যশোরের পল্লীতে এক স্কুল পড়–য়া ছাত্রীকে অপহরণ পূর্বক পাচারে চেষ্টায় ব্যর্থ

0
289

বিশেষ প্রতিনিধি: পাচারকারীদের কবল থেকে দৌড়ে পালিয়ে স্কুল পড়–য়া ছাত্রী মোছাঃ মৌসুমী খাতুন (১৪) রক্ষা পেয়েছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর মাতা আলোমতি বেগম বাদি হয়ে দু’ আসামীর নাম উল্লেখ করে সোমবার কোতয়ালি থানায় এজাহার দায়ের করেছেন।
দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করেছেন,যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর মোল্যাপাড়ার কামরুল গাজীর মেয়ে মোছাঃ মৌসুমী খাতুন নরেন্দ্রপুর গার্লস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৮ম শেনীতে লেখাপড়া করে। স্কুলে আসা যাওয়ার প্রাক্কালে নরেন্দ্রপুর মোল্যাপাড়ার হাসান আলীর ছেলে সোহাগ উত্যক্ত করতো ও আজে বাজে কথাবার্তাসহ প্রেমের প্রস্তাব দিতো। প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় গত ১৪ জুলাই সকাল আনুমানিক ৯ টায় মৌসুমী খাতুন স্কুলের শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি হতে বের হয়। সকাল সাড়ে ৯ টায় স্কুলের সন্নিকোটে পৌছালে সোহাগসহ নরেন্দ্রপুর মোল্যাপাড়ার আছমতের জামাতা অসীম এবং অজ্ঞাতনামা ৩ নারী অপহরণকারী মৌসুমীর পথরোধ করে। পরে তাকে প্রলোভন দেখানোর এক পর্যায় ঢাকার একটি বাসে উঠায়। পরে মৌসুমী নিশ্চিত হয় তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অসীম গলায় ছুরি ধরে চুপ থাকতে বলে। মৌসুমীকে ঢাকায় বিক্রি করা হবে শুনতে পেরে ঢাকার গাবতলী বাসস্ট্যান্ডে বাসটি পৌছানোর পর মৌসুমী বাস থেকে নেমে দৌড়ে চিৎকার দেয়। সেখানে স্থানীয় মেম্বর আব্দুল খলিল ও একজন যুবক এসে পাচারকারীদের হাত থেকে মৌসুমীকে উদ্ধার করে। পরে বিস্তারিত শুনে একটি বাস ঠিক করে মৌসুমীকে যশোর পাঠিয়ে দেয়। মৌসুমী বাড়িতে এসে বিস্তারিত ঘটনা জানানোর পর মাতা আলোমতি বাদি হয়ে যশোর কোতয়ালি থানায় সোমবার এজাহার দায়ের করেন। এ রিপোপর্ট লেখা পর্যন্ত এজাহার নথিভূক্ত হয়নি।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here