যশোরের বাজারে সবজিতে স্বস্তি থাকলেও পিঁয়াজে অস্বস্তি

0
367

ডি এইচ দিলসান : যশোরের কাঁচাবাজারে সরবরাহ বাড়ায় দাম কমেছে সব ধরনের সবজির। তবে পুরোপুরি নাগালে আসেনি পিঁয়াজের দামে। শনিবার যশোরের বড়বাজার, চুয়াডাঙ্গা বাসস্টান্ড বাজার, রেল বাজারসহ কয়েকটি কাঁচাবাজার সরেজমিন ঘুরে এ তথ্য জানা যায়। ব্যবসায়ীরা বলেছেন, বাজারে শীতকালীন সবজির সরবরাহ বেড়েছে। ফলে সবজির দাম এখন কমতির দিকে। সামনে দাম আরো কমবে।
গতকাল বাজারে বিভিন্ন ধরনের সবজির মধ্যে বেগুন ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, নতুন আলু ১৫ থেকে ২০ টাকা, পুরোনো আলু ১০ টাকা, ফুলকপি, বাঁধাকপি ১৫ থেকে ২০ টাকা, সিম ২০ থেকে ৩০ টাকা, টমেটো ৪০ থেকে ৫০ টাকা, করলা ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, শসা ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, লাউ ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, মূলা ৫ থেকে ১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। যা এক মাস আগের তুলনায় সবজিভেদে কেজিতে ১০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত কমেছে। কমেছে কাঁচামরিচের দামও। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। তবে পুরোপুরি স্বস্তি ফেরেনি পিঁয়াজের দরে। দাম কিছুটা কমলেও এখনো প্রতি কেজি দেশি পিঁয়াজ ( মুড়িকাটা) ৬০ থেকে ৬৫ টাকা ও আমদানিকৃত পিঁয়াজ ৫০ থেকে ৭৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে বাজারে ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা বেড়েছে। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয় ১২০ থেকে ১২৫ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ১১০ থেকে ১১৫ টাকা। এ ছাড়া দেশি মুরগি ৩৫০ থেকে ৩৮০ টাকা, লেয়ার লাল মুরগি ১৭০ টাকা, গরু ৪০০ টাকা, খাসী ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়।
মাছের মধ্যে রুই, কাতলা ২০০ থেকে ৩০০ টাকা, সরপুঁটি ১৫০ থেকে ২০০ টাকা, তেলাপিয়া ৮০ থেকে ১৫০ টাকা, পাঙ্গাস ১০০ থেকে ১৫০ টাকা, শিং, মাগুর ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়।
কথা হলো যশোরের ঘোপের বাসিন্দা মোঃ হুসাইনের সাখে, তিনি বলেন এখন ২০০ টাকার বাজার করলে প্যাকেট ভরে যায়. তবে পিয়াজের দাম একটু বেশি থাকায় অস্বস্তিতে পড়তে হয়, তিনি বলেন, যদিও গত মাসের তুলনায় পিয়াজের দাম প্রায় অর্ধেক কুমেছে, তবে আরো কমে ৩০ টার মধ্যে এলে ক্রয় ক্ষমতার নাগালে আসে।
কথা হলো যশোরের বড় বাজারের কাচামাল ব্যবসায়ী হারুনের সাথে, তিনি বলেন, নতুন পিয়াজ আসা শুরু করেছে আগামী সপ্তাহ নাগাদ পিয়াজের দাম আরো কমে যাবে। তাছাড়া তিনি বলেন এখন বাজারে সবজির সরবরাহ বেশি থাকায় সবজির দাম অনেক কম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here