যশোরের শ্রাবণের ছাত্রদলের নেতৃত্ব নিয়ে আলোচনা তুঙ্গে

0
129

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের কেশবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাজী রফিকুল ইসলামের ছেলে কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির নতুন সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় আলোচনার ঝড় এখন তুঙ্গে। বিএনপির ছাত্রসংগঠন ছাত্রদলের নেতৃত্বে কিভাবে আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে আসলেন তা নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা। বিগত উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে বিদোহী প্রার্থী হন কাজী রফিকুল ইসলাম। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে তিনি পরাজিতও করেন।

কেশবপুরে কাজী পরিবারের প্রায় সবাই আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ছাত্রদলের সভাপতি হওয়ায় এলাকায় এখন সর্বত্র এ ঘটনা নিয়ে আলোচনা চলছে। আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে এ নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

স্থানীয় সূত্র জানায়, রফিকুল ইসলামের বড় ছেলে কাজী মুস্তাফিজুর রহমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। মেজ ছেলে কাজী মুজাহিদুল ইসলাম পান্না উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক। সেজো ছেলে কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক।

আর রফিকুল ইসলামের ছোট ছেলে রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ। তার সঙ্গে পরিবারের কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানান তার বড় ভাই কাজী মুস্তাফিজুর রহমান।

কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণের বড় ভাই মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, শ্রাবণ ছাত্রদলের নেতা হওয়ায় আমার বাবা কাজী রফিকুল ইসলাম সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন।

তিনি বলেন, আমরা পাঁচ ভাই ও এক বোন। সবার ছোট শ্রাবণ। মেধাবী ছাত্র। ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িত। রাজনীতির কারণে ১৫ বছর ধরে পরিবারের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এলাকায় এসেছিল ধানের শীষের প্রার্থীর পক্ষে ভোট করতে। কিন্তু বাড়িতেও আসেনি।

এ বিষয়ে কেশবপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা বলেন, মুখোশের আড়ালে নিজেকে বেশিক্ষণ লুকানো যায় না। কাজী রফিকুল ইসলাম দলের নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য করে আনারস মার্কা নিয়ে নির্বাচন করেছেন। তার সঙ্গে শ্রাবণও ছিল। জামায়াত ও বিএনপি সরাসরি শ্রাবণের নেতৃত্বে তার বাবার ভোট করেছেন।

তবে ভিন্ন কথা বলছেন কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাস্টার রুহুল আমিন। তিনি বলেন, রাজনীতি করার অধিকার সবার আছে। পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতি করলেও শ্রাবণ ছাত্রকাল থেকেই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। এতে দোষের কিছু নেই। শ্রাবণ ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে, এটাকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছি। এ বিষয়টি নিয়ে আমাদের দলে কোনো প্রতিক্রিয়া আছে বলে মনে হয় না।