যশোরের বেনাপোল বন্দর শেডে রহস্যজনক চুরি

0
166

আশানুর রহমান আশা বেনাপোল থেকে : বেনাপোল স্থলবন্দরের ২২ নম্বর শেডের তালা ভেঙে আমদানি পণ্য চুরির ঘটনা ঘটেছে। রহস্যজনক চুরির পাঁচ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো কী কী পণ্য চুরি হয়েছে তা নির্ণয় করতে পারেনি বন্দর কর্তৃপক্ষ। চুরিতে জড়িতদের এখনো পর্যন্ত আটক করা সম্ভব হয়নি।

অন্যদিকে বন্দরের শেড ইনচার্জ ও নিরাপত্তা সংস্থা আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্যরা পরস্পরের বিরুদ্ধে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ তুলেছেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এতে হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা।
বেনাপোল বন্দরে চুরি যাওয়া ২২ নম্বর শেডের (গুদাম) ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম জানান, গত বুধবার (১২ এপ্রিল) রাতে পণ্যাগারের ডিউটি শেষে তিনি ও বন্দরের নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যরা যৌথভাবে তালা লাগিয়ে সিলগালা করেন। রাতে পাহারায় ছিলেন আনসার সদস্য। পরের দিন বৃহস্পতিবার সকালে তিনি ও আনসার সদস্য উভয়ে আবার পণ্যাগারের সিলগালা খুলে ভেতরে ঢুকে দেখেন মালামাল লন্ডভন্ড। পেছনের একটি গেটের তালা ভাঙা । এ চুরিতে নিরাপত্তা কর্মী আনসার সদস্যের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ তোলেন তিনি। লিখিতভাবে বিষয়টি বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালককে জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।
এদিকে বন্দরের নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার ব্যাটালিয়নের প্রধান (পিসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এ চুরিতে স্টোরকিপারের হাত রয়েছে। তারা মালামাল আগে থেকে বের করে নিয়ে এখন নাটক সাজাচ্ছে। ওই পণ্যাগারের তালা ভাঙা হয়নি। সেটা আগে থেকে খুলে রাখা হয়েছিল। এ চুরিতে আনসারের কোনো সদস্য জড়িত নেই। বিষয়টি নিয়ে থানায় জিডি করা হয়েছে। সঠিকভাবে নিরপেক্ষ তদন্ত হলে সত্য তথ্য বেরিয়ে আসবে।’
বেনাপোল স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক অভিযোগ করে বলেন, ‘বার বার চুরির ঘটনা ঘটলেও কারো কোনো নজরদারি নেই এ বন্দরে। চুরি প্রতিরোধে বন্দর কর্তৃপক্ষকে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের অনুরোধ জানানো হলেও এ পর্যন্ত তা কার্যকর হয়নি। বন্দরে হাজার হাজার কোটি টাকার পণ্য থাকলেও কেন বন্দর কর্তৃপক্ষের সিসি ক্যামেরা লাগাতে অবহেলা করছে বুঝতে পারছি না।’
তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘বন্দর থেকে পণ্য চুরি হলে শুধু লোকসান গুণতে হয় ব্যবসায়ীদের, বন্দরের কারো কিছু হয় না। এভাবে চলতে থাকলে এ পথে কেউ আর আমদানি করবে না।’
বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ট্রাফিক) আমিনুল ইসলাম চুরির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘তদন্ত কমিটি হচ্ছে। তারা চুরির ঘটনা ও চুরি যাওয়া পণ্যের হিসাব নির্ধারণ করবে। এক্ষেত্রে কারো বিরুদ্ধে চুরির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here