যশোরে আগুনে পুড়ে ভস্মিভূত দুই সহোদরের লাশের দাফন সম্পন্ন ॥ ক্ষতির পরিমান কয়েক কোটি টাকা

0
259

বিশেষ প্রতিনিধি : অসাবধানতা বশত যশোর সদর উপজেলার যশোর মাগুরা মহা সড়কের কিসমত নওয়াপাড়াস্থ পিকলুর গ্যারেজে ওয়েল্ডিংয়ের কাজ করতে গিয়ে কেমিক্যাল বোঝাই কার্ভাডভ্যানের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে গ্যারেজের মালিক পিকলু(৩২) ও তার ছোট ভাই রুহুল আমীন (২৮) আগুনে পুড়ে ভস্মিভূত হয়। এ সময় ওই গ্যারেজে থাকা আরো দু’টি কার্ভাডভ্যান দু’টি ট্রাকে আগুন লেগে পুড়ে গেছে। আগুনে পুড়ে কয়েক কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। মঙ্গলবার দুপুরে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আগুনে ভস্মিভূতর এক পর্যায় কয়লার আকৃতি দুই ভাই যশোর সদর উপজেলার ছোট শেখহাটি গ্রামের মৃত আবু বক্কারের ছেলে পিকলু ও রুহুল আমীনের শরীরের অংশ বিশেষের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে জোহরের নামাজ শেষে ছোট শেখহাটি মসজিদে নামাজে জানাযা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। এদিকে আগুনে পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ গ্যারেজ দেখতে মঙ্গলবার সকাল থেকে শত শত মানুষ ভীড় করে। আগুনে পুড়ে উক্ত গ্যারেজের আশপাশ এলাকার বিভিন্ন গাছপালা,ভবনের কিছুঅংশ আগুনের ঝলকানিতে পুড়ে গেছে। গ্যারেজের উপর দিয়ে বৈদ্যুতিক পিলারের প্লাস্টিকের তার পুড়ে সিলভার অংশ বের হয়ে গেছে। গ্যারেজের অংশে মেরামতের উদ্দেশ্যে থাকা দু’টি কার্ভাডভ্যান,একটি ট্রাক,একটি ট্রাক তৈরীর অবকাটামো পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে গেছে।স্থানীয় লোকজন উক্ত গ্যারেজের আশপাশের লোকজন জানান, যে কার্ভাডভ্যানের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত উক্ত ক্যাভার্ডভানে ভারত থেকে একটি কোম্পানীর কেমিক্যাল বোঝাই ছিল। উক্ত কার্ভাডভ্যানের মালিক যশোর সদর উপজেলার বড় বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের শফির ছেলে কবির হোসেন। সে মঙ্গলবার বেনাপোল থেকে নিজে কেমিক্যাল বোঝাই করে চালিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। উক্ত কার্ভাডভ্যানটিতে ত্রুটি দেখা দিলে উক্ত কার্ভাডভ্যানের মালিক কবির হোসেন নিজে চালিয়ে যশোর শহরতলী উপশহর খাজুরা বাসস্ট্যান্ডের কয়েকটি গ্যারেজে মেরামতের চেষ্টা করে। কার্ভাডভ্যানে কেমিক্যাল বোঝাই থাকায় উপশহর এলাকার কোন গ্যারেজের মালিক মেরামতের কাজ করতে রাজি হননি। ফলে কবির হোসেন কার্ভাডভ্যানটি উক্ত পিকলুর গ্যারেজে নিয়ে যায়। সেখানে গ্যারেজের মালিক পিকলুকে কার্ভাডভ্যানে কেমিক্যালের কথা গোপন করে মেরামতের চেষ্টার এক পর্যায় কবির হোসেন ও তার ভাগ্নে রাহেলা পুর গ্রামের আলমের ছেলে আশরাফুল কার্ভাডভ্যানের কাছে দাঁড়িয়ে থাকে। সোমবার রাত আনুমানিক ৮ বেজে ১৭ মিনিটে সাময় গ্যারেজের মালিক শ্রমিক পিকলু ও তার ছোট ভাই রুহুল আমীন কেমিক্যাল বোঝাই কার্ভাডভ্যানে স্প্রিংয়ের কাজ সেরে ওয়েল্ডিংয়ের কাজ শুরু করে। ওয়েল্ডিংয়ের শুরুতে আগুনের ফুলকিতে কার্ভাডভ্যানের মধ্যে থাকা তরল কেমিক্যালে লেগে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আগুন লেগে কেমিক্যাল বোঝাই প্লাস্টিকের ড্রাম বিস্ফোরণ ঘটে। কার্ভাডভ্যানের মধ্যে থাকা প্লাস্টিকের ড্রাম বিস্ফোরণ ঘটে গ্যারেজের বিপরীত পাশে পূর্ব পাশের একটি ভবনে কবির হোসেনর কার্ভাডভ্যানের পিছনের দরজার অংশ ছিটকে পড়ে ভবনের উপরের কিছু অংশ ভেঙ্গে যায়। উক্ত কার্ভাডভ্যানের পাশে থাকা আরো দু’টি কার্ভাডভ্যানের টায়ার ইঞ্চিন পুড়ে ও তার পাশে থাকা একটি ট্রাকের টায়ার ও বডি পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। মুহুর্তের মধ্যে আগুনের ঝলকানিতে রুহুল আমিন পড়ে গেলে বড় ভাই পিকলু ছোট ভাইকে রক্ষা করতে গিয়ে দু’ ভাই পুড়ে কয়লায় রুপান্তরিত হয়। কার্ভাডভ্যানের অদূরে দাঁড়িয়ে থাকা কবির হোসেন ও আশরাফুল বিস্ফোরণে ও আগুনের ঝলকানিতে পুড়ে গেলে তাদেরকে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। পরে তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানানন্তির করা হয় বলে জানাগেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here