বাশার,সহোদর সাহারুল,আলমগীর মোড়লের ছেলে মো: বাবলুর রহমান,মৃত সামছের আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম,শরিফুল,মৃত মনার ছেলে একরামুল,মৃত এসেম গাজীর ছেলে আলমগীর হোসেন,মৃত গোলাম নবীর ছেলে মোজাম্মেল হক খোকা ও গোলাম মোস্তফা লিটন,সিরাজুল ইসলামের ছেলে তাজমিরুল হক মোহন ও মৃত কওছার আলীর ছেলে রুবেল হোসেন।
মামলা বিবারনে কুন্দিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল আজিম মিয়ার ছেলে মোঃ আওরঙ্গদেব বাদি হয়ে ঝিকরগাছা থানায় দায়েরকৃত এজাহারে জানান,এজাহার নামীয় আসামীদের সাথে তাদের পূর্ব শত্রুতা চলে আসছিল। বাদী চাচা আব্দুর রাজ্জাক উক্ত আসামীদের বিরুদ্ধে ঝিকরগাছা আদালতে পিটিশন মামলা নং ৫০/১৪ দায়ের করেন। পববর্তীতে ঝিকরগাছা থানায় মামলা নং ০৩ তারিখঃ ০৩/৬/১৪ ধারা ১৪৩/৪৪৭/৪৪৮/৪২৭/৪২৮/৩২৩/৩২৪/৩৫৪/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৫০৬ দন্ড বিধি। মামলা হওয়ার পর আসামীরা বাদি ও তার ভাই হুমায়ূন কবীরকে খুন জখমের জন্য বাড়িতে হামলা ও নাভারণ বাজারে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর করে। বিষয়টির ব্যাপরে পুলিশ প্রশাসনের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। আসামীরা মামলা প্রত্যাহারের জন্য বাদিসহ তাদের বিরুদ্ধে ঝিকরগাছায় থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। এই অবস্থায় গত ২২/০১/১৫ ইং সালে বিকাল সাড়ে ৫ টায় হুমায়ূন কবীর বাজার করার জন্য বাড়ি হতে বাইসাইকেল যোগে পাঁচপোতা বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। সেখান থেকে রাতে না ফেরায় হুমায়ূন কবীরের স্ত্রী লাবনী খাতুন বাদি ও তার আত্মীয়স্বজনকে মোবাইলে জানান। পরবর্তীতে হুমায়ূন কবীরের মরদেহ বায়সা তালসারী গ্রামের ফাঁকা মাঠের নিয়ামত আলীর কলা বাগানে পড়ে থাকতে দেখে থানা পুলিশ মোবাইলের মাধ্যমে হুমায়ূন কবীরের পরিবারকে রাতে জানায়। পরের দিন ঝিকরগাছা থানায় বাদী হয়ে উল্লেখিত এজাহার নামীয় আসামীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তর ভার জেলা গোয়েন্দা শাখাকে তদন্তর দায়িত্ব দেয়া হলে এসআই আবুল খায়ের মোল্যার উপর দায়িত্ব দেন। তিনি বদলী হওয়ার পর পুলিশ পরিদর্শক আলী আহমেদ হাশমী তদন্ত ভার গ্রহন করেন। তিনি বদলী হওয়ার পর এসআই আবুল আবুল কালাম আজাদ তদন্তর ভার গ্রহন করেন। তিনি তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে এজাহার নামীয় আসামীদের বিরুদ্ধে এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সাক্ষ্য প্রমান না পাওয়ায় তাদেরকে অত্র মামলা থেকে অব্যহতি প্রদান ও এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দাখিল করেন। এই হত্যাকান্ডে আব্দুল কাদের,জাহাঙ্গীর হোসেন,শহিদুল ইসলাম লাট,বজলুর রহমান টিটু, আলামিনকে গ্রেফতার পূর্বক গত ২৯/৮/১৬ ইং আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে। আনিছুর রহমান ও শুকুর আলী ওরফে শুকোর ছেলে জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here