যশোরের শার্শায় ফরিদ হত্যায় একজনের যাবজ্জীবন ও সহযোগী পাঁচ জনের বিভিন্ন মেয়াদে সশ্রম কারাদন্ড

0
325

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরে ফরিদ হত্যা মামলায় একজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড এবং ৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও অর্থ দন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। স্পেশাল জজ (জেলা জজ) আদালতের বিচারক শেখ ফারুক হোসেন বুধবার এ পাঁচ আসামির কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছেন। নিহত ফরিদ হোসেন শার্শা উপজেলার রাড়িপুকুর গ্রামের বাসিন্দা। দন্ড প্রাপ্তরা হলো, শার্শা উপজেলার রাড়িপুকুর গ্রামের রমজান আলী গাজীর ছেলে সিদ্দিক হোসেন, একই এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে মন্টু, ফুলশাহের ছেলে ওমর আলী, ইয়াকুব আলীর ছেলে আবুল হোসেন, ফকির আলীর ছেলে আব্দুস সামাদ।
১৯৯৭ সালের ৯ এপ্রিল আসামিদের হাতে খুন হয় ফরিদ উদ্দিন। জমিজমা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ফরিদের বাবা মহব্বত আলীর সাথে গোলোযোগের জেরে খুন হয় ফরিদ। এ ঘটনায় মহব্বতের জামাই ঝিকরগাছা উপজেলার বোধখানা গ্রামের মোকলেস শার্শা থানায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, গত ২/৩ বছর আগে তার শ্বশুর মহব্বত আলীর ৫০০০ টাকায় একটি জমি আসামি আব্দুস সাত্তারের কাছে বন্ধক রাখে। এ টাকার ৪৫০০ টাকা পরিশোধ করে বাকি ৫০০ টাকা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে পরিশোধ করবে শর্তে ওই জমিতে হালচাষ করার জন্য যান। কিন্তু টাকা না দিয়ে হাল চাষ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে সাত্তার। এরপর ছাত্তারসহ অন্য আসামিরা এসে মহব্বত আলীর ওপর আতর্কিত হামলা চালায়। এসময় বাবাকে উদ্ধার করতে ফরিদ গেলে তার মাথায় সিদ্দিক প্রথমে বাঁশ দিয়ে আঘাত করে। এতে তার মাথার ভেতরে বাঁশ ঢুকে যায়। মন্টুও ফের আঘাত করে বাঁশ দিয়ে। একপর্যায়ে রামদার গুরুতর আঘাতে ফরিদ জখম হলে প্রথমে তাকে যশোরের একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ১০ টায় ফরিদের মৃত্যু হয়।
এ মামলায় নয়জনকেই অভিযুক্ত করে ১৯৯৭ সালের ২৫ এপ্রিল শার্শা থানার এস আই কাজী আয়ুবুর রহমান আদালতে চার্জশিট দেন। আসামিদের মধ্যে আব্দুস সাত্তারের মৃত্যু হয়। মামলা চলাকালে ১৭ স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার আদালত সিদ্দিক হোসেনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা এবং মন্টু, ওমর আলী, আবুল হোসেন, সামাদকে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ২০০০ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ মাসের কারাদন্ডের আদেশ দেন। একই সাথে এ মামলায় পৃথক ধারায় প্রত্যেকের ৩ মাসের বিনামশ্রম কারাদন্ড ও ৫০০ টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরো ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ দেন।এছাড়া, মামলা থেকে ওই এলাকার সোয়েল উদ্দিনের ছেলে রবিউল হোসেন, সিদ্দিকের স্ত্রী রাশিদা বেগম, আবুল হোসেনের স্ত্রী জহুরা খাতুনকে খালাশ প্রদান করা হয়। রাষ্ট পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন স্পেশাল পিপি এস এম বদরুজ্জামান পলাশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here