যশোরে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীসহ ৫০ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত

0
97

নিজস্ব প্রতিবেদক : সদ্য শেষ হওয়া পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে যশোর ও কেশবপুর উপজেলার ৫০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে সদর উপজেলার ২৮ জন এবং কেশবপুর উপজেলার ২২ জন রয়েছেন। জামানত হারানো প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের দুইজন, স্বতন্ত্র ৩১ জন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ১৪ জন ও জাকের পার্টির তিনজন রয়েছেন।

যশোর সদরে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী জামানত না হারালেও কেশবপুর উপজেলার ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শেখ অহিদুজ্জামান এক হাজার একশ’ ৭৪ ভোট ও সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ৫০৬ ভোট পাওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

যশোর জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, প্রয়োগকৃত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট না পাওয়ায় এসব প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। ইউপি নির্বাচন বিধিমালা ২০১০-এর ৪৪এর ৩ ধারা অনুযায়ী, নির্বাচনে ভোটারদের দেওয়া মোট বৈধ ভোটের আট ভাগের এক ভাগ না পেলে প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়।

জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, যশোরের দুই উপজেলার ২৬ ইউনিয়নে (৫ জানুয়ারি) বুধবার উৎসবমুখর পরিবেশে ইউপি নির্বাচন সম্পন্ন হয়। দুই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১২৯ জন, সাধারণ ওয়ার্ডে এক হাজার ৯৪ জন ও এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩০৭ জন প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেছিলেন। এর মধ্যে ১৪টিতে নৌকা, ৯টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও ২টিতে বিএনপি’র স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। একটি ইউনিয়নের এক কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। তাই ২৬টি ইউনিয়নে ১২৯ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ৫০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

যাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে সদর উপজেলায় ফতেপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী শিল্পী খাতুন, মোটরসাইকেল প্রতীকের আলমগীর হোসেন, কচুয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান অটোরিকশা ও আনারস প্রতীকের হাফিজুর রহমান খান।

ইছালী ইউনিয়নের ঘোড়া প্রতীকের সিরাজুল ইসলাম, রামনগর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী অটোরিকশার জুলেখা বেগম, ঘোড়া প্রতীকের কামরুজ্জামান ও টেলিফোন প্রতীকের কামরুজ্জামান। বসুন্দিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এস.কে মমিনুল ইসলাম আমিনুল ঘোড়া প্রতীক, মোটরসাইকেল প্রতীকের নুরুজ্জামান খান ও আনারস প্রতীকের শেখ শাহাবুদ্দিন।

নরেন্দ্রপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের হোসেন ফেরদাউস আলম, চাঁচড়া ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকের ফারুক হোসেন, আরবপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের নূরুল ইসলাম ও আনারস প্রতীকের সামসুর রহমান।

চুড়ামনকাটি ইউনিয়নে টেলিফোন প্রতীকের আলমগীর কবীর, মোটরসাইকেল প্রতীকের বাদশা ও অটোরিকশা প্রতীকের সাইফুল ইসলাম জামানত হারিয়েছেন। কাশিমপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতীকের বিএম সাইফুল ইসলাম ও আনারস প্রতীকের মোস্তফা এনামুল বারী হারিয়েছেন জামানত।

জামানত হারানো ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখার প্রার্থীরা হলেন, নওয়াপাড়া ইউনিয়নে মোশাররফ হোসেন, দেয়াড়ায় আব্দুল্লাহ, চাঁচড়ায় শামছুর রহমান, নরেন্দ্রপুর ওলিয়ার রহমান ও কচুয়ায় বাবুল হুসাইন।

এছাড়া, জাকেরপার্টির গোলাপ ফুলের জামানত হারানো প্রার্থীরা হচ্ছেন, ইছালী ইউনিয়নের সাইফুর রহমান, আরবপুরে গাজী রফিকুল ইসলাম ও চুড়ামনকাটিতে মতিয়ার রহমান।

কেশবপুরে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করা ৪৮ প্রার্থীর মধ্যে ২২ জনের জামানাত বাতিল হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের দুই জন প্রার্থী ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নয়জন রয়েছেন। বাকিরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেছিলেন।

ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ কবির আলমগীর, সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আকরাম ও আমানত আলী ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ইসমাইল হোসেন জামানাত বাতিল হয়েছে।

মজিদপুর ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুল লতিফ খান, বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হজরত আলী ও মঙ্গলকোট ইউনিয়নে একই দলের মিজানুর রহমান মোড়ল এবং স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী এস এম কামরুজ্জামান জামানত হারিয়েছেন।

পাঁজিয়া ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল হামিদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী মিহির কুমার বসু, সুফলাকাটি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুল আহাদ জামানত খুইয়েছেন।

গৌরীঘোনা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম আলিমুজ্জামান রানা, সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী সাইফুল ইসলাম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী উত্তম কুমার ঘোষ এবং রেজাউল ইসলাম জামানত হারিয়েছে। হাসানপুর ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল গফফার মোড়ল জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।