যশোরের পল্লীতে প্রকাশ্যে যুবক এজাজকে গুলি করে হত্যা মামলায় নয় আসামীর বিরুদ্ধে সিআইডি’র চার্জশীট

0
256

এম আর রকি : যশোর সদর উপজেলা ঝাউদিয়া পূর্বপাড়ার এজাজ (৩৫) কে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যার ঘটনায় নয় আসামীর বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি যশোর জোনের পুলিশ পরিদর্শক হারুন-অর-রশিদ চার্জশীট দাখিল করেন।
দাখিলকৃত চার্জশীটে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হচ্ছে, যশোর সদর উপজেলার ঝাউদিয়া গ্রামের খরু ওরফে আবুল খায়ের বিশ্বাসের ছেলে সবুজ,একই গ্রামের মৃত ফজের আলী সর্দারের ছেলে মেহের আলী,মৃত মোহাম্মদ আলী মন্ডলের ছেলে গোলাম মোস্তফা ওরফে মোস্ত,ঝাউদিয়া কারিগর পাড়ার শওকত হোসেন ওরফে সাকার ছেলে আব্দুল কাদের ওরফে আব্দুল,ঝাউদিয়ার মৃত হামজা মন্ডলের ছেলে আবুল কালাম ওরফে কালাম,ঝাউদিয়া পূর্বপাড়ার মৃত মকছেদুল হকের ছেলে কবির হোসেন,ঝাউদিয়ার মৃত মোহাম্মদ আলী মন্ডলের ছেলে আলাউদ্দিন ওরফে আলা,ঝাউদিয়া পূর্বপাড়ার ইলিয়াছ গাজীর ছেলে জনি গাজী ও হাফিজুর রহমান ওরফে হাফিজের ছেলে আজিজুল হক ওরফে আজিজ।
সদর উপজেলার ঝাউদিয়া পূর্বপাড়ার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে বাদল হোসেন বাদি হয়ে গত বছর ২০১৬ সালের ১০ অক্টোবর দুপুর ২টার পর কোতয়ালি মডেল থানায় স্বাক্ষী একই এলাকার আন্তাজ আলীকে সাথে নিয়ে এজাহার দায়ের করেন। কোতয়ালি থানার মামলা নং ৪৮ তারিখঃ ১০/১০/১৬ ইং ধারা ৩০২/৩৪ পেনাল কোড। মামলাটির তদন্তর ভার তৎকালীন কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাজিয়ালী পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই আসাদুজ্জামানকে তদন্তর ভার দেন। আসাদুজ্জামান তদন্তকালে বেশ কয়েকজন আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। আজিজুল হক ওরফে আজিজ ছাড়া বাকী সকল আসামীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, বাদীর বড় ভাই শহিদুল ইসলামকে উল্লেখিত আসামীরা হত্যা করায় এজাজ উক্ত মামলা তদ্বীর করে। এতে আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে এজাজ ও বাদীর অন্যান্য ভাইকে হত্যা করার হুমকী ও ষড়যন্ত্র করতে থাকে। গত বছর ১০ অক্টোবর সকালে এজাজ ও আন্তাজ আলী মাঠ থেকে মুলা নিয়ে চুড়ামনকাটি বাজারে যায়। সেখান থেকে এজাজ ও আন্তাজ আলী মোটর সাইকেল যোগে ও বাদী বাদল হোসেন অপর একটি মোটর সাইকেল যোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে। সকাল ৮ টার পর মোটর সাইকেলটি ছাতিয়ানতলা মল্লিক পাড়া এলাকায় পৌছালে উল্লেখিত আসামীরা মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে। আসামী মোস্তফার হুকুমে মেহের এজাজকে জাপটে ধরে এ সময় সবুজ মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে। গুরুতর আহত অবস্থায় এজাজকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করে। ৩০ অক্টোবর মামলাটি সিআইডি পুলিশের দপ্তরে গেলে পুলিশ পরিদর্শক হারুন অর রশিদ তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন। তিনি তদন্ত করে উল্লেখিত আসামীরা হত্যাকান্ডের জড়িত প্রমান পেয়ে বাদীসহ ২৩জন স্বাক্ষী ও ৩টি আলামত উল্লেখ করে সোমবার আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। অভিযোগ পত্র নং ৫৪৫ তারিখঃ৩১/০৩/১৭ইং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here