যশোরের পল্লীতে কুপিয়ে হত্যাকান্ডের ব্যক্তির পরিচয় মিলেছে,জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার দুই

0
337

বিশেষ প্রতিনিধি : দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের কোপে নিহত অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি (৫২) এর পরিচয় মিলেছে। সে যশোর সদর উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের ও হাশিমপুর গামের আনসার আলীর ছেলে। মঙ্গলবার সন্ধ্যারাত সাড়ে ৭টায় সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া উত্তরপাড়া ব্রিজের কাছে এই হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। পুলিশ প্রাথমিক পর্যায় হত্যাকান্ডের জড়িত সন্দেহে বাঘারপাড়্ াউপজেলার জয়নগর গ্রামের দস্তক মোল্যার মেয়ে পলি খাতুন ও হাশিমপুর গামের মৃত শামসের মোল্যার ছেলে মনাকে গ্রেফতার করেছে। বুধবার লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্নর তার আত্মীয় স্বজনের কাছে হস্তান্তর করেছে।
যশোর তালবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই হুমায়ূন জানান, রেজাউল ইসলাম মঙ্গলবার সন্ধ্যারাতে মোটর সাইকেল যোগে যাচ্ছিলেন। সন্ধ্যারাত সাড়ে ৭ টায় সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া উত্তরপাড়া ব্রিজের কাছে পৌছালে দুর্বৃত্তরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। দূর্বৃত্তরা রেজাউল ইসলামের চোয়ালের বাম পাশে ৩টি ও ডানপাশে ধারালো গাছী দা দিয়ে কোপ মারে। যার ফলে তার মুখম-ল ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। তালবাড়িয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই জাকির জানান, লাশের পাশ থেকে সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখার একটি চেকের পাতা ও জাপানি ইয়ামা আরএক্স মোটর সাইকেল পাওয়া যায়। যার নাম্বার ৩৪১২৫৯৪৯। মঙ্গলবার রাতে লাশ উদ্ধারের সময় কেউ নিহত ব্যক্তিকে সনাক্ত করতে পারেনি। যার ফলে পুলিশ লাশ মর্গে রেখে দেয়। বুধবার সকালে খবরের কাগজে সংবাদ দেখে বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন মর্গে ভীড় করে। মর্গে লাশ ধেকে রেজাউল ইসলামের পরিবারের সদস্যরা সনাক্ত করে। রেজাউলের মামাতো ভাই আনোয়ারুল ইসলাম মর্গে লাশটি সনাক্ত করেন। নিহত রেজাউল সোনালী ব্যাংকের সাবেক কর্মচারী। আনোয়ারুল আরো জানান, ব্যাংকের যশোর কর্পোরেট শাখা থেকে গত বছর তিনি অবসরে যান। রেজাউল ইসলাম হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকতে পারে এমন সন্দেহে মনা ও পলি খাতুনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতার করে। কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইলিয়াস হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, কে বা কারা খুন করেছে পুলিশ তদন্ত করছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হত্যাকান্ডের ঘটনায় অভিযোগ জমা দেয়নি। যার ফলে কারা জড়িত তা জানা যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here