যশোরের মণিরামপুরে ২১ শহীদের স্মৃতিস্তম্ভ’র জায়গায় দলীয় কার্যালয় ও চায়ের দোকান

0
150

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের মণিরামপুর উপজেলার কপালিয়া বাজারের খেয়াঘাট, উলুরডাঙ্গী ও কালকেতলা নামক স্থানে ২১ শহীদের স্মৃতি রক্ষার্থে গণকবর (বধ্যভূমি) সংরক্ষণের জন্য এখনও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। শহীদদের স্মরণে দুইটি গণকবর সংরক্ষণ করে সেখানে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের জন্য স্থানীয়ভাবে একটি কমিটি গঠন করে ২০১১ সালের ১৬ ডিসেম্বর সাবেক হুইপ অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল ওহাব ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেছিলেন। কিন্তু দীর্ঘ ৯ বছর পার হলেও আজ পর্যন্ত তা বাস্তায়নের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেননি কেউ। বর্তমানে ভিত্তিপ্রস্তরটি অযত্ন-অবহেলায় পড়ে আছে। সেখানে তৈরি করা হয়েছে দুটি সংগঠনের কার্যালয় ও একটি চায়ের দোকান।

এলাকায় সরেজমিনে কথা হয় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের সাথে। তাদের কাছ থেকে জানা যায়, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধচলাকালীন মুুক্তিযোদ্ধাদের খাদ্য সরবরাহ ও আশ্রয় দেয়াসহ বিভিন্ন সহযোগিতা করার কারণে ১১ আগস্ট রাতে এলাকার রাজাকারদের সহযোগিতায় পাকবাহিনী মণিরামপুর উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের আটজন এবং পশ্চিম কপালিয়ার একজন মুক্তিকামী যুবককে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে চোখ বেঁধে উলুরডাঙ্গী ও কালকেতলা নামক স্থানে সারিবদ্ধ করে ব্রাশ ফাঁয়ারে নৃশংসভাবে হত্যা করে। হত্যার পর হানাদার সদস্যরা সেখানে একটি গর্ত খুঁড়ে আট শহীদকে একসাথে মাটিচাপা দেয় এবং একজনকে পানিতে ভাসিয়ে দিয়ে চলে যায় তারা। শহীদ মুক্তিযোদ্ধারা হচ্ছেন মশিয়ার রহমান, শওকত আলী, মনোহরপুরের জয়নাল আলী, আতিয়ার রহমান, গোলাম সরোয়ার, আকবর হোসেন, সোহরাব বিশ্বাষ এবং নড়াইল জেলার কালিয়ার আতিয়ার রহমান ও পশ্চিম কপালিয়ার ফুলটনি।

এছাড়া একই অভিযোগে হানাদাররা ৫ অক্টোবর রাতে কাপালীয়ার ৪১ জন যুবককে ধরে নিয়ে যায় কপালিয়া খেয়াঘাটের পাড়ে (বর্তমানে সেখানে কপালীয়া ব্রিজ)। এদের মধ্যে মুুক্তিকামী ১২ জন যুবকে আটকে রেখে অন্যদের মারপিট করে ছেড়ে দেয়া হয়। পরে ওই রাতেই ১২ জনের চোখ বেঁধে বেয়োনেট দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে খুুঁচিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত করাসহ ক্ষতস্থানে লবণ লাগানো হয়। এমন নির্যাতনের এক পর্যায়ে তাদেরকেও গুলি করে হত্যার পর ফেলে রাখা হয় নদীর পাড়ে। সেখানেও একটি গর্ত খুঁড়ে মাটি চাপা দেয় হানাদার বাহিনী। এখানকার ১২ শহীদ হচ্ছেন, ফজলুর রহমান, গোলজার হোসেন, আব্দুস সামাদ, আনছার আলী, ওয়াজেদ আলী, জোনাব আলী, ঠাকুর দাস, চিত্ত রঞ্জন, মনোরঞ্জন, নূর মোহাম্মদ, ইকবাল হোসেন এবং রাজেস্বর।

তিনটি স্থানে ১৯৭১ সালের আগস্ট ও অক্টোবর মাসে পাকহানাদার বাহিনীর হাতে নৃশংসভাবে শহীদ হয়েছিলেন এলাকার ২১ সূর্যসন্তান। স্বাধীনতার ৪০ পর ২০১১ সালের ১৬ ডিসেম্বর কপালিয়া ব্রিজের ওপর আলোচনাসভা শেষে জাতীয় সংসদের তৎকালীন হুইপ অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল ওহাব বদ্ধভূমি হিসেব ভিত্তিপ্রস্থর উদ্বোধন করেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বর্তমান স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার বর্তমান নগর সম্পাদক মধুসূদন মন্ডল, বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কালিপদ বিশ্বাসসহ আরও অনেকেই। গত ৯ বছর অতিবাহিত হলেও আজ পর্যন্ত সেখানে কোন স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ হয়নি। বর্তমানে ভিত্তিপ্রস্তরটি অযত্ন-অবহেলায় পড়ে রয়েছে।

ভিত্তিপ্রস্তরটিকে ঘিরে ফেলানো হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের পরিত্যক্ত বর্জ্য। তার উত্তর পাশে গড়ে উঠেছে দুটি সংগঠনের কার্যালয় ও একটি চায়ের দোকান। কার্যালয় দুটি হচ্ছে মনোহরপুর ইউনিয়নের ৫ ও ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আঞ্চলিক কার্যালয় ও আরেকটি বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কার্যালয় এবং অপরটি হচ্ছে দিলিপ সাহার চায়ের দোকান। এলাকাবাসী এসব শহীদের স্মৃতি রক্ষা করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
স্বাধীনতার কয়েক বছর পর মনোহরপুর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিরক্ষা পরিষদের ব্যানারে ৯ সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এ কমিটির আহবায়ক ছিলেন মনোহরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বিএম মোস্তফা মহিতুজ্জামান এবং কপালীয়া খেয়াঘাটের তীরে হানাদারের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া মোহাম্মদ আলী সরদার ছিলেন সদস্য সচিব।

পাকহানাদারদের হাতে নির্মম নিহত শহীদদের উদ্ধারকারী প্রত্যক্ষদর্শী ও মনোহরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক কপালিয়া গ্রামের পরিতোষ বিশ্বাস বলেন, ঘটনার রাতে হত্যা করা ২১ জনের মধ্যে ১৮ শহীদের মরদেহ উদ্ধার করা গেলেও বাকি ৩ জনের মরদেহ আজও নিখোঁজ। এসব শহীদের স্মৃতি রক্ষার্থে এলাকার কৃতী সন্তান বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার সিটি এডিটর সাংবাদিক মধুসুদন মন্ডলের পৃষ্ঠপোষকতায় আমরা তাদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণে ভূমিকা নিয়েছিলাম। ভিত্তিপ্রস্তরটি উদ্বোধন করতে সক্ষম হলেও কালের আবর্তনে বাকি কাজটি শেষ নামানো সম্ভম হয়নি। এরপরও আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে শহীদদের স্মৃতি রক্ষা করার জন্য।

স্মৃতি রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব মোহাম্মদ আলীর সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি অত্যন্ত ক্ষোভের সাথে বলেন, মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট নিয়ে অনেক ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও পরিবার আজ রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে চলেছেন। অথচ কপালীয়ার ২১ শহীদের নামটি আজও পর্যন্ত ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ করা হয়নি। এমনকি তাদের সন্তানদের মধ্যে অনেকেই বর্তমান ভ্যান চালিয়ে এবং দিনমজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে চলেছেন। আর স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তরটি আজ ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ জাকির হাসান বলেন, আমি মণিরামপুর উপজেলায় যোগদান করেছি অল্পদিন হচ্ছে। বিষয়টি যতদ্রুত সম্ভব খোঁজখবর নিয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট শহীদদের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।