যশোরে অনিয়মতান্ত্রিক প্রতিক্রিয়ায় গড়ে ওঠা চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে প্রতিদিন ১০লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে

0
282

এম আর রকি : যশোরে অনিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় গড়ে ওঠা বেসরকারি হাসপাতাল,ক্লিনিক ও চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে প্রতিদিন পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে লাখ টাকা অবৈধ পন্থায় উপার্জনের খবর পাওয়া গেছে। রোগের ধরণ না বুঝে ও রোগ নির্ণয় না করলেও পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লাখ টাকা এ তথ্য বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রের।
নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছে,যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সামনে ও আশপাশে অনিয়মতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় গড়ে উঠেছে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল,ক্লিনিক ও বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্র। চিকিৎসার নামে অতি সহজে মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়া সম্ভব বিধায় দিন দিন এক শ্রেনীর অর্থলোভী চিকিৎসক ও বিভিন্ন পেশার মানুষ এই ব্যবসার প্রতি ঝুঁকে পড়েছে। জেলা সিভিল সার্জন দপ্তরে আবেদন করে রাতারাতি চালু করা হচ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। যে প্রতিষ্ঠানে সরকারী স্বাস্থ্য নীতি না মেনে যা ইচ্ছে তাই করা হচ্ছে। সুত্রগুলো বলেছে,রোগ নির্ণয়ের দোহায় দিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে প্রতিদিন গোটা যশোর জেলায় গড়ে ওঠা বেসরকারি হাসপাতাল,ক্লিনিক,চিকিৎসা কেন্দ্র ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গুলো হাতিয়ে নিচ্ছে ১০ লক্ষাধিক টাকা। যা প্রতিমাসে শুধু মাত্র পরীক্ষা নিরীক্ষার অজুহাতে এই সব প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা সহজ সরল নারী পূরুষদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে ৩ কোটি টাকার অধিক উপার্জন করছে। সূত্রগুলো বলেছে, যশোরে গড়ে ওঠা বেসরকারি হাসপাতাল,ক্লিনিক ও চিকিৎসা কেন্দ্র এবং ডায়াগস্টিক সেন্টার গুলো স্বাস্থ্য বিভাগের নিয়ম কানুন মানছেন না। যশোরে জেলা প্রশাসক দপ্তর থেকে ভ্রাম্যমান আদালতের টিম অভিযান চালালে ধরা পড়ছে বিভিন্ন অনিয়ম। তাছাড়া,রোগ নির্ণয় না বুঝলেও অর্থলোভী চিকিৎসকগন পরীক্ষা নিরীক্ষা দিচ্ছেন কমিশনের আশায়।ইদানীং যশোরে গড়ে ওঠা কতিপয় হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে দায়িত্বরত চিকিৎসকেরা উক্ত প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা নিরীক্ষা ছাড়া চিকিৎসা পত্র দেখছেন না। অথচ উন্নত ও মূল্যবান পরীক্ষা নিরীক্ষা যন্ত্র ব্যবহার করা হলেও সেগুলির উপর নির্ভর করা হচ্ছেনা। তার কারণ হিসেবে জানাগেছে,চিকিৎসার পাশাপাশি পরীক্ষা নিরীক্ষা খাতের টাকা দখলে রাখার জন্য এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে।সূত্রগুলো বলেছে,রোগ র্নিণয় না করে পরীক্ষা নিরীক্ষা করানো হচ্ছে কমিশনের আশায়। বিভিন্ন অভিজ্ঞ চিকিৎসক তাদের চুক্তিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান থেকে আলট্রাসনো,ইসিজি,এক্স-রেসহ বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা না করালে তা দেখেন না। হাসপাতালে ভর্তিসহ অন্যান্য খাতের চেয়ে পরীক্ষা ও নিরীক্ষার খাতের মাধ্যমে অতি সহজে লাখ টাকা বের করা সম্ভব তাই ডায়াগনষ্টিক সেন্টার খোলা হচ্ছে হরহামেশায়। আবার বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক মালিকেরা তাদের প্রতিষ্ঠানে ডায়াগনষ্টিক সেন্টার খুলে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করে যাচ্ছে। যশোর শহরের গরীবশাহ সড়কে গড়ে ওঠা জেনেসিস হসপিটালের চিকিৎসক ডাক্তার শেখ ইকবাল আহমেদের একটি চিকিৎসা পত্রে দেখা গেছে বাহিরের প্যাথলজী পরীক্ষার রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য নয় লেখা রয়েছে সীল আকারে। সূত্রগুলো বলেছে,উক্ত প্রতিষ্ঠানে কোন রোগী গেলে চিকিৎসকের সাক্ষাতের সাথে সাথে কমপক্ষে ৫ থেকে ৮টি পরীক্ষা নিরীক্ষার নির্দেশনা দেওয়া হয়। উক্ত প্রতিষ্ঠানে সকল পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পরামর্শ দিয়ে প্রথম পর্যায় হাতিয়ে নেওয়া হয় নূন্যতম ৬ হাজার থেকে ৯ হাজার টাকা। তার পর পরীক্ষা নিরীক্ষার রিপোর্ট দেখে কোন কিছু ধরা পড়েনি বলে জানানো হয়। এভাবে যশোরে বিভিন্ন চিকিৎসাক প্রতিষ্ঠানে এ ধরনের কারবার চালিয়ে রোগাক্রান্ত ব্যক্তিদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে যশোরের বিভিন্ন পেশার মানুষ স্বাস্থ্য মন্ত্রীসহ সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here