যশোরের শার্শায় গুম হওয়া যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার:গ্রেফতার-৩

0
76

আশানুর রহমান আশা বেনাপোল – গুম করার ০৬ দিনের মাথায় মাটিতে পুঁতে রাখা নাভারণ(শার্শা) আকিজ বিড়ি ফ্যাক্টরীর শ্রমিক ইসরাফিল হোসেন(৩৭) এর লাশ উদ্ধার করেছে যশোর ডিবি পুলিশের কর্মকর্তারা। নিহতের সাথে জড়িত ০৩ জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলো-
(১) নুর আলম (৪২) পিতা- নুর মোহাম্মদ, (২) মোঃ মোশারফ হোসেন (৪৫) পিতামৃত- আহম্মদ আলী,(৩) মর্জিনা বেগম (৩২) স্বামী-ইসমাইল হোসেন,সর্বসাং-কাশিয়াডাঙ্গা, থানা-শার্শা,জেলা-
যশোর।

যশোর ডিবি পুলিশের প্রেসব্রিফিং এ জানানো হয়েছে, গত ২৭ আগষ্ট/২০২১ ইং তারিখ রাত ৯টার দিকে শার্শা থানাধীন ঘটনা স্থান কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের মোঃ বজলুর রহমানের ছেলে ইসরাফিল হোসেন নিখোঁজ হয়,প্রায় দুইদিন ধরে তার খোঁজ না পাওয়ায় নিহতের স্ত্রী রোজিনা বেগম সন্দেহ পরায়ণ ০৩ জন আসামীর নাম উল্লেখ করে শার্শা থানায় একটি জিডি দায়ের করেন। জিডি নং- ১১৭৫,তারিখ:-২৯/৮/২০২১ ইং।

শার্শা থানার নিখোঁজ জিডি’র বিষয় যশোর জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয় নিজ আমলে নেয়। নিখোঁজ ইসরাফিলের তদন্তের ব্যাপারে গত ৩১/৮/২০২১ ইং তারিখ জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি রুপন কুমার সরকার,পিপিএম এর উপর দায়িত্ব প্রদানের একটি নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) (ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার) জাহাঙ্গীর আলম এর দিক-নির্দেশনায়. অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম/প্রশাসন), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার “ক” সার্কেল ও নাভারণ সার্কেলের সিনিঃ সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে ওসি ডিবি(যশোর) রুপন কুমার সরকার, পিপিএম এর নেতৃত্বে জিডি’র তদন্তের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই মফিজুল ইসলাম, পিপিএম সঙ্গীয় এসআই শাহিনুর রহমান, এএসআই এসএম ফুরকান তাদের ফোর্সসহ একটি চৌকষ টিম অনুসন্ধানে নামে।

উক্ত অনুসন্ধান টিম ০১ সেপ্টেম্বর/২০২১ ইং তারিখ বুধবার বেলা ১টার দিকে আসামী ০৩ জন কে গ্রেফতার করে তাদের দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবান বন্দিতে লাশ পুঁতে রাখার স্থান জানিয়ে দেয়। আসামীদের দেওয়া তথ্য মোতাবেক কাশিয়াডাঙ্গা মোড়লবাড়ী বড় কবরস্থানে মাটি চাঁপা দেওয়া নিখোঁজ ইসরাফিলের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়।

লাশ উদ্ধারের পর নিহত ইসরাফিলের স্ত্রী রোজিনা বেগম বাদী হয়ে আর একটি হত্যা মামলা দায়ের করে, মামলা নং-০২ তাং- ০১/০৯/২০২১ খ্রিঃ, ধারা-৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়। মামলাটি জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মফিজুল ইসলাম, পিপিএম তদন্ত করছেন। তদন্ত শেষে নিখোঁজ ইসরাফিলের হত্যা রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে বলে নাভারণ সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান জানিয়েছেন।