যশোরের ৯০% শিক্ষার্থীকে বইরে রেখেই গুগল মিট চালু

0
116

ডি এইচ দিলসান : করোনা মহামারীর কারণে ১৫ মাস বন্ধ সবধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যার কারনে প্রায় ২ কোটি শিশু আক্ষরিক অর্থে পড়াশোনার বাইরে রয়েছে। যদিও সময়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় রেডিও-টেলিভিশনে পাঠ কার্যক্রম চালিয়েছে। তবে এ কার্যক্রমে সাড়া মেলেনি বলে খোদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাই জানিয়েছেন। এ অবস্থা থেকে কিছুটা পরিত্রানের জন্য এবার চালু হয়েছে “গুগল মিট” ক্লাস। অপ্রিয় হলেও সত্য যে যশোরের ৯৫% শিক্ষার্থ এবং তাদের অবিভাবকরা। এক জরিপে দেখো গেছে যশোর জেলার মাত্র ২৬% শিক্ষার্থীর অবিভাবকরা স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহার করেন। তাদের মধ্যে প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন অবিভাবক আছে ১২-১৫%। হতাশার মধ্যে শুখকর হলেঅ এ অবস্থায় প্রাখমিকের শিক্ষার্থীদের অনলাই প্লাটফর্ম গুগল মিটের আওতায় আনার জন্য প্রাণপনে কাজ করছেন যশোর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ অহিদুল আলম। তিনি বলেন আমি আমার জেলার প্রত্যেকটা স্কুলের শিক্ষদের গুগল মিটের সম্পর্কে ট্রেনিং দিচ্ছি। শিক্ষকদেরকে তার শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি পাঠিয়ে খোজ খরর নিচ্ছি। যাদের স্মার্ট ফোন আছে তাদের শেখানোর চেষ্টা করছি কিভাবে কিভাবে অনলাইনে ক্লাস করে শিখন ও পঠন সচল রাখা যায়। তিনি বলের শতভাগ শিশুকে লেখাপড়ার বাইরে না রেখে যতটা সম্ভাব বাচ্চাদেও লেখাপড়ার মধ্যে রাখা যায় ততটা ভালো। তিনি আরো বলেন দীর্ঘমেয়াদি করোনা পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্থ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘গুগল মিট’ প্লাটফরমে অনলাইন ক্লাস চালু করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। প্রতিটি ক্লাস্টারে আইসিটি পুল গঠন করে নির্বাচিত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হবে। প্রতিটি ক্লাসে ৩০ জন করে শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে এ ক্লাস নেওয়া হবে।
এদিকে গুগল মিট নিয়ে শংকা প্রকাশ করেছেন যশোরের শিক্ষাবীদরা। কারণ এসব শিক্ষার্থীর প্রায় অর্ধেকেরই বসবাস শহরের বাইরে অর্থাৎ গ্রামে, যেখানে অ্যান্ড্রয়েড ফোন, ট্যাব ও ইন্টারনেট সুবিধা সীমিত। ফলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এই উদ্যোগ কিছু শিক্ষার্থীর কাজে লাগলেও বঞ্চিত হবে অধিকাংশ। প্রত্যান্ত এলাকাসহ গ্রামের শিক্ষার্থীদের কীভাবে এই প্রক্রিয়ার মধ্যে আনা সম্ভব সেটা একটি বড় প্রশ্ন থাকবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ তাদের নেই কোনো কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা স্মার্ট ফোন। নেই কোনো ইন্টানেট সংযোগ।
মনিরামপুর উপজেলার একটি গ্রামের বাসিন্দা আহসান হাবিব জানান, আমার দুই সন্তান প্রাইমারি স্কুলে পড়ে। করোনা শুরু হওয়ার পর থেকে তাদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ। লেখাপড়ায় তাদের মন নেই। স্কুলের চাপ না থাকায় সারাক্ষণ বাইরের দিকেই ঝোঁক। তবে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার উদ্যোগকে স্বাগত জানালেও এ সম্পর্কে কিছূই জানেন না তিনি। তিনি বলেন, তাদের একটি কম দামের বাটন মোবাইল আছে, তাতে আবার প্রায়ই নেটওয়ার্ক সমস্যা থাকে। ইন্টারনেটও এই মোবাইলে সাপোর্ট নেই না। সে ক্ষেত্রে ‘গুগল মিট’ প্লাাটফরমে অনলাইন ক্লাস চালু হলে তার সন্তানদের কোনো কাজে আসবে না বলেই মনে করেন তিনি। কেননা দামি মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট কিছুই তাদের নেই। এ ছাড়া নতুন এই প্রক্রিয়া সম্পর্কে কোনো ধারণাও নেই তাদের। এ সমস্যা শুধু আহসান হাবিবের নয়, প্রায় প্রতিটি প্রাথমিক শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে এ সমস্যা আছে।
উল্লেখ্য গুগল মিট ক্লাসের নির্দেশনা বা নীতিমালায় বলা হয়েছে, প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি করে আইসিটি পুল করে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার তার নেতৃত্ব দেবেন। ক্লাস্টারের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ইতোমধ্যে যারা গুগল মিটে কাজ করেছেন তারা আইসিটি পুলের সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত থাকবেন। ক্লাস্টারের কোনো শিক্ষকের গুগল মিট ওরিয়েন্টেশন না হয়ে থাকলে সে ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষককে ওরিয়েন্টেশন দিতে হবে। আইসিটি পুলের সদস্য ও অরিয়েন্টেশন নেওয়া শিক্ষকরা অভিভাবকদের মধ্যে যাদের স্মার্টফোন বা ডিভাইস আছে তাদের গুগল মিট ব্যবহার শেখাবেন। সেখানে আরো আছে কোনো একটি বিদ্যালয়ে কেন্দ্র স্থাপন করে গুগল মিটে ক্লাস নেওয়া হবে। প্রথম শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের এভাবে ক্লাস করানো হবে। অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে পরে প্রতিটি বিদ্যালয়ের জন্য অনলাইন ব্যবস্থা চালু হবে। প্রতিটি স্কুলকে ওয়াইফাই-এর আওতায়ও আনা হবে। শিক্ষার্থী বেশি হলে কেন্দ্রও বাড়ানো হবে। জেলা শিক্ষা অফিসার, পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট, পিটিআই ইনস্ট্রাক্টর (কম্পিউটার সায়েন্স), উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইনস্ট্রাক্টরদের নিয়ে জেলা পর্যায়ে একটি কমিটি থাকবে। এই কমিটি অনলাইন ক্লাস বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবে। বিভাগীয় উপপরিচালক সার্বিক দায়িত্বে থাকবেন।
যদিও খোজ নিয়ে জানা গেছে উপরের প্রায় সবকটি নির্দেশনা এখনো খাতা কলমেই রয়ে গেছে।