যশোরের মাদকের বড় দু’টি চালানের একটি বিজিবি’র হাতে জব্দ ও অপরটির হদিস নাই

0
298

এম আর রকি : মঙ্গলবার ভোর রাতে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা শ্রীরামপুর গ্রাম থেকে ফেনসিডিল বোঝাই প্রাইভেট কারসহ দু’জনকে গ্রেফতারের খবর পাওয়া গেছে। চৌগাছা উপজেলার বেড় গোবিন্দপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তার ধাবকের ছেলে ফেনসিডিল স¤্রাট এক্সেরে ও তার প্রাইভেট কারের চালক চৌগাছা বিশ্বাস পাড়ার সাইদুল গ্রেফতার হলেও পুলিশ অস্বীকার করছে। এক্সের ও সাইদুলের পরিবার থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ,মঙ্গলবার ভোর রাতে যশোরের চৌগাছা উপজেলার বেড় গোবিন্দপুর গ্রামের ফেনসিডিল স¤্রাট এক্সেরে তার একটি ট্রাকে ও প্রাইভেট কারে ফেনসিডিল নিয়ে যশোরের উদ্দেশ্যে আসছে। এমন খবর পেয়ে সাদা পোশাকে পুলিশের একটি দল যশোর চৌগাছা ও ঝিকরগাছা উপজেলা ছুটিপুর সড়কে অবস্থান নেয়। ফেনসিডিল বহনকরে ট্রাক ও প্রাইভেট কারটি ঝিকরগাছা উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের মাঠের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সময় সাদা পোশাকের একদল পুলিশ ব্যরিকেট দিয়ে প্রাইভেট কারটি থামায়। প্রাইভেট কারের মধ্যে থাকা ফেনসিডিল স¤্রাট এক্সেরে ও তার চালক সাইদুলকে পুলিশ গ্রেফতার করে। প্রাইভেট কারের মধ্যে থাকা ৩ হাজার বোতল ফেনসিডিলসহ প্রাইভেটকারটি সাদা পোশাকে পুলিশ হেফাজতে গ্রহন করে। এদিকে প্রাইভেট কারটি ধরা পড়লেও সাথে থাকা ট্রাক দ্রুত চালিয়ে মুড়োলী মোড়ে পৌছালে সেখানে বিজিবি’র একটি টহল দলের হাতে জব্দ হয়। ট্রাকে থাকা চালক আব্দুল আজিজ পালিয়ে যায়। বিজিবি’র টহল দলটি ফেনসিডিলবহনকারী ট্রাকটি বিজিবি’র দপ্তরে নিয়ে গিয়ে ট্রাকের চালকের পিছনে কেবিনে থাকা বক্স থেকে ৩৬ শ’ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার দেখিয়ে যশোর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন জেলা কার্যালয়ের ক সার্কেলের কাছে হাওলা করলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ দপ্তর জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তা বাদি হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় পলাতক চালক আব্দুল আজিজসহ সহযোগীদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়ের করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সূত্রগুলো জানিয়েছেন, পুলিশের হাতে প্রাইভেটকার বোঝাই ফেনসিডিলসহ গ্রেফতারকৃত এক্সরে ও চালক সাইদুলের গ্রেফতারের ব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিসার ইনচার্জ ইমাউলের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান তারা বিষয় সম্বন্ধে কিছু জানেনা। মঙ্গলবার জেলা গোয়েন্দা শাখার কোন এসিভমেন্ট নেই। পুলিশের হাতে ফেনসিডিল বোঝাই প্রাইভেটকারসহ মাদক সম্রাট এক্সরে ও চালক সাইদুল আটকের ব্যাপারে অতিরিক্ত পুরিশ শহীদ আবু সরোযারের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন এ ধরনের খবর তার জানা নাই। এদিকে এক্সরে পরিবারের পক্ষ থেকে আটকের ব্যাপারে নিশ্চিত করা হয়েছে। তাহলে মাদক স¤্রাট এক্সরে ও তার প্রাইভেট কারের চালক সাইদুল ইসলামের মোবাইল ফোন বন্ধ কেন? এমন প্রশ্ন তুলেছে তাদের পরিবার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here