যশোরের ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি, স্বারকলিপি প্রদান

0
214

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের দুঃখ ভবদহ জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানে অবিলম্বে পরিকল্পিত জোয়ারাধারের (টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট- টিআরএম) সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ দাবি করা হয়েছে। ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির উদ্যোগে বুধবার সকালে এক স্মারকলিপি প্রদানের মাধ্যমে এ দাবি জানানো হয়। স্মারকলিপি গ্রহণ করেন যশোর জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিন।

স্মারকলিপিতে মণিরামপুর, অভয়নগর ও কেশবপুর উপজেলায় জলাবদ্ধতায় বিপর্যয়কর পরিস্থিতি হাত থেকে জনপদ রক্ষায় আগামী মাঘী পূর্ণিমার আগেই বিলকপালিয়ায় পরিকল্পিত জোয়ারাধার (টিআরএম) বাস্তবায়ন ও পর্যায়ক্রমে অন্যান্য বিলে টিআরএম বাস্তবায়নে এলাকার দুর্দশাগ্রস্থ জনগণের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। একইসাথে এ জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানে অবিলম্বে পরিকল্পিত জোয়ারাধার এর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নসহ মানবিক বিপর্যয়ের হাত থেকে জনপদকে রক্ষায় ৫ দফা দাবি জানানো হয়। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে বর্তমানে ভবদহ এলাকায় মানবিক বিপর্যয় রোধে খাদ্য নিরাপত্তা, চিকিৎসা, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপুরণ ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে, বিল কপালিয়ায় টিআরএম বাস্তবায়নে গৃহীত সিদ্ধান্ত অবিলম্বে বাস্তবায়ন করণ, আমডাঙ্গা খাল সংস্কার, ভবদহ স্লুইসগেটের ২১ ও ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগ করণ, হরিহর, আপারভদ্রা ও বুড়িভদ্রায় জরুরী ভিত্তিতে পলি অপসারণ, সকল খাল পুনরুদ্ধার ও অবমুক্ত করণ এবং অপরিকল্পিত ঘের নয়, পানি প্রবাহে সকল বাঁধা উচ্ছেদ ও ঘের সংক্রান্ত সরকারি নীতিমালা প্রনয়ণ।
স্মারকলিপি প্রদান শেষে ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক রনজিৎ বাওয়ালী ও কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদসহ নেতৃবৃন্দ যশোর জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিনের সাথে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বসেন। এসময় কমিটির নেতৃবৃন্দ ভবদহ অঞ্চলের জলাবদ্ধতার প্রেক্ষাপট ও ভয়াবহতা তুলে ধরেন। তারা বলেন, মুক্তেশ্বরী টেকা, হরি ও শ্রী নদীতে পলি জমে তলদেশ উঁচু হয়েছে। নদীগুলোর পলি অপসারণে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। একই সঙ্গে টিআরএম বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। ফলে ভবদহ অঞ্চলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। যা ধীরে ধীরে বিস্তৃত হচ্ছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে অচিরেই সমগ্র দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল জলমগ্ন হয়ে পড়বে। তিনি বলেন, অবিলম্বে পরিকল্পিতভাবে টিআরএম চালু করা না হলে এ জলাবদ্ধতা স্থায়ী সমাধান হবে না। এছাড়া জলাবদ্ধতা নিরসনে, নদীগুলোর পলি অপসারণ ও অবৈধ মাছের ঘের উচ্ছেদ করা আজ সময়ের দাবি। জেলা প্রশাসক কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস দেন।

উপস্থিত ছিলেন ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির প্রধান সমন্বয়ক বৈকুণ্ঠ বিহারী রায়, যুগ্ম সমন্বয়ক গাজী আব্দুল হামিদ, কেশবপুর উপজেলা-ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক এড. আবু বক্কর সিদ্দিকী, কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলন কমিটির আহ্বায়ক অনিল বিশ্বাসসহ ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here