যশোরের রাজপথ সামলাচ্ছেন অপান্বিতা বৈরাগী

0
21

নিজস্ব প্রতিবেদক : সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর পদচারনা পুরুষের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। সমান তালে এগিয়ে যাচ্ছে নারীরা। সমাজের বাঁকা চোখ আর সমালোচনাকে টপকে অনন্য মাত্রায় যোগ হচ্ছে অনেক নারীর কর্মযজ্ঞ। ঠিক এমন একজন অপান্বিতা বৈরাগী। যিনি বর্তমানে নারী সার্জেন্ট হিসেবে সামলাচ্ছেন যশোরের রাজপথ। খোলা আকাশের নিচে, রোদ-বৃষ্টি, ধুলা-বালি সয়ে হাজারও যানবাহনের শৃঙ্খলা আনতে কাজ করছেন তিনি।

পাবনার ঈশ্বরদী ও খুলনা মেট্রোপলিটনে ট্রাফিক সার্জেন্ট হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন অপান্বিতা বৈরাগী। বর্তমানে সকাল থেকে যশোর শহরের দড়াটানা এলাকায় দেখা মেলে তার। জেলা পর্যায়ে তিনি যশোরের প্রথম নারী ট্রাফিক সার্জেন্ট।

দেশে পুলিশ বাহিনীতে নারী সার্জেন্ট নিয়োগ শুরু হয় ২০১৪ সালে। সর্বশেষ সার্জেন্ট পদে নিয়োগের পরীক্ষায় অংশ নেন এক হাজার ৮৩৭ জন। এর মধ্যে নারী প্রার্থী ছিলেন ৪৬ জন। সব প্রক্রিয়া শেষে নিয়োগ পান ২৮ জন।

খুলনার মেয়ে অপান্বিতা জানান, ২০১৭ সালে তিনি পুলিশের ট্রাফিক বিভাগে যোগ দেন। চাকরির বয়স বর্তমানে ৫ বছর। এই সময়ে কখনও অনুভব করেননি এ পেশা নারীদের জন্য নয়। বরং সব সময় মনে করেন এটি চ্যালেঞ্জিং পেশা।

তার ভাষ্যে, ‘যোগ্যতা দিয়ে নিজেকে প্রমাণ করতে হয়। একজন পুরুষও যে কাজ করছে, আমিও তা করছি। সবার কাজই সমান। এখানে কাউকে পৃথক করে দেখার সুযোগ নেই। আসলে দেশের পুলিশ ব্যবস্থা এমনভাবে সাজানো, যেখানে মানুষের প্রত্যক্ষ সেবা করার সুযোগ রয়েছে। কেউ যদি এ পেশায় আসতে চায় সে ক্ষেত্রে তাদের বলব, এটি ভালো পেশা। জনগণের সেবা করার উদ্দেশ্যে আসুন। আমরাও চাই পুলিশে আরও অধিক হারে নারীর অংশগ্রহণ।’

ট্রাফিক বিভাগে সার্জেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালনে অপান্বিতাকেও শুনতে হয় কটুকথা। তবে সেসব নিয়ে কখনও হতাশা বা বাধা অনুভব করেন না তিনি। অপান্বিতা বলেন, ‘নারী সার্জেন্ট দেখে সবাই একটু তাকায়। তবে এসব বিষয় হ্যান্ডেলিং করার প্রশিক্ষণ নেওয়া হয়েছে। ছোট-ছোট কিছু বিষয় ছাড়া কোনও সমস্যা হয় না। ধীরে ধীরে সব ঠিক হয়ে যাবে।’

ছোটবেলা থেকে পুলিশের প্রতি আকর্ষণ ছিল অপান্বিতার। তিনি বলেন, ‘পুলিশের ইউনিফর্মের প্রতি আকর্ষণ ছিল। এই ইউনিফর্ম পরে সব শ্রেণির মানুষকে সেবা দেওয়া সম্ভব।’